kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

সা জ

ঈদের তিন বেলায় তিন সাজ

দুই বছর পর এবারের ঈদের আনন্দটা যেন একটু বেশিই। বলা যায়, মন খুলে একটু ঘুরে বেড়ানো যাবে। তাই পোশাকের পাশাপাশি সাজের ব্যাপারেও একটু আলাদা মনোযোগ হবে। ঈদের তিন বেলায় কিভাবে আর কতটুকু সাজবেন জানালেন জারাস বিউটি লাউঞ্জের রূপ বিশেষজ্ঞ ফারহানা রুমি

২৭ এপ্রিল, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঈদের তিন বেলায় তিন সাজ

ঈদের সকালে ঘরে থাকলে সাজ গর্জিয়াস আর সাদামাটা কোনোটাই চলবে না। সকাল সকাল ভারী সাজ আপনার জন্য বেমানান হবে। তার ওপর গরম, তাই সাজে পরিমিত ভাব থাকবে। ঘুম ভেঙে প্রয়োজনীয় কাজ শেষ করে গোসল করে নিন।

বিজ্ঞাপন

ভেজা ভাব থাকতেই ত্বকে ময়েশ্চারাইজার দিন। এরপর ত্বকের ধরন বুঝে হালকা ফেস পাউডার বুলিয়ে নিন। চোখের ওয়াটার লাইনে কাজল, সঙ্গে ঠোঁটে নুড কালারের যেকোনো শেডে লিপ কালার কিংবা গ্লস দিন। এবার ভেজা চুল শুকিয়ে বেঁধে রাখুন। গরমের সময়টা সারা দিন খোলা চুলে কাটানো কষ্টকর। খোঁপা, বেণি, ঝুঁটি যা-ই পছন্দ করেন, করে নিতে পারেন। এ ছাড়া পাঞ্চ ক্লিপ দিয়েও চুল আটকে রাখা যায়। এরপর দিন পছন্দের পারফিউম।

যেহেতু বাসায় আছেন, সেহেতু এই সাজে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত থাকতে পারেন। দুপুরে চাইলে সকালে যে লিপস্টিক ব্যবহার করেছেন, তা মুছে ভিন্ন রঙের একটা লিপস্টিক দিতে পারেন। চোখে আইলাইনার দিন। এ রকম ছোটখাটো করে দুপুরের সাজে ভিন্নতা আনুন। যে পোশাক পরবেন তার সঙ্গে মিলিয়ে লিপ কালারের রং বেছে নিন। আইশ্যাডোটা চাইলে আরো একটু গাঢ় করে নিতে পারেন। দুপুরের সময় অতিথি আপ্যায়ন করতে ব্যস্ত থাকবেন। তাই চুল নিয়ে যাতে বিড়ম্বনা না হয়, উঁচু করে খোঁপা বা পনিটেল করা যায়।

অনেকেরই দুপুরের পর বিকেলে হয়তো অবসর মিলবে। চাইলে বাইরে বের হতে পারেন। কিংবা আত্মীয়-স্বজনের বাসায় বেড়িয়ে আসতে পারেন। রোদের তেজ কমে এলে ঈদের বিশেষ পোশাকটি এবার পরতে পারেন। আর ঈদ বলে কথা, একটু গর্জিয়াস করে সেজে নিতে পারেন। মুখ ফেসওয়াশ দিয়ে ধুয়েমুছে লিকুইড ফাউন্ডেশন লাগাতে পারেন। ফাউন্ডেশনটি অবশ্যই পানি নিরোধক ও ভালো ব্র্যান্ডের হলে ভালো, এতে খুব একটা ঘামও হবে না। তবে আপনি চাইলে কনসিলার ব্যবহার করে ফাউন্ডেশন লাগাতে পারেন। এতে দেখতে ন্যাচারাল লাগবে। ফাউন্ডেশন দেওয়া শেষ হলে এরপর স্যাটিন পাউডার দিন। এতে চেহারায় ন্যাচারাল ভাব ফুটে উঠবে। বেইস হয়ে যাওয়ার পর কনট্যুরিং করে নিতে পারেন। হালকা রং ব্যবহার করে গাল কেটে নিলে ভালো লাগবে। এরপর ব্লাশন লাগানোর পালা। ব্লাশনের ওপর যাঁদের বয়স অল্প তাঁরা শিমার লাগাতে পারেন। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে নুড বেইস লিপস্টিক লাগাতে পারেন। চুল আয়রন করে ছেড়ে রাখতে কিংবা একপাশে বেণি, এলোখোঁপা বা কার্ল করে ছেড়ে রাখতে পারেন। চুলে নানা রকম ফ্লোরাল হেয়ারব্যান্ড ও হেয়ারক্লিপ ব্যবহার করা যায়।

আবার রাতের জন্য যদি সাজতে চান তাহলে বিকেলের সাজগোজে টাচ-আপ করে নিতে পারেন। রাতের সাজটা অবশ্যই একটু গর্জিয়াস হলে ভালো। সময় থাকলে মুখ পরিষ্কার করে নতুনভাবে সাজতে পারেন। চোখের সাজ এবং লিপস্টিক একটু গাঢ় করে দিতে পারেন। চোখের স্মোকি সাজ রাতেই ভালো মানায়। চোখে গ্লিটারের শ্যাডোও দিতে পারেন। কারণ এখন গ্লিটার শ্যাডোর ট্রেন্ড চলছে। আর ঠোঁটে গাঢ় রঙের লিপস্টিক।



সাতদিনের সেরা