kalerkantho

শনিবার । ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৪ ডিসেম্বর ২০২১। ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

সৌরকলঙ্ক

[নবম-দশম শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ের তৃতীয় অধ্যায়ে সৌরকলঙ্কের উল্লেখ আছে]

২৫ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সৌরকলঙ্ক

দূরবীক্ষণ যন্ত্রের সাহায্যে সূর্যের দিকে তাকিয়ে ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করলে সূর্যের উজ্জ্বল আলোর মাঝে ছোট কালো দাগ দেখা যায়। এগুলোকেই সৌরকলঙ্ক বা সানস্পট বলে।

গ্রিক ইতিহাস থেকে জানা যায়, দূরবীক্ষণ যন্ত্র আবিষ্কার আগে মানুষ খালি চোখে কোনো কোনো সময় জ্বলন্ত সূর্যের বুকে ছোট-বড় গাঢ় কালো রঙের দাগ প্রত্যক্ষ করেছে। তাদের এক দলের ধারণা ছিল, ওই গভীর কালো দাগগুলো আসলে সূর্যপৃষ্ঠের কোনো কিছু নয়, ওগুলো গ্রহ। সূর্যের পৃষ্ঠদেশের ওপরে অবস্থানের কারণে ওগুলোকে কালো দাগের মতো দেখায়। আবার কারো কারো মতে, ওগুলো সূর্যের পর্বত। কিন্তু বিজ্ঞানী গ্যালিলিও গ্যালিলি সেই পুরনো ধ্যান-ধারণাকে বাতিল করে দিয়ে প্রমাণ করেন যে কালো দাগগুলো কোনো গ্রহ নয়। এগুলো সূর্যেরই অংশ।

সূর্যের পৃষ্ঠদেশের সাপেক্ষে এই দাগগুলোকে কালো মনে হলেও এগুলো মোটেই কালো নয়। শুধু ঘিরে থাকা আলোকমণ্ডলের তুলনায় এদের রেডিয়েশন বিতরণ অপেক্ষাকৃতভাবে কম বলে সূর্যের অন্যান্য জায়গার চেয়ে এসব জায়গার তাপ অনেকটা কম। তাই চারপাশের অতি উজ্জ্বলতার মধ্যে এদের নিষ্প্রভতায় অনেকটা কালচে বলে মনে হয়।

সৌরকলঙ্কের ভিতরে তৈরি হয় এক ধরনের চৌম্বক ক্ষেত্র। ফলে সূর্যের কেন্দ্রস্থলে তৈরি হওয়া তীব্র উত্তাপ সূর্যের পৃষ্ঠে আসতে বাধাগ্রস্ত হয়। এ জন্য তাপ কমে যায়। এ পর্যন্ত সূর্যের বুকে অসংখ্য সৌরকলঙ্ক দেখা গেছে। জানা যায়, কোনো কোনো সৌরকলঙ্কের আয়তন ১০ হাজার বর্গকিলোমিটারেরও বেশি।

সৌরকলঙ্কের প্রচ্ছায়া ও উপচ্ছায়া নামে দুটি অংশ রয়েছে। সৌরকলঙ্কের কেন্দ্রে অপেক্ষাকৃত বেশি অন্ধকারাচ্ছন্ন অংশকে প্রচ্ছায়া এবং প্রচ্ছায়াকে ঘিরে থাকা অংশকে বলে উপচ্ছায়া। গবেষণায় দেখা গেছে, সৌরকলঙ্কগুলো সংখ্যায় বৃদ্ধি পেতে পেতে একসময় আর বাড়ে না। ঠিক ওই অবস্থাকে বলা হয় ‘সানস্পট ম্যাক্সিমাম’। ওই অবস্থা থেকে ওরা আবার আস্তে আস্তে সংখ্যায় কমতে শুরু করে এবং এমন একটা সংখ্যায় আসে, যা থেকে আর কমে না। এই অবস্থাকে বলা হয় ‘সানস্পট মিনিমাম’। গড়পড়তা ১১ বছর পর পর ‘সানস্পট ম্যাক্সিমাম’ অবস্থা পরিলক্ষিত হয়। এই ১১ বছর সময়কালকে বলা হয় ‘সৌরকলঙ্ক চক্র’ বা Sunspot cycle।

ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল

[আরো বিস্তারিত জানতে পত্রপত্রিকায় সৌরকলঙ্ক সম্পর্কিত লেখাগুলো পড়তে পারো।]



সাতদিনের সেরা