kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সু চির সঙ্গে বৈঠক

রোহিঙ্গাদের দ্রুত ফিরিয়ে নিতে বললেন মোদি

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রোহিঙ্গাদের দ্রুত ফিরিয়ে নিতে বললেন মোদি

ছবি: ইন্টারনেট

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের দ্রুত, নিরাপদ ও টেকসইভাবে ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের প্রতি জোরালো আহ্বান জানিয়েছে ভারত। গতকাল রবিবার থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চির সঙ্গে বৈঠকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ওই আহ্বান জানান। ব্যাংককে দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলোর জোট আসিয়ানের শীর্ষ সম্মেলনের ফাঁকে ওই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকের পর ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, ‘প্রধানমন্ত্রী ভারত, বাংলাদেশ ও মিয়ানমার—এই তিন প্রতিবেশী রাষ্ট্র এবং আঞ্চলিক নিরাপত্তার স্বার্থে রাখাইন রাজ্য থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া লোকদের দ্রুত, নিরাপদ ও টেকসইভাবে তাদের বাড়িঘরে ফেরার ওপর জোর দিয়েছেন।’

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আরো জানায়, ভারত এরই মধ্যে রাখাইন রাজ্যে তার প্রথম প্রকল্পের আওতায় আড়াই শ বাড়ি নির্মাণ শেষে গত জুলাই মাসে মিয়ানমার সরকারের কাছে হস্তান্তর করেছে। সু চির সঙ্গে বৈঠকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী রাখাইন রাজ্যে আরো আর্থ-সামাজিক প্রকল্প নিতে ভারত প্রস্তুত আছে বলে জানিয়েছে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ রোহিঙ্গা ইস্যুতে কয়েক বছর ধরেই ভারতের জোরালো সমর্থন ও ভূমিকা প্রত্যাশা করে আসছে। এবারই প্রথম ভারত ও মিয়ানমারের মধ্যে শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যু এত সুনির্দিষ্টভাবে এসেছে এবং এই সংকট সমাধানে কার্যত তাগিদ দেওয়ার বিষয়টি স্পষ্ট হয়েছে।

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বাংলাদেশকে পূর্ণ সমর্থন ভারতের : এর আগে গত বুধবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে লেখা এক চিঠিতে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বাংলাদেশের উদ্যোগের প্রতি ভারতের পূর্ণ সমর্থনের কথা জানান ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর। ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গতকাল রবিবার ওই চিঠির কথা জানিয়েছে।

চিঠিতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিখেছেন, মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের দ্রুত, নিরাপদ ও টেকসই প্রত্যাবাসনে সংশ্লিষ্ট সবার স্বার্থ নিহিত। টেকসই আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার স্বার্থেও এটি প্রয়োজন। মিয়ানমারের রাখাইন থেকে বাস্তুচ্যুত প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গার বোঝা বহন করায় চিঠিতে বাংলাদেশের প্রশংসাও করেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, গত ৫ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় ঘোষিত যৌথ বিবৃতিতে রোহিঙ্গা ইস্যুটি সুনির্দিষ্টভাবে এসেছে। সেখানে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের বাসিন্দাদের শিগগিরই নিরাপদ, দ্রুত ও টেকসই প্রত্যাবাসনের আবশ্যকতার ব্যাপারে সম্মত হন। তাঁরা আরো সম্মত হন যে তাদের প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে আরো বেশি প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। এর মধ্যে রাখাইন রাজ্যের নিরাপত্তা পরিস্থিতি ও আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন উল্লেখযোগ্য।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা