kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩০ আষাঢ় ১৪২৭। ১৪ জুলাই ২০২০। ২২ জিলকদ ১৪৪১

গোয়েন্দা হেফাজতেই আছেন সম্রাট

রেজোয়ান বিশ্বাস   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



গোয়েন্দা হেফাজতেই আছেন সম্রাট

যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে দুই দিন ধরে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের কোনো যোগাযোগ নেই। এ কারণে তাঁদের ধারণা সম্রাট এখন গোয়েন্দা হেফাজতে রয়েছেন। আটকের পর তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তবে সম্রাটকে আটক করে কোথায় রাখা হয়েছে, সে বিষয়ে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোনো সংস্থাই এখনো পর্যন্ত খোলাসা করে কিছু বলছে না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শীর্ষ গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, ‘সম্রাট তাঁদের জালের মধ্যেই আছেন।’

 তবে সম্রাটের আটকের বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‘তিনি গ্রেপ্তার হয়েছেন কি না শিগগিরই জানা যাবে। আপনারা দেখবেন, খুব শিগগির দেখবেন। অপেক্ষা করুন, যা ঘটে দেখবেন।’

কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ গতকাল শনিবার জিজ্ঞাসার জবাবে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘তাঁর বিষয়ে (সম্রাট) আমার কাছে কোনো তথ্যই নেই। পত্রিকা পড়ে তাঁর সম্পর্কে জানছি। চলমান অভিযানের পর থেকেই তাঁর সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই।’

তবে গতকাল যুবলীগের একাধিক শীর্ষস্থানীয় নেতার সঙ্গে কথা বলে সম্রাটের বিষয়ে ভিন্ন তথ্য পাওয়া গেছে। বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে দুজন যুবলীগ নেতা বলেছেন, সম্রাট আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতেই আছেন। সময় ও সুযোগমতো তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হবে।’ ওই দুই যুবলীগ নেতার বরাত দিয়ে জানতে চাইলে এক শীর্ষ গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, ‘তাঁরা যেটা বলেছেন সেটা মিথ্যা নয়, চলমান ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের শুরু থেকেই সম্রাটের ওপর কড়া নজরদারি ছিল। খালেদ গ্রেপ্তার হওয়ার পরপরই সম্রাট গোয়েন্দা জালের মধ্যেই রয়েছেন। এরপর তাঁকে গোয়েন্দা হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।’

গোয়েন্দাদের সূত্র জানিয়েছে, জয়েন্ট ইন্টারোগেশন সেলে সম্রাটসহ ক্যাসিনো কারবারে আটক ও গ্রেপ্তারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ এরই মধ্যে শুরু হয়েছে।

এ ছাড়া গতকাল সম্রাটের আটকের বিষয়ে জানতে চাইলে যুবলীগের একাধিক নেতা প্রায় একই বক্তব্য দেন। তাঁরা বলেছেন, ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের পর থেকেই সম্রাট গ্রেপ্তার আতঙ্কে ভুগছিলেন। খালেদ গ্রেপ্তার হওয়ার পর সম্রাট শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও ফেনী সীমান্ত দিয়ে বিদেশে পালানোরও চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। এরই মধ্যে শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো সুবিধা করতে পারেননি। একপর্যায়ে যখন বুঝতে পারেন দেশ থেকে পালানোর আর কোনো সুযোগ নেই, তখন ব্যাপক দুশ্চিন্তায় পড়েন। এরপর বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী নিয়ে গত ১৯ সেপ্টেম্বর কাকরাইলে ঈশা খাঁ হোটেলের বিপরীতে ‘ভূঁইয়া ম্যানশনে’ নিজ কার্যালয়ে অবস্থান নেন। সেখানে মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সারা রাত থাকেন। এরপর অবস্থা নিজের অনুকূলে না থাকায় সেখান থেকে সটকে পড়েন সম্রাট। চলে যান অনেকটা আত্মগোপনে।

যুবলীগ সূত্রে জানা গেছে, খালেদ গ্রেপ্তারের পরই ভড়কে যান সম্রাট। গ্রেপ্তার এড়াতে শুরু করেন নানা মহলে লবিং। দলীয় হাইকমান্ডকে দফায় দফায় বোঝানোর চেষ্টা করেন দলের প্রতি তাঁর অবদানের কথা। গত রবিবার তিনি বনানী ডিওএইচএস এলাকার একটি বাসায় অবস্থান করেন। সেখান থেকেই তাঁকে আটক করা হয় বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো যা বলেন : গতকাল রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে এক অনুষ্ঠান শেষে সম্রাটের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের আরো বলেন, ‘যে যে-ই ধরনের অপরাধ করুক না কেন, তাকে আইনের মুখোমুখি হতে হবে। এ জন্য আমরা তথ্যভিত্তিক অভিযান চালাচ্ছি। আপনারাও দেখছেন। অপরাধ ঘটছে বা যারা অপরাধ ঘটাচ্ছে—এমন খবর যখনই পাব তখনই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। এটা কোনো শুদ্ধি অভিযান না। সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য যা করা প্রয়োজন, তা-ই আমরা করছি।’ সম্রাটকে গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, ‘আপনারা অনেক কিছু বলছেন, আমরা যেটা বলছি ‘সম্রাট’ হোক, আর যে-ই হোক অপরাধ করলে তাকে আমরা আইনের আওতায় আনব। আমি এটা এখনো বলছি, সম্রাট বলে কথা না, যে কেউ আইনের আওতায় আসবে।’

ক্যাসিনোর অভিযান সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের আমরা সব সময় সঠিক তথ্যটাই দিয়ে থাকি। চলমান যে অভিযান, এটাকে আমি অভিযান বলব না, এটা সব সময় হয়ে থাকে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যে এগিয়ে গেছে এর মূল কারণ হলো সামনে কী আসবে, সেটা নিয়ে তিনি চিন্তা করেন।’

ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান র্যাবই পরিচালনা করবে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘যেহেতু অভিযানটি র্যাব শুরু করেছে, তাই তারাই অভিযান চালাবে। তবে অভিযানে অযথা কাউকে যেন হয়রানি করা না হয়, সেদিকেও লক্ষ রাখা হবে।’

সম্রাটকে আগলে রাখা নেতাকর্মী কমে গিয়েছিল

গত কয়েক দিনে কাকরাইলে সম্রাটের কার্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, শুরুতে যেভাবে নেতাকর্মীরা সম্রাটকে পাহারা দিয়ে রেখেছিলেন, সেভাবে আর নেতাকর্মী নেই তাঁর অফিসের সামনে। তিনি ধরা পড়ার আগের দিন পর্যন্ত তাঁর কার্যালয়ে সর্বোচ্চ ২০ জনকে দেখা যায়। এসব নেতাকর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ছয় দিন কার্যালয়ে থেকে সম্রাট অফিস থেকে বের হয়ে যান। এরপর আর তিনি অফিসে আসেননি। আর এ কারণেই অফিসে নেতাকর্মীদের উপস্থিতি কমেছে। অফিসে না আসায় নেতাকর্মীদের অনেকে তাঁকে তাঁর বাসায়ও খুঁজছিলেন। বাসায়ও তাঁকে পাননি তাঁরা।

কাকরাইলে সম্রাটের কার্যালয়ে গিয়ে আরো দেখা যায়, ভবনটির প্রধান ফটকের কলাপসিবল গেটে তালা লাগানো। ভেতরে তিনজন দারোয়ান। তাঁদের সঙ্গে কথা বলে কেউ কেউ ভেতরে ঢুকছে। এ প্রতিবেদক সম্রাট তাঁর কার্যালয়ে আছেন কি না জানতে চাইলে তাঁরা অনেকটা এক সুরে বলেন, ‘স্যার অসুস্থ, স্যারের মাও অসুস্থ। স্যার মাকে নিয়ে হাসপাতালে দৌড়াদৌড়ি করছেন। এ কারণে মনে হয় অফিসে আসছেন না।’ তবে কোন হাসপাতালে সম্রাটের মা আছেন জানতে চাইলে তাঁরা বলেন, এটা তাঁরা জানেন না।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে দলের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় যুবলীগের কয়েকজন নেতাকর্মীর বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এর পর থেকেই আলোচনায় আসে সম্রাট ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার নাম। প্রধানমন্ত্রীর ক্ষোভ প্রকাশের চার দিনের মাথায় গত ১৮ সেপ্টেম্বর সম্রাট-খালেদ নিয়ন্ত্রিত ক্যাসিনোগুলোতে অভিযান শুরু করে র্যাব। ওই দিনই গুলশানের বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় সম্রাটের একসময়ের ঘনিষ্ঠ সহযোগী খালেদকে। এরপর সবচেয়ে বেশি আলোচনায় আসেন সম্রাট। ক্যাসিনো ‘সম্রাটের’ বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি পরিচালনার অভিযোগও ওঠে। তাঁর দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করে পুলিশ। গত রবিবার তাঁর দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞাসংক্রান্ত আদেশ দেশের সব বিমানবন্দর ও স্থলবন্দরে পাঠানো হয়। সেই সঙ্গে তাঁর ব্যাংক হিসাবও তলব করে বাংলাদেশ ব্যাংক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা