kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

চালক গ্রেপ্তার

বাস চালানোর প্রথম দিনেই কৃষ্ণাকে চাপা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাস চালানোর প্রথম দিনেই কৃষ্ণাকে চাপা

কৃষ্ণাকে চাপা দেওয়া আটক গাড়ির চালক মোরশেদ

আগে চালাতেন প্রাইভেট কার। নেই ভারী গাড়ি চালানোর ড্রাইভিং লাইসেন্স। অভিজ্ঞতাও নেই। তার পরও বসেছিলেন ট্রাস্ট ট্রান্সপোর্ট কম্পানির বাসের চালকের আসনে। প্রথম দিনের অনভিজ্ঞ চালক ঘটিয়ে বসলেন সর্বনাশ। রাজধানীর বাংলামোটরে গত মঙ্গলবার ফুটপাতে উঠিয়ে দেওয়া বাসের ধাক্কায় কৃষ্ণা রায় চৌধুরীর পা হারানোর ঘটনায় চালক মোরশেদ (৩৫) সম্পর্কে এমন তথ্য জানিয়েছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। গত রবিবার রাতে মিরপুরের কাজীপাড়া এলাকা থেকে চালক মোরশেদকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত মঙ্গলবার দুপুরে বাংলামোটরে ট্রাস্ট ট্রান্সপোর্ট কম্পানির একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফুটপাতে উঠে গেলে চাপা পড়েন কৃষ্ণা রায়। এতে তাঁর বাঁ পা প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পরে হাসপাতালে হাঁটুর ওপর পর্যন্ত কেটে ফেলতে হয়েছে। কৃষ্ণার স্বামী রাধে শ্যাম চৌধুরী হাতিরঝিল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

পিবিআইয়ের বিশেষ পুলিশ সুপার বশির আহমেদ বলেন, বিষয়টি গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচিত হওয়ায় দেশজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এরপর পিবিআইপ্রধানের নির্দেশে একটি বিশেষ টিম গঠন করা হয়। এই টিম কিশোরগঞ্জসহ ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় অনুসন্ধান চালিয়ে গত রবিবার রাতে মোরশেদের অবস্থান শনাক্ত করে তাঁকে গ্রেপ্তার করে।

অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া পিবিআইয়ের ঢাকা মেট্রো উত্তরের পরিদর্শক জুয়েল মিয়া বলেন, ‘মোরশেদ মিডিয়াম ক্যাটাগরির যানবাহন চালানোর লাইসেন্সধারী। মিডিয়াম লাইসেন্স নিয়ে সাত টনের নিচে যানবাহন চালানো যায়। এর বেশি হলে তা ভারী যানবাহন। দুর্ঘটনার ট্রাস্ট ট্রান্সপোর্ট কম্পানির ওই বাস ভারী যানবাহন ক্যাটাগরির।’ তিনি আরো বলেন, ‘মোরশেদ প্রথমে বাসের সহকারী ছিল। এরপর সে প্রাইভেট কার ও হালকা যানবাহন চালায়। মিডিয়াম ক্যাটাগরির লাইসেন্স পেলেও ভারী বাস চালানোর অভিজ্ঞতা তার ছিল না। আর প্রথম দিনেই ট্রাস্টের ওই বাস চালাতে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটায়।’

গ্রেপ্তারের পর নিজের দায় এড়িয়ে মোরশেদ বলেন, ‘ট্রাস্টের ওই বাসটিতে সমস্যা ছিল। ব্রেক হচ্ছিল না। এ কারণে দুর্ঘটনাটি ঘটে।’

সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) পরিচালক (অপারেশন) শীতাংশু শেখর বিশ্বাস সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিআরটিএর নিয়ম অনুযায়ী সাত টনের বেশি ওজনের যানবাহন ভারী যানবাহন। এ ধরনের যানবাহন চালানোর জন্য চালকদের ভারী বা হেভি লাইসেন্স দরকার।’

পিবিআই জানায়, দুর্ঘটনার পর মোরশেদ বাস থেকে দ্রুত নামতে গিয়ে যাত্রীদের হাতে মারধরের শিকার হন। এ সময় তাঁর জামাকাপড় ছিঁড়ে যায়। ওই অবস্থায় দৌড়ে পালিয়ে যান তিনি। কাফরুলের ইব্রাহিমপুর এলাকার ভাড়া বাসায় গিয়ে সেখান থেকে চলে যান কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ থানার নামাপাড়ার বড়টিয়াপাড়া গ্রামের বাড়ি। সেখানে পাঁচ দিন অবস্থান করেছিলেন। মোবাইল ফোনের সিমও পরিবর্তন করেন। অভিযান টের পেয়ে তিনি ঢাকার কাজীপাড়ায় চলে আসেন।

থানায় দায়ের করা মামলায় রাধে শ্যাম চৌধুরী অভিযোগ করেন, তাঁর স্ত্রী, বিআইডাব্লিউটিসির সহব্যবস্থাপক (অর্থ) কৃষ্ণা রায় গত ২৭ আগস্ট দুপুর পৌনে ২টার দিকে বাংলামোটর ফুট ওভারব্রিজের নিচে এমএইচকে ভবনের পশ্চিম পাশের ফুটপাত দিয়ে হেঁটে কারওয়ান বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন। ওই সময় কারওয়ান বাজারের দিক থেকে বেপরোয়া গতিতে আসা ট্রাস্ট ট্রান্সপোর্ট সার্ভিস লিমিটেডের (ঢাকা মেট্রো-ব-১১-৯১৪৫) বাসটি ফুটপাতে উঠে যায়। এতে তাঁর স্ত্রী মারাত্মকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হন। তাঁর বাঁ পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা