kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ডেঙ্গুতে আরো দুজনের মৃত্যু

►হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ছাড়িয়েছে
► ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি ৭৯৩ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ডেঙ্গুতে আরো দুজনের মৃত্যু

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আবু সৈয়দ নামের একজন রোগী গতকাল শুক্রবার চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুম সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এ ছাড়া ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরেকজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে বেসরকারি সূত্রে। ওই রোগীর নাম তারানা বেগম।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে গত বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে গতকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ৭৯৩ জন দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। তাদের মধ্যে রাজধানীর ৪১টি হাসপাতালে ৩২৫ জন এবং বাইরের হাসপাতালে ৪৬৮ জন ভর্তি হয়।

তবে এর আগের ২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় ৩৩১ জন এবং ঢাকার বাইরের হাসপাতালে ৪৫৭ জন অর্থাৎ মোট ৭৮৮ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল। সে হিসাবে আগের দিনের তুলনায় গতকাল সারা দেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগী পাঁচজন বেড়েছে।

জানা যায়, চলতি বছর সারা দেশে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে সরকারি-বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। ১ জানুয়ারি থেকে গতকাল পর্যন্ত সর্বমোট ৭৫ হাজার ১৪৬ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়। তবে ভর্তি রোগীদের মধ্যে এরই মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৭১ হাজার ৬১৭ জন। বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে তিন হাজার ৩৩৭ জন। তাদের মধ্যে রাজধানী ঢাকার হাসপাতালে এক হাজার ৭০৪ জন এবং ঢাকার বাইরের হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা এক হাজার ৬৩৩ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীর বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের মধ্যে ঢাকা মেডিক্যালে ৬১, মিটফোর্ডে ৫৭, ঢাকা শিশু হাসপাতালে সাত, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ২৬, বিএসএমএমইউ হাসপাতালে ১৪, পুলিশ হাসপাতাল রাজারবাগে তিন, মুগদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ১৯, বিজিবি হাসপাতাল পিলখানায় এক, ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ১১, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ৩৪ এবং কুয়েত মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে দুজনসহ সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত হাসপাতালে মোট ২৩৫ জন ভর্তি হয়।

বেসরকারি অন্যান্য হাসপাতাল-ক্লিনিকে ৯০ জনসহ ঢাকা শহরে মোট ৩২৫ জন এবং ঢাকার বাইরের বিভাগীয় হাসপাতালে ৪৬৮ জন ভর্তি হয়। ঢাকা শহর ছাড়া ঢাকা বিভাগে ১০১, চট্টগ্রাম বিভাগে ৮৯, খুলনায় ১৪১, রংপুরে আট, রাজশাহীতে ৪৬, বরিশালে ৫৭, সিলেটে ৯ এবং ময়মনসিংহ বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে ১৭ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে।

কালীগঞ্জে ডেঙ্গুতে নারীর মৃত্যু

আমাদের কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি জানান, কালীগঞ্জে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে তারানা বেগম নামের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের আলতাফ হোসেনের স্ত্রী। গত বুধবার ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল থেকে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়।

আলতাফ হোসেন জানান, গত ২৮ আগস্ট তাঁর স্ত্রী প্রথমে জ্বর অনুভব করেন। স্থানীয়ভাবে চিকিৎসার পর ১ সেপ্টেম্বর তাঁকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে পরীক্ষার পর তাঁর ডেঙ্গু ধরা পড়ে। হাসপাতালের ‘ডেঙ্গু’ ওয়ার্ডে রেখে তাঁকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। বুধবার সকালে অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকরা তাঁকে ফরিদপুর মেডিক্যালে নিতে বলেন। সেখানে নেওয়ার পথে মধুখালী সেতু পার হওয়ার পর তিনি মারা যান। সেখান থেকে বাড়িতে নিয়ে রাতেই তাঁর দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে।

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক অপূর্ব কুমার জানান, তারানা ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ওই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে ফরিদপুর রেফার করা হয়েছিল।

চট্টগ্রামে আরো এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু

চট্টগ্রাম থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আবু সৈয়দ (৩০) নামে আরো এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বিকেল ৫টা ৩০ মিনিটের দিকে হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

নিহত আবু সৈয়দ নগরের কোতোয়ালি থানার চাক্তাই আসাদগঞ্জ ইসলাম কলোনির মো. সালামের ছেলে। তাঁর গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলে।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, গত বুধবার আবু সৈয়দের ডেঙ্গু শনাক্ত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার সকালে তাঁকে ওই হাসপাতালের ডেঙ্গু ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। পরে শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন থাকায় আইসিইউতে নিয়ে যাওয়া হয়। গতকাল তাঁর মৃত্যু হয়।

এর আগে নগরের পার্কভিউ হাসপাতালে বাদশা মোল্লা (৫৫) নামে এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছিল। এরপর ৩ সেপ্টেম্বর দুপুরে বিপ্লব দাস (২৫) নামে আরো এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয় চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা