kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

গুগল প্লাস

[সপ্তম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বইয়ের প্রথম অধ্যায়ে গুগল প্লাসের উল্লেখ আছে]

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গুগল প্লাস

গুগল প্লাস হচ্ছে গুগল ইনকরপোরেশনের একটি সোশাল নেটওয়ার্কিং বা সামাজিক যোগাযোগ ওয়েব সেবা। এই সেবা ২৮ জুন ২০১১-তে পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়। সেবাটি প্রতিষ্ঠা করেন ভিক গুন্ডোত্রা ও ব্র্যাডলি জোসেফ হোরোভিত্জ যৌথভাবে। এর মাধ্যমে গুগলের অন্যান্য সেবা ব্যবহার করা যায়। ধারণা করা হয়, ফেসবুক ও টুইটারের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য ১০ বছর আগে গুগল এই সেবা চালু করে।

গুগল প্লাস চালুর কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই কয়েক লাখ ব্যবহারকারী এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাইনআপ করে। কিন্তু সাইনআপ করা অল্পসংখ্যক মানুষই এটি ব্যবহার করত। ফলে ২০১৫ সালে গুগল প্লাসের ডিজাইন নতুন করে সাজানো হয়, তবু এই সেবা গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে পারেনি। তাই ২০১৮ সাল থেকে গুগল প্লাস বন্ধ করার প্রক্রিয়া শুরু করে গুগল। কারণ হিসেবে ব্যবহারকারীদের কম ব্যবহার ও কম আগ্রহকে দায়ী করে গুগল। একই সঙ্গে নিরাপত্তাজনিত ত্রুটির কথাও বলা হয়।

এরপর ২০১৯ সালের এপ্রিল মাস থেকে সাধারণ গ্রাহকদের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করা শুরু করে সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটি। এভাবে ধীরে ধীরে গুগল প্লাসের সব রকম সুবিধা বন্ধ করে দেয় তারা। তবে গুগল প্লাসের অ্যানড্রয়েড ও আইওস অ্যাপকে গুগল কারেন্ট নামে রি-ব্র্যান্ডেড করা হয়। এটি গুগলের নতুন সামাজিক মাধ্যম। কিন্তু এই সেবা শুধুই এন্টারপ্রাইজ গ্রাহকদের জন্য উন্মুক্ত থাকে। অর্থাৎ কেউ চাইলেই গুগল কারেন্টে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন না। গুগল কারেন্টের গ্রাহকরা নিউজফিডের মতো আয়োজনে নিজেদের মধ্যকার আলোচনা দেখতে পারেন। গুগল একটিকে বলছে ‘হোম স্ট্রিম’। জি স্যুটের অ্যাডমিন চাইলে যেকোনো ডিসকাশন এডিটও করতে পারেন।

গুগল কারেন্ট নামে অবশ্য এটিই প্রথম অ্যাপ নয়। এখন যা গুগল নিউজ, আগে এটির নাম ছিল গুগল কারেন্ট। তখন এটিতে নিউজ পড়া যেত। এরপর গুগল নিউজের মাধ্যমে গুগল কারেন্টকে রিপ্লেস করে গুগল। তারপর গুগল প্লাস হয়ে যায় গুগল কারেন্ট। গুগল প্লাস বন্ধের সময় এর ব্যবহারকারী সংখ্যা ছিল ২০ কোটি।

ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল



সাতদিনের সেরা