kalerkantho

শুক্রবার । ২২ নভেম্বর ২০১৯। ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে উদ্বেগ

সব অসামঞ্জস্য দূর করার আহ্বান সাংবাদিকদের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সব অসামঞ্জস্য দূর করার আহ্বান সাংবাদিকদের

প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী গণমাধ্যম প্রতিনিধিদের সঙ্গে চূড়ান্ত বৈঠক না করেই সংসদীয় স্থায়ী কমিটি জাতীয় সংসদে তাদের সুপারিশ একতরফাভাবে উপস্থাপন করেছে। ফলে এই সুপারিশে সাংবাদিক সমাজের মতামত যথাযথভাবে প্রতিফলিত হয়নি। এ নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে গণমাধ্যমের প্রতিনিধিত্ব করা তিনটি সংগঠন। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে তারা প্রস্তাবিত আইনটিতে যেসব অসামঞ্জস্য রয়েছে সেগুলো দূর করার আহ্বান জানিয়েছে।

উল্লেখ্য, সাংবাদিক সমাজের প্রতিনিধিত্বকারী সম্পাদক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ আনাম, অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্সের (এটকো) সহসভাপতি মোজাম্মেল বাবু ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সঙ্গে আলোচনায় অংশ নিয়েছিলেন।

গতকাল শনিবার তিন সংগঠনের এই প্রতিনিধিরা জাতীয় সংসদে ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল পাস করা, এই আইন প্রণয়নকালে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর বক্তব্য এবং সংসদীয় কমিটির পেশকৃত প্রতিবেদন সম্পর্কে যৌথ বিবৃতি দিয়েছেন। তাঁরা বলছেন, ‘আমাদের ওই সুপারিশের কিছু কিছু বিষয় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সংযোজন করা হলো : ১. গণমাধ্যমকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা হয়নি। ২. তথ্য অধিকার আইন ও অফিশিয়াল সিক্রেসি আইনের পাশাপাশি অবস্থান নিশ্চিত করে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির সৃষ্টি করা হয়েছে। ৩. পুলিশকে অবাধে ক্ষমতা প্রয়োগের সুযোগ দিয়ে স্বাধীন সাংবাদিকতাকে বাধাগ্রস্ত করার পথ সুগম করা হয়েছে। অতীত অভিজ্ঞতা থেকে আমরা এই আইনের অপপ্রয়োগের বিষয়টি নিয়েও উৎকণ্ঠিত।’

এই আইনের অপপ্রয়োগ করে যাতে মত প্রকাশের স্বাধীনতা ও স্বাধীন সাংবাদিকতার ক্ষেত্রকে সংকুচিত করা না হয় সে বিষয়টি নিশ্চিত করার দাবি জানান তিন সংগঠনের এই নেতারা। একই সঙ্গে গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের সুরক্ষা নিশ্চিত করার দাবি করেন তাঁরা।

তাঁরা বলেছেন, ‘আমরা মনে করি এই আইন কার্যকর করার ক্ষেত্রে বিধিমালা প্রণয়নের বেলায় আলোচনা করে উল্লিখিত সকল অসামঞ্জস্য দূর করে আইনটি সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য করার সুযোগ রয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা