kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

আর্থিক খাতে অনিয়ম

তদন্ত কমিটি করার নির্দেশ হাইকোর্টের

► ২% ডাউন পেমেন্ট সুবিধার সময় বাড়ল
► ‘সুদের হার এক অঙ্কে নামানো উচিত’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



তদন্ত কমিটি করার নির্দেশ হাইকোর্টের

ব্যাংকসহ আর্থিক খাতে অনিয়ম, দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা তদন্ত করতে বিশেষজ্ঞদের নিয়ে ৯ সদস্যের কমিটি গঠন করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এই কমিটির সুপারিশ বাস্তবায়ন করতে বাংলাদেশ ব্যাংককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে বকেয়ার ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট বা জমা দিয়ে ১০ বছরের জন্য ঋণ পুনঃ তফসিল করার সুবিধা নেওয়ার জন্য আবেদন করার সময় আরো ৯০ দিন বাড়িয়ে দিয়েছেন আদালত। তবে পরে ঋণ নিতে হলে বিআরপিডির ২০১২ সালে জারি করা প্রজ্ঞাপনের ৬(এ) ধারা অনুসরণ করতে বলা হয়েছে।

বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল রবিবার এক রায়ে ওই সব নির্দেশনা দিয়েছেন। গত ২০ বছরে ব্যাংকসহ আর্থিক খাতে অনিয়ম, দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা তদন্তে কমিশন গঠন এবং শতকরা ২ ভাগ ডাউন পেমেন্ট সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন বাতিল বিষয়ে জারি করা রুলের ওপর চূড়ান্ত শুনানি শেষে এ রায় দেওয়া হলো।

হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর  বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) করা এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই রায় দেন আদালত। আদালতে রিট আবেদনকারীপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। অর্থ মন্ত্রণালয়ের পক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি, শামীম খালেদ আহমেদ ও ব্যারিস্টার মুনীরুজ্জামান। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান। ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট শাহ মঞ্জুরুল হক।

‘ব্যাংক হচ্ছে অর্থ সঞ্চালনের হৃৎপিণ্ড’ : আদালত বলেন, মানবদেহের রক্ত সঞ্চালন নিয়ন্ত্রণ করে হৃৎপিণ্ড। তেমনি অর্থ সঞ্চালন নিয়ন্ত্রণ করে ব্যাংক। ব্যাংক হচ্ছে অর্থ সঞ্চালনের হৃৎপিণ্ড। আদালত বলেন, ‘গত ২৫ বছরে দেশে ব্যাংকের সংখ্যা বেড়েছে। দেশের শিল্প খাত, বাণিজ্যিক খাত সম্প্রসারিত হয়েছে। কিন্তু কেউ অস্বীকার করতে পারবে না যে হলমার্ক, বেসিক ব্যাংক বা বিসমিল্লাহ গ্রুপের মতো চাঞ্চল্যকর আর্থিক কেলেঙ্কারির ঘটনা ঘটেছে। যদিও এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক, সরকার ও দুদক এরই মধ্যে পদক্ষেপ নিয়েছে। কিন্তু এই পদক্ষেপ যথেষ্ট নয় বলে মনে করি।’ আদালত আরো বলেন, আর্থিক খাতে এ ধরনের অনিয়ম বহাল থাকলে দেশের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে। ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হওয়ার লক্ষ্যে পৌঁছতে সরকার ঘোষিত কর্মসূচি বাধাগ্রস্ত হবে। এ কারণে আর্থিক অনিয়ম, দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা তদন্তে একটি কমিটি করা দরকার, যে কমিটি হবে বিশেষজ্ঞদের নিয়ে।

‘সুদের হার এক অঙ্কে নামানো উচিত’ : আদালত বলেছেন, অধিক হারে সুদ নেওয়ার কারণে এর প্রভাব ব্যবসা-বাণিজ্যের ওপর পড়ে। উৎপাদিত পণ্যের দাম বেড়ে যায়। এ কারণে সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে (এক অঙ্ক অর্থাৎ সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ) নামিয়ে আনা উচিত।

‘কর্মকর্তা নিয়োগ তদারকি করবে বাংলাদেশ ব্যাংক’ : রায়ে বলা হয়েছে, বিভিন্ন ব্যাংকের শীর্ষ পাঁচ কর্মকর্তা নিয়োগের বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংক তদারকি করবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন ছাড়া শীর্ষ পাঁচ কর্মকর্তা নিয়োগ করা যাবে না।

গতকাল রায়ের পর অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ সাংবাদিকদের বলেন, ৯ জন বিশেষজ্ঞকে দিয়ে একটি কমিটি গঠন করতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এই কমিটি সরকারি-বেসরকারি সব ব্যাংকের দুর্বলতা, বিশেষ করে ঋণ পরিশোধ, ঋণ অনুমোদন এবং সংগ্রহে অনিয়মসহ সব বিষয় তদন্ত করবে। কী কারণে এই দুর্নীতি ও অনিয়ম হচ্ছে, তা চিহ্নিত করবে। একই সঙ্গে এসব সমস্যা দূর করতে সুপারিশ তৈরি করবে। এই কমিটি বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে প্রতিবেদন দেবে। এই প্রতিবেদন কার্যকর করবে বাংলাদেশ ব্যাংক।

ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের আইনজীবী শাহ মঞ্জুরুল হক বলেন, ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্টের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক যে সার্কুলার দিয়েছিল তা অবৈধ করেননি হাইকোর্ট। বরং ওই সার্কুলারের মেয়াদ আরো তিন মাস সময় বাড়িয়ে দিয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা