kalerkantho

সোমবার। ১৯ আগস্ট ২০১৯। ৪ ভাদ্র ১৪২৬। ১৭ জিলহজ ১৪৪০

খালেদাকে আজ বঙ্গবন্ধু মেডিক্যালে নেওয়া হচ্ছে

ওমর ফারুক   

১০ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



খালেদাকে আজ বঙ্গবন্ধু মেডিক্যালে নেওয়া হচ্ছে

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আজ রবিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে। সেখানে মেডিক্যাল বোর্ড তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করবে। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কারা সূত্র জানায়, কোনো সমস্যার সৃষ্টি না হলে আজ রবিবার খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হবে।

কারাগারের এক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, যদি খালেদা জিয়াকে ভর্তির বিষয়ে চিকিৎসকরা পরামর্শ দেন তাহলে তাঁকে ভর্তি করা হবে। আর যদি ভর্তি না লাগে তাহলে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে কারাগারে ফিরিয়ে নেওয়া হবে।

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজা হওয়ার পর গত বছর ৮ ফেব্রুয়ারি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসার জন্য উচ্চ আদালতের নির্দেশে গত বছর ৬ অক্টোবর তাঁকে কারাগার থেকে নেওয়া হয় বিএসএমএমইউতে। সেখানে তিনি মাসখানেক চিকিৎসা নেন। গত বছর ৮ নভেম্বর চিকিৎসকরা ছাড়পত্র দেওয়ার পর তাঁকে কারাগারে ফিরিয়ে নেওয়া হয়। এর পর থেকে বিএনপি দাবি করে আসছে খালেদা জিয়া অসুস্থ, তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করানো দরকার। গত ৫ মার্চ বিএনপি নেতারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে দেখা করার পর সরকারের তরফ থেকে তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানা গেছে। সে ক্ষেত্রে আজ রবিবার যেকোনো সময় তাঁকে বিএসএমএমইউতে নেওয়া হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার তাগিদ দিয়ে চিঠি দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সেদিন তাঁর সঙ্গে ছিলেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

সাক্ষাৎ শেষে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘আমরা দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়ার কথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়েছি। তিনি আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন, খালেদা জিয়ার সর্বোচ্চ সুচিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ওই দিন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘বিএনপির একটি প্রতিনিধিদল মন্ত্রণালয়ে এসেছিল। তারা একটি পত্র আমাকে হস্তান্তর করেছে, যেটির সারমর্ম ছিল এ রকম, বিএনপির চেয়ারপারসনের চিকিৎসার প্রয়োজন।’ তিনি আরো বলেন, ‘খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য আদালত একটি কমিটি করে দিয়েছিলেন। কমিটিকে যে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল, সেই অনুযায়ী চিকিৎসক বোর্ড খালেদা জিয়ার চিকিৎসার সব রকমের ব্যবস্থা করবে। বিএনপির নেতারা যে সুচিকিৎসার কথা বললেন, আপনারা নিশ্চয় জানেন, বিএনপি চেয়ারপারসন যখন অন্তরীণ হলেন, আমরা জেলকোড অনুযায়ী চিকিৎসা থেকে যা যা ব্যবস্থা করার, তা করেছি। তাঁকে একজন মহিলা অ্যাটেনডেনসও আমরা দিয়েছি। আমরা তাঁকে বঙ্গবন্ধু হাসপাতালে পাঠিয়েছিলাম, সেখানে তাঁর চিকিৎসার পর রিলিজ দেওয়া হয়।’

মন্তব্য