kalerkantho

বুধবার । ৪ কার্তিক ১৪২৮। ২০ অক্টোবর ২০২১। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

নবম ও দশম শ্রেণি : বাংলা প্রথম পত্র

আতাউর রহমান সায়েম, সিনিয়র সহকারী শিক্ষক, আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মতিঝিল, ঢাকা

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



অ নু ধা ব ন মূ ল ক  প্র শ্ন

কবিতা

কপোতাক্ষ নদ

মাইকেল মধুসূদন দত্ত

১।   ‘স্নেহের তৃষ্ণা’ বলতে কী বোঝানো হয়েছে?

     উত্তর : জন্মভূমির প্রতি গভীর মমতায় মাতৃদুগ্ধরূপী কপোতাক্ষ নদের জলে তৃষ্ণা নিবারণের আকাঙ্ক্ষাকে স্নেহের তৃষ্ণা বলা হয়েছে।

     প্রবাসে থাকাকালীন কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত জন্মভূমির প্রতি গভীর স্মৃতিকাতরতা অনুভব করেছেন। শৈশবের মধুর স্মৃতি কবিকে আচ্ছন্ন করেছিল। তাই প্রবাসে বসেও তিনি কপোতাক্ষ নদের কলকল ধ্বনি শুনতে পেয়েছেন। কবি বহু দেশ ঘুরে বহু নদ-নদী দেখেছেন, কিন্তু কারো জলেই যেন তাঁর তৃষ্ণা নিবারণ হয় না। তিনি কপোতাক্ষের জলেই শুধু স্নেহের তৃষ্ণা মেটাতে চান।

২।   ‘দুগ্ধ স্রোতোরূপী তুমি জন্মভূমি স্তনে’—কথাটির অর্থ ব্যাখ্যা করো।    

     উত্তর : উপমায় মায়ের স্তনের অমূল্য দুগ্ধের সঙ্গে স্বদেশ ও শৈশব-কৈশোরের স্মৃতিবিজড়িত কপোতাক্ষ নদের প্রতি গভীর মমত্ববোধের তুলনা করা হয়েছে আলোচ্য চরণে।

     প্রবাসে বসবাস করলেও স্বদেশকে গভীরভাবে ভালোবাসেন ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতার কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত। বিশেষভাবে তাঁকে আলোড়িত করে তাঁর শৈশব-কৈশোরের স্মৃতিঘেরা কপোতাক্ষ নদ। এই নদীর সঙ্গে কবির যেন নাড়ির সম্পর্ক বিদ্যমান। কবিতায় জন্মভূমিকে তিনি মা হিসেবে কল্পনা করেছেন। আর কপোতাক্ষ নদকে কল্পনা করেছেন সেই মায়ের স্তনের অমূল্য দুগ্ধ হিসেবে। এর মাধ্যমে কপোতাক্ষ নদের প্রতি কবির অত্যন্ত গভীর অনুরাগের প্রমাণ পাওয়া যায়।

৩।   ‘আর কি হে হবে দেখা?’ কবির এই আক্ষেপের কারণ কী?   

     উত্তর : দূর পরবাসে থাকার কারণে কবির মনে শঙ্কা জেগেছে তাঁর প্রিয় নদের সান্নিধ্য লাভ নিয়ে।

     কবি সুদূর ফ্রান্সে বসে কপোতাক্ষ নদকে স্মরণ করে আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন। তিনি দূরে বসেও কপোতাক্ষ নদের কুলকুল ধ্বনি শুনতে পান। তিনি আবার তাঁর ছোটবেলার স্মৃতিবিজড়িত কপোতাক্ষ নদের সাক্ষাৎ পেতে চান। কিন্তু দূরে থাকায় তাঁর সংশয় হয় আর কখনো কপোতাক্ষ নদের কাছে ফিরে যেতে পারবেন কি না তা নিয়ে। তাই কবি প্রশ্নোক্ত আশঙ্কা করেছেন।

 

৪।   ‘ভ্রান্তির ছলনে’ বলতে কী বোঝানো হয়েছে?   

     উত্তর : ‘ভ্রান্তির ছলনে’ বলতে কল্পনায় মানুষ যা ভাবে তার বাস্তব কোনো ভিত্তি নেই, তবু কপোতাক্ষ নদের স্রোতধারার কথা কল্পনা করে কবির মানসিক প্রশান্তি লাভের কথা বোঝানো হয়েছে।

     সুদূর ফ্রান্সে বসবাস করলেও মাইকেল মধুসূদন দত্ত ভুলতে পারেননি তাঁর প্রিয় কপোতাক্ষ নদের কথা। প্রতিনিয়তই তিনি নিভৃতে কল্পনা করেন সেই নদীর কলকল ধ্বনির কথা। কল্পনায় মানুষ যা ভাবে তার বেশির ভাগই বাস্তব কোনো ভিত্তি নেই। একইভাবে কবির কল্পনাও আশাবাদে ঘেরা মিথ্যা এক মায়া মাত্র। কবি এ বিষয়টি জানেন। তবু মনকে শান্ত করার জন্য বারবার কপোতাক্ষ নদের কথা ভাবেন তিনি।

 

৫।   কবি সর্বদা কপোতাক্ষ নদের কথা মনে করেন কেন?  

     উত্তর : কপোতাক্ষ নদের প্রতি গভীর ভালোবাসা থাকায় কবি সর্বদা এই নদের কথা মনে করেন।

     ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতার কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্ম কপোতাক্ষ নদের তীরে সাগরদাঁড়ি গ্রামে। শৈশবে মধুসূদন এই নদের তীরে প্রাকৃতিক পরিবেশে বড় হয়েছেন। তাই নদটি যেন তাঁর আত্মার সঙ্গে মিশে গেছে। সুদূর ফ্রান্সে অবস্থান করেও তিনি যেন এই নদের কলকল শব্দ শুনতে পান। জন্মভূমির এই নদ যেন কবিকে মায়ের স্নেহভারে বেঁধেছে। তাই তিনি কপোতাক্ষ নদের কথা ভুলতে পারেন না।

৬।   ‘কিন্তু এ স্নেহের তৃষ্ণা মিটে কার জলে?’ কথাটি বুঝিয়ে লেখো। 

     উত্তর : কপোতাক্ষ নদের সান্নিধ্যে থেকে কবি যে স্নেহ-মমতার স্বাদ পেয়েছেন তা অনন্য—এ কথাটিই উঠে এসেছে আলোচ্য উক্তিটিতে।

     কপোতাক্ষ নদের পারে মধুসূদন দত্তের আনন্দমুখর শৈশব-কৈশোর কেটেছে। নদের প্রাকৃতিক পরিবেশ কবিকে যেন মায়ের মমতায় বেঁধেছে। প্রবাসে গিয়ে কবি অনেক নদ-নদীর সান্নিধ্যে আসার সুযোগ পেয়েছেন। কিন্তু তার কোনোটিকেই কপোতাক্ষ নদের মতো প্রশান্তিময় বলে মনে হয়নি তাঁর। তাই তিনি কবিতায় আলোচ্য প্রশ্নটি করেছেন।

 

৭।   কবি কপোতাক্ষ নদকে প্রজা হিসেবে জ্ঞান করেছেন কেন?

     উত্তর : কপোতাক্ষ নদ সাগরকে কর হিসেবে পানি দেয়—এই বিবেচনায় কবি কপোতাক্ষ নদকে প্রজা বিবেচনা করেছেন।

     প্রজাদের কাজ থেকে রাজা কর বা রাজস্ব আদায় করে থাকেন। ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতার কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত সাগরকে চিত্রিত করেছেন রাজা হিসেবে। সব নদীর পানি এসে একসময় সাগরে মেশে। কপোতাক্ষ নদের পানিও তেমনি প্রতিনিয়ত সাগরের সঙ্গে মিশে যায়। এই পানি যেন সে সাগরকে কর বা রাজস্ব হিসেবেই দেয়। এ কারণেই কবি কপোতাক্ষ নদকে প্রজা বলে অভিহিত করেছেন।

৮।   কবি কপোতাক্ষ নদের কাছে মিনতি করেছেন কেন?

     উত্তর : স্বদেশের জন্য কবির কাতরতাকে স্বদেশের মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে কবি কপোতাক্ষ নদের কাছে মিনতি করেছেন।

     স্বদেশকে গভীরভাবে ভালোবাসেন ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতার কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত। কবিতায় স্মৃতিকাতরতার আড়ালে লুকিয়ে আছে তাঁর স্বদেশপ্রেমের প্রবল অনুরাগ। প্রবাসে থাকলেও স্বদেশের জন্য তাঁর মন প্রতিনিয়ত কাঁদে। স্বদেশের মানুষের মনে তিনি তাঁর স্মৃতিকে অক্ষয় করে রাখতে চান। এ কারণেই কপোতাক্ষ নদের কাছে তাঁর কাতর মিনতি—তাঁর হৃদয়ের এই ভাবোচ্ছ্বাস কপোতাক্ষ নদ যেন দেশের মানুষের কাছে ব্যক্ত করে।

৯।   ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতাটিকে একটি সার্থক সনেট বলা যায় কেন?

     উত্তর : গঠন বৈশিষ্ট্য বিবেচনায় ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতাটিকে একটি সার্থক সনেট বলা যায়।

     ‘সনেট’ হলো চৌদ্দ চরণবিশিষ্ট ও সুনির্দিষ্ট ভাবসংবলিত কবিতা। এটি অষ্টক ও ষষ্টক—এই দুই অংশে বিভক্ত। ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতার চরণসংখ্যা চৌদ্দ। কবিতাটি অষ্টক ও ষষ্টক অংশে বিভাজিত। সনেটের বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী অষ্টকে ভাবের প্রবর্তনা এবং ষষ্টকে ভাবের পরিণতি থাকে। ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতায় এই বৈশিষ্ট্য লক্ষণীয়। চরণগুলোতে সনেটের বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী বিশেষ মিলবিন্যাসও বিদ্যমান। কবিতাটির ভাবও সুসংহত। এসব বৈশিষ্ট্য বিবেচনায় ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতাটিকে একটি সার্থক সনেট বলা চলে।



সাতদিনের সেরা