kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সংস্কার প্রকল্প উত্থাপনে বিরক্ত প্রধানমন্ত্রী

মহাসড়ক থেকে টোল আদায়ের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মহাসড়ক থেকে টোল আদায়ের নির্দেশ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক চালুর তিন বছরের মধ্যেই সংস্কারের উদ্যোগে বিরক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের জাতীয় মহাসড়কগুলোকে টোলের আওতায় আনার নির্দেশ দিয়েছেন। টোল থেকে যে টাকা আদায় হবে সেই টাকা মহাসড়ক সংস্কারে খরচ করার কথা বলেন তিনি। তাঁর মতে, এভাবে মহাসড়ক সংস্কারের জন্য রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে টাকা জোগান দেওয়ার কোনো মানে হয় না। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলানগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, মহাসড়ক সংস্কার, মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণে বাজেট থেকে টাকা দিলে রাষ্ট্রীয় কোষাগারের ওপর চাপ বাড়ে। তাই সরকারি তহবিল থেকে সড়ক সংস্কারের টাকা না দিয়ে টোল থেকে যে টাকা আদায় হবে, বছরব্যাপী সেই টাকা দিয়ে সড়ক সংস্কার করতে হবে। টোল আদায়ের জন্য বিকল্প একটি অ্যাকাউন্ট খোলার নির্দেশও দেন প্রধানমন্ত্রী।

পরিকল্পনা কমিশন থেকে পাওয়া তথ্য বলছে, গতকালের একনেক সভায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক সংস্কারের জন্য ৭৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প অনুমোদনের জন্য উত্থাপন করা হয়। তিন হাজার ৬০০ কোটি টাকা খরচ করে ১৯২ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের মহাড়কটির কাজ শেষ হয় ২০১৬ সালে। চার লেনবিশিষ্ট মহাসড়কটি তিন বছর না যেতেই বিভিন্ন জায়গায় তৈরি হয়েছে গর্ত, খানাখন্দ। মাত্র তিন বছরের মধ্যেই মহাসড়কটি সংস্কারের প্রয়োজন হওয়ায় বিরক্ত হন প্রধানমন্ত্রী।

একনেক সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন উদ্ধৃত করে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের দেশে সাধারণত সড়ক-মহাসড়কে সেতু থেকে টোল আদায় করা হয়। কিন্তু মহাসড়ক থেকে টোল আদায় করা হয় না। প্রধানমন্ত্রী মহাসড়ক থেকে টোল আদায়ের নির্দেশ দিয়েছেন। আমাদের ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-সিলেট, ঢাকা-খুলনা, ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক থেকে টোল আদায় করা হবে। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সারা বিশ্বেই মহাসড়ক থেকে টোল আদায়ের উদাহরণ আছে। তবে কোন মহাসড়কে টোলের হার কত হবে, সেটা সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে নির্ধারণ করা হবে। এভাবে সড়ক সংস্কারের জন্য সরকারি কোষাগার থেকে টাকার জোগান দেওয়া আর যাবে না। টোল থেকে যে টাকা আদায় হবে, সেই টাকা দিয়ে সড়ক সংস্কার হবে বলে জানান পরিকল্পনামন্ত্রী।

দেশে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের আওতায় সড়ক রয়েছে ২১ হাজার ৫৯৫ কিলোমিটার। এর মধ্যে তিন হাজার ৯০৬ কিলোমিটার জাতীয় মহাসড়ক। যুক্তরাষ্ট্র, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ডসহ উন্নত বিশ্বের উদাহরণ টেনে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ওই সব দেশে টোল আদায় জনপ্রিয়। কোথাও কার্ডে টোল আদায় হয়, কোথাও ক্যাশে। মন্ত্রী বলেন, উন্নত বিশ্বের মতো আমাদের এখানেও মহাসড়কে ৫০ কিলোমিটার দূরত্বে সড়কে গেট থাকবে। অবশ্য স্থানীয় যানবাহন টোলের আওতায় আসবে না। দূরবর্তী যানবাহনই টোলের আওতায় আসবে বলে জানান মন্ত্রী। এ বিষয়ে প্রকৌশলীরা কাজ করবেন।

গতকাল একনেক সভায় ঢাকা-যশোর সড়কের কাজের ধীরগতিতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী। ঢাকা-যশোর সড়কের কাজে গতি আনার তাগিদও দেন তিনি। অন্যদিকে মহাসড়কে এক্সেল লোড নিয়ে কেউ যাতে টেম্পারিং করতে না পারে, সেদিকে খেয়াল রাখার নির্দেশ দেন। পাশাপাশি সড়কে চলার সময় বাসে ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী নেওয়া এবং ট্রাক যাতে ওভারলোডেড না হয় সেদিকে নজর বাড়ানোর নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, দেশের প্রতিটি কারাগারে ভার্চুয়াল কোর্ট পদ্ধতি চালু করতে গতকালের একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন। এ ছাড়া কারাবন্দির মাধ্যমে উৎপাদিত পণ্য বিক্রির অর্ধেক টাকা কারাবন্দি পরিবারকে দেওয়ার নির্দেশও দেন।

একনেকে ৬৩০০ কোটি টাকার দশ প্রকল্প অনুমোদন

গতকালের একনেক সভায় মহাসড়কে এক্সেল লোড স্থাপনসহ মোট দশটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট খরচ হবে ছয় হাজার ৩২৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হবে পাঁচ হাজার ৩২৭ কোটি টাকা। বাকি ৯৯৯ কোটি টাকা উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে পাওয়ার আশা করছে সরকার। অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো—এক হাজার ৬৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৮টি স্থানে এক্সেল লোড স্থাপন, ১৭৯ কোটি টাকা ব্যয়ে পানির গুণগতমান পরীক্ষা ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণ, কুড়িগ্রাম-নাগেশ্বরী-ভূরুঙ্গামারী-সোনাহাট স্থলবন্দর সড়ককে জাতীয় মহাসড়কে উন্নীতকরণ, ভুয়াপুর-তারাকান্দি জেলা মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ, নরসিংদী জেলা কারাগার নির্মাণ, মানসম্পন্ন বীজ আলু উৎপাদন ও সংরক্ষণ এবং কৃষক পর্যায়ে বিতরণ জোরদারকরণ, প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহে কাব স্কাউটিং সমপ্রসারণ এবং পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্প উল্লেখযোগ্য।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা