kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

চলন্ত বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে সিকৃবি শিক্ষার্থীকে হত্যা!

সিলেট অফিস   

২৪ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চলন্ত বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে সিকৃবি শিক্ষার্থীকে হত্যা!

বাসচালকের সহকারীর সঙ্গে ভাড়া নিয়ে কথা-কাটাকাটির জের ধরে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিকৃবি) শিক্ষার্থী ওয়াসিম আফনানকে বাস থেকে ফেলে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শনিবার বিকেল ৪টার দিকে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের মৌলভীবাজারের শেরপুরে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আফনান সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ছিলেন। তিনি হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার রুদ্রগ্রামের আবু জাহেদ মাহবুবের ছেলে।

নিহতের সহপাঠীরা জানিয়েছেন, একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১ জন শিক্ষার্থী হবিগঞ্জের দেবপাড়ায় গিয়েছিলেন। ওই অনুষ্ঠান শেষে তাঁরা সিলেট-ময়মনসিংহ সড়কে চলাচলকারী উদার পরিবহনের একটি বাসে (ঢাকা মেট্রো-১৪-১২৮০) ওঠেন। বাসচালকের সহকারী অতিরিক্ত ভাড়া চাইলে তাঁর সঙ্গে শিক্ষার্থীদের তর্ক বাধে। একপর্যায়ে ওই ছাত্ররা শেরপুরে তাঁদের নামিয়ে দিতে বলেন। এ সময় চালকের সহকারী আফনানকে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। এতে তিনি চলন্ত বাসের নিচে চাপা পড়েন। এ সময় আহত হন আরেক সহপাঠী রাকিব হোসেন। পরে অন্য সহপাঠীরা তাঁদের আহত অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেন। সেখানে চিকিৎসক আফনানকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের শিক্ষার্থী নয়ন রঞ্জন অভিযোগ করে বলেন, বাসে তর্কাতর্কি লাগলে আফনানকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়া হয়। এ সময় বাস তাঁর কোমরের ওপর দিয়ে চলে যায়।

খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে আসেন সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে তিনি বলেন, “এটি কোনোভাবে দুর্ঘটনা নয়। ধাক্কা দিয়ে আমার ছাত্রকে ফেলে দেওয়া হয়েছে। এটা একটা ‘মার্ডার কেস’।”

সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসি সেলিম মিয়া বলেন, গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁদের হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। মৌলভীবাজার সদর থানা পুলিশ ওই বাসটি জব্দ করেছে। তবে চালক ও তার সহকারীকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা