kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

শিল্পী কালিদাস কর্মকার না ফেরার দেশে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শিল্পী কালিদাস কর্মকার না ফেরার দেশে

সমকালীন চিত্রশিল্পে নিরীক্ষাধর্মী শিল্পকর্মের জন্য আলোচিত চিত্রশিল্পী কালিদাস কর্মকার মারা গেছেন। গতকাল শুক্রবার দুপুরে অচেতন অবস্থায় ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে নেওয়া হলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা এই শিল্পীকে মৃত ঘোষণা করেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৩ বছর।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেন জানান, দুপুরে ইস্কাটনের বাসার বাথরুমে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায় কালিদাস কর্মকারকে। পরিবারের সদস্যরা তাঁকে ল্যাবএইড হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলেন; কিন্তু এর আগেই সব শেষ। তিনি জানান, কালিদাস কর্মকারের মরদেহ রাতে রাখা হবে বারডেমের হিমঘরে। তাঁর দুই মেয়ে কেয়া কর্মকার ও কঙ্কা কর্মকার যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন। তাঁরা ফিরলেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

গ্যালারি কসমসের নির্বাহী শিল্প ব্যবস্থাপক সৌরভ চৌধুরী বাসসকে জানান, শিল্পীর প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য তাঁর মরদেহ আগামীকাল রবিবার সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটে নেওয়া হবে। এর পর ১১টায় তাঁর মরদেহ নেওয়া হবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে।

বাংলাদেশের সমকালীন চিত্রশিল্পে ভিন্ন মাধ্যম ও আঙ্গিক প্রবর্তনে যাঁরা অগ্রণী, কালিদাস কর্মকার তাঁদেরই একজন। ইউরোপীয় আধুনিকতা ঘরানার এই শিল্পী মিশ্র মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলতে চেয়েছেন বাংলার মাটির পাললিক গল্প।

দেশে-বিদেশে অন্তত ৭১টি একক প্রদর্শনী হয়েছে কালিদাস কর্মকারের। এর বাইরে বহু যৌথ প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছেন তিনি। ১৯৭৬ সাল থেকে ফ্রিল্যান্স শিল্পী হিসেবে দেশে-বিদেশে কাজ করে আসছিলেন।

কালিদাস কর্মকার ওয়ারশ ইউনিভার্সিটির ওয়ারশ একাডেমি অব ফাইন আর্টসে গ্রাফিক আর্ট বিষয়ে পোল্যান্ড সরকারের বৃত্তি, প্যারিসে আতেলিয়ার-১৭-তে গবেষণার জন্য ফাইন আর্টসে ফরাসি সরকারের উচ্চতর বৃত্তি, টোকিও ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব ফাইন আর্টস অ্যান্ড মিউজিকে জাপানিজ উডব্লক প্রিন্টিং বিষয়ে জাপান ফাউন্ডেশন ফেলোশিপ, পশ্চিমবঙ্গ ললিতকলা একাডেমি স্টুডিওতে গবেষণার জন্য আইসিসিআর বিশেষ বৃত্তি এবং যুক্তরাষ্ট্র এশিয়ান কালচারাল কাউন্সিল নিউ ইয়র্ক ফেলোশিপ লাভ করেন। ২০০৬ সালে তিনি ব্রুকলিনে পয়েন্টবি ওয়ার্কলজে রেসিডেন্সিতে অংশ নেওয়ার জন্য এসিসি ফেলোশিপ পান।

কালিদাস কর্মকারের জন্ম ১৯৪৬ সালে ফরিদপুরে। ১৯৬৯ সালে কলকাতা আর্ট কলেজ থেকে তিনি চারুকলায় স্নাতক ডিগ্রি পান। চারুকলায় অবদানের জন্য কালিদাস কর্মকারকে ২০১৮ সালে একুশে পদকে ভূষিত করা হয়। এ ছাড়া শিল্পকলা পদক, সুলতান স্বর্ণপদকসহ বিভিন্ন সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খ্যাতিমান চিত্রশিল্পী কালিদাস কর্মকারের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এক শোকবার্তায় তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন এই চিত্রশিল্পী তাঁর চিত্রকর্মে আবহমান বাংলার স্বরূপ প্রকাশের পাশাপাশি নিরীক্ষাধর্মী শিল্পকর্মের জন্য শিল্পীমহলে বিশেষভাবে সমাদৃত হয়েছেন। তাঁর কর্ম নতুন প্রজন্মকে অনুপ্রেরণা জুগিয়ে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। আরও শোক প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও ফরিদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা