kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

আবুধাবি থেকে আজ ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহ লুলু এনএমসির

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহ লুলু এনএমসির

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য, পর্যটন, রিটেইল চেইন শপসহ বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছে আবুধাবিভিত্তিক লুলু গ্রুপ ও এনএমসি গ্রুপ। গতকাল মঙ্গলবার সকালে আবুধাবিতে হোটেল সেন্ট রেগিজে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে লুলু গ্রুপের চেয়ারম্যান ইউসুফ আলী এবং এনএমসি গ্রুপের চেয়ারম্যান বি আর শেঠী এই আগ্রহের কথা জানান।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘লুলু গ্রুপের চেয়ারম্যান বলেছেন, অনেক এরিয়া রয়েছে যেসব খাতে উদ্ভাবন করা যায়। পর্যটন, হাইপার মার্কেট। উনি ঢাকার কাছে এবং বাইরে জমি চেয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও বলেছেন, দেওয়া হবে।’ লুলু গ্রুপের অধীনে বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় হাইপার মার্কেট রয়েছে। লুলু গ্রুপের চেয়ারম্যান বাংলাদেশে পাঁচ তারকা হোটেল করার কথাও বলেছেন জানিয়ে ইহসানুল করিম বলেন, ‘নীতিগতভাবে তাঁরা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাঁরা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করবেন।’ এনএমসি গ্রুপ বাংলাদেশে হাসপাতাল করতে চায় বলে জানান প্রেসসচিব। ক্যান্সার ও হৃদরোগের জন্য বিশেষায়িত হাসপাতাল করতে গ্রুপের চেয়ারম্যান বৈঠকে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলে জানান তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে ইহসানুল করিম বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আবুধাবি সফর খুবই সফল হয়েছে। গতকাল সকালে গালফ নিউজ ও খালিজ টাইমসকে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। খালিজ টাইমসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি আরব আমিরাতে থাকা বাংলাদেশিদের সেখানকার আইন মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনাদের কঠোর পরিশ্রমের জন্য আমরা গর্বিত। দয়া করে যে দেশে আছেন, সেখানকার আইন মেনে চলুন।’

সাক্ষাৎকারে শেখ হাসিনা জানান, বিদেশ যেতে ইচ্ছুক কর্মীদের দক্ষতা বাড়াতে বাংলাদেশে কারিগরি শিক্ষার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। দেশজুড়ে ভোকেশনাল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হচ্ছে।

আরব আমিরাত সফর সফল হয়েছে বলেও দাবি করে শেখ হাসিনা জানান, বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে রাজি হয়েছেন আরব আমিরাতের নেতারা। তিনি বলেন, ‘আমি আমিরাতের নেতাদের সঙ্গে দেখা করেছি। তাঁরা বাংলাদেশের উন্নয়নে অংশ নিতে রাজি হয়েছেন।’ 

সংবর্ধনায় প্রধানমন্ত্রী: পরে সন্ধ্যায় আরব আমিরাতের বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে স্থানীয় সেন্ট রেগিজ হোটেলে প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রদত্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশটা আমাদের, কাজেই আমাদের নৈতিক দায়িত্ব হচ্ছে দেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ করে গড়ে তোলা।’ আরব আমিরাতে বাংলাদেশ মহিলা সমিতি শাখার নেত্রী জাকিয়া হাসনাত ইমরান, প্রবাসী বাংলাদেশি বিভিন্ন নেতা, জনতা ব্যাংক আরব আমিরাত শাখার কর্মকর্তারা, বাংলাদেশ বিমান ও সেখানকার দুটি বাংলাদেশি বিদ্যালয় এবং আরব আমিরাতে বসবাসকারী বাংলাদেশের শীর্ষ ব্যবসায়িক নেতারা অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রধানমন্ত্রীকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ, জায়েদ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হাবিবুল হক খন্দকার এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি ইফতেখার ইসলাম বকুল অনুষ্ঠানে বত্তৃদ্ধতা করেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আয়োজিত এক নৈশভোজেও তিনি অংশগ্রহণ করেন। আজ বুধবার সকালে তাঁর ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে।  

জার্মানি সফর শেষে রবিবার সকালে মিউনিখ থেকে আবুধাবি পৌঁছান শেখ হাসিনা। গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জয়ী হয়ে টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর এটাই তাঁর প্রথম বিদেশ সফর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা