kalerkantho

শনিবার । ২৫ মে ২০১৯। ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৯ রমজান ১৪৪০

রংচং পাল্টে ‘সুপ্রভাত’ হয়ে গেল ‘সম্রাট’

শরীফ আহেমদ শামীম গাজীপুর   

২১ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রংচং পাল্টে ‘সুপ্রভাত’ হয়ে গেল ‘সম্রাট’

গাজীপুর মহানগরীর গাজীপুরা বাসস্ট্যান্ডসংলগ্ন একটি মাঠে ‘সুপ্রভাত স্পেশাল সার্ভিস’ বাসের রং মুছে ‘সম্রাট ট্রান্সলাইন (প্রা.) লিমিটেড’ লেখা হচ্ছে। ছবিটি গতকাল বিকেলে তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রকে মেরে ফেলার পর ‘সুপ্রভাত স্পেশাল সার্ভিস’ রাতারাতি নাম পাল্টে হচ্ছে ‘সম্রাট ট্রান্সলাইন (প্রা.) লিমিটেড’। গতকাল বুধবার বিকেলে গাজীপুর মহানগরীর গাজীপুরা এলাকায় সুপ্রভাতের নাম বদলাতে দেখা গেছে।

গত মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার প্রবেশপথে সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বাসের চাপায় প্রাণ হারান বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরী। তাঁর মৃত্যুর পর ঘাতক ‘সুপ্রভাত পরিবহন’ নিয়ে নানা অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। নিহতের সহপাঠীসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা সুপ্রভাতের চালকের বিচারসহ আট দফা দাবিতে আন্দোলনে নামে। ঘটনার পর বিআরটিএ ঘাতক বাসটির রুট পারমিট বাতিল করে। এরপর গতকাল বুধবারও বিভিন্ন স্থানে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষাভ করে শিক্ষার্থীরা। যদিও সন্ধ্যায় সাত দিনের আলটিমেটাম দিয়ে আন্দোলন স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। এমন পরিস্থিতির মধ্যেই ‘সুপ্রভাত’ পরিবহনের নাম পরিবর্তন করতে দেখা গেল। প্রভাবশালী এক পরিবহন নেতার নির্দেশনায় ‘সম্রাট’ নামে ওই পরিবহনকে রাস্তায় নামানোর তৎপরতা চলছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

গতকাল বিকেলে গাজীপুরা এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, গাজীপুরা বাসস্ট্যান্ডের অদূরের একটি মাঠে সুপ্রভাতের দুটি বাসে নাম পরিবর্তনের কাজ চলছে। আগের নাম মুছে নতুন নাম লেখা হচ্ছে। রংমিস্ত্রি আতিকুল ইসলাম জানান, তিনি আড়াই হাজার টাকা চুক্তিতে দুটি বাসে রং করছেন। বাসের বডিতে আগের ‘সুপ্রভাত স্পেশাল’ লেখা মুছে তিনি ‘সম্রাট ট্রান্সলাইন (প্রা.) লিমিটেড’ লিখছেন। এ ছাড়া বাসের  বডির রঙে কিছুটা ভিন্নতা আনা হচ্ছে।

এক প্রশ্নের জবাবে রংমিস্ত্রি আতিকুল বলেন, বাসের মালিককে তিনি চেনেন না। গ্যারেজ মালিক তাঁকে এ কাজ দিয়েছেন। এভাবে অনেক মালিকই নাম পরিবর্তন করছে। এই বাস চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আছে বলে তিনি শুনেছেন।

কয়েকজন পরিবহন শ্রমিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ‘সুপ্রভাত’ পরিবহনটি এত দিন রাজধানীর সদরঘাট থেকে গাজীপুর মহানগরীর গাজীপুরা রুটে চলাচল করত। যদিও এটির রুট পারমিট রাজধানীর উত্তরা পর্যন্ত। আর সম্রাট ট্রান্সলাইন (প্রা.) লিমিটেড চলে ঢাকার মহাখালী থেকে কাপাসিয়া হয়ে নরসিংদীর মনোরহদীর চালাকচর পর্যন্ত। নাম পাল্টে সম্রাট নামে চলার কৌশলে আছেন ঢাকা সড়ক পরিবহন সমিতির এক প্রভাবশালী নেতা। ওই নেতার নির্দেশেই দ্রুত নাম পরিবর্তন করে রাস্তায় নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে ‘সুপ্রভাত পরিবহন’। আবার অনেক বাস মালিক সুবিধা অনুযায়ী বিভিন্ন কম্পানিতে নিজেদের বাস অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা করছে।

জানতে চাইলে সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বাসের (ঢাকা মেট্রো ব-১২-০৭৬৯) মালিক রফিক তালুকদার বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে বাস চালানো বন্ধ আছে। অনেক বাস ভাঙচুর হয়েছে। বাস বন্ধ ও ভাঙচুরের কারণে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। চালক ও তাদের সহকারীরাও অলস সময় কাটাচ্ছে। ক্ষতি ও সম্ভাব্য পরিস্থিতি বিবেচনা করে বাধ্য হয়ে অনেকে নাম পরিবর্তন করে বিভিন্ন রুটে যাওয়ার কথা ভাবছে।’ তবে নাম পরিবর্তন করে সম্রাট ট্রান্সলাইন (প্রা.) লিমিটেডে যাওয়ার বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে দাবি করেছেন।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের (দক্ষিণ) সহকারী কমিশনার মো. নজরুল ইসলাম বলেন, সুপ্রভাত পরিবহনের কোনো বাস অন্য কম্পানির নামে পরিবর্তিত হচ্ছে—এমনটা তাঁর জানা নেই। সুপ্রভাত পরিবহনের কোনো বাসের গাজীপুরে প্রবেশ করার সুযোগ নেই। বিষয়টি খোঁজ নিতে তিনি লোক পাঠিয়েছেন। সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নজরুল ইসলাম আরো বলেন, কোনো কম্পানির বাস অন্য কম্পানিতে স্থানান্তর করার সুযোগ আছে, তবে সেটা যথাযথ নিয়ম মেনে হতে হবে। রাতারাতি হওয়ার সুযোগ নেই।

 

মন্তব্য