kalerkantho

শনিবার । ১৬ নভেম্বর ২০১৯। ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সাক্ষাৎকার

মশার প্রকোপ নেই ডিএসসিসি এলাকায়

সাঈদ খোকন, মেয়র, ডিএসসিসি   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মশার প্রকোপ নেই ডিএসসিসি এলাকায়

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন দাবি করেছেন, মশক নিধন কর্মীদের তৎপরতা এবং নিয়মিত তদারকির কারণে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় মশার প্রকোপ নেই। গত বৃহস্পতিবার এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ দাবি করেন।

মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, মশার উপদ্রব থেকে সম্মানিত নগরবাসীদের রক্ষাকল্পে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন মশক নিধনের নিয়মিত কর্মসূচি বাস্তবায়নের পাশাপাশি বিশেষ ক্রাশ কর্মসূচি গ্রহণ করে থাকে। মশার প্রজননস্থল ধ্বংস করার লক্ষ্যে বাড়ি বাড়ি গিয়ে চৌবাচ্চা, ফুলের টব, এসি ও ফ্রিজে জমে থাকা পানি অপসারণে নগরবাসীদের সচেতন করে তোলা হয়। একই সঙ্গে বসতবাড়ির আঙিনা পরিচ্ছন্ন রাখতে মাইকিং, লিফলেট বিতরণ, মতবিনিময়সভার আয়োজন, মসজিদে ইমামদের দিয়ে বয়ানের মাধ্যমে নগরবাসীদের সচেতন করা হয়। গত বছর সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে সর্বস্তরের মানুষকে সম্পৃক্ত করে সচেতনতামূলক জনসমাবেশ করা হয়েছে বেশ কয়েকটি।

ডিএসসিসির মেয়র বলেন, জনপ্রতিনিধি হিসেবে ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের নেতৃত্বে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সম্পৃক্ত করা হয় সচেতনতামূলক কর্মসূচিতে। মশক নিধন কর্মীদের এ দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনের জন্য মোটিভেশনমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। মশার ডিম ধ্বংস করতে ভোরবেলা নগরীর নর্দমাসহ বিভিন্ন স্থানে লার্ভিসাইড প্রয়োগ এবং বিকেল বেলা উড়ন্ত পূর্ণাঙ্গ মশক নিধনে ফগিং কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। মশার প্রজনন মৌসুমে সব জনবল ও যন্ত্রপাতি একত্র করে জোন ভিত্তিতে পুরা ওয়ার্ড ফগিং এবং লার্ভিসাইডিং কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। এর বাইরেও যেকোনো নাগরিক এ বিষয়ে করপোরেশনের কন্ট্রোল রুমে ফোন করে সহায়তা নিতে পারে। কট্রোল রুমে ফোন করা হলে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট এলাকা বা বাড়িতে গিয়ে মশার ওষুধ ছিটানো হয়।

সাক্ষাৎকার নিয়েছেন শাখাওয়াত হোসেন

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা