kalerkantho

শনিবার । ৩১ আশ্বিন ১৪২৮। ১৬ অক্টোবর ২০২১। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

পঞ্চম শ্রেণিপঞ্চম শ্রেণি : বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়

সোনিয়া আক্তার, সহকারী শিক্ষক, ধামদ, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মুন্সীগঞ্জ সদর, মুন্সীগঞ্জ

১৭ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



পঞ্চম শ্রেণিপঞ্চম শ্রেণি : বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়

গারো

সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন

একাদশ অধ্যায়

বাংলাদেশের

ক্ষুুদ্র নৃগোষ্ঠী

১।         গারো জনগোষ্ঠী কত বছর আগে কোথা থেকে বাংলাদেশে এসেছে?

            উত্তর : গারো জনগোষ্ঠী প্রায় সাড়ে চার হাজার বছর আগে তিব্বত থেকে বাংলাদেশে এসেছে।

২।         গারোদের নিজস্ব ভাষার নাম কী?

            উত্তর : গারোদের নিজস্ব ভাষার নাম আচিক বা গারো ভাষা।

৩।         গারোদের আদি ধর্মের নাম কী?

            উত্তর : গারোদের আদি ধর্মের নাম সাংসারেক।

৪।         বর্তমানে গারোরা কোন ধর্মের অনুসারী হচ্ছে?

            উত্তর : বর্তমানে গারোরা খ্রিস্টধর্মের অনুসারী হচ্ছে।

৫।         গারোদের সমাজব্যবস্থা কেমন?

            উত্তর : গারোদের সমাজব্যবস্থা মাতৃতান্ত্রিক।

৬।         গারোদের পরিবারের প্রধান কে?

            উত্তর : গারোদের পরিবারের প্রধান মাতা।

৭।         গারোদের প্রধান খাবার কী?

            উত্তর : গারোদের প্রধান খাবার ভাত, মাছ, মাংস ও বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি।

৮।         গারোদের ঐতিহ্যবাহী খাবার কী দিয়ে তৈরি করা হয়?

            উত্তর : গারোদের ঐতিহ্যবাহী খাবার বাঁশের কোঁড়ল দিয়ে তৈরি করা হয়।

৯।         নকমান্দি কী?

            উত্তর : পূর্বে গারো জনগোষ্ঠীর লোকেরা নদীর তীরে লম্বা এক ধরনের বাড়ি তৈরি করতেন, যা নকমান্দি নামে পরিচিত।

১০।       গারো নারীদের ঐতিহ্যবাহী পোশাকের নাম কী?

            উত্তর : গারো নারীদের ঐতিহ্যবাহী পোশাকের নাম দকবান্দা ও দকসারি।

১১।       গারো পুরুষরা কী পোশাক পরিধান করে?

            উত্তর : গারো পুরুষরা শার্ট, লুঙ্গি, ধুতি ইত্যাদি পরিধান করে।

১২। গারোদের ঐতিহ্যবাহী উৎসবের নাম কী?

            উত্তর : গারোদের ঐতিহ্যবাহী উৎসবের নাম ওয়ানগালা।

১৩।       গারোদের সূর্য দেবতার নাম কী?

            উত্তর : গারোদের সূর্য দেবতার নাম সালজং।

১৪। গারোদের ‘ওয়ানগালা’ উৎসবটি কখন হয়ে থাকে?

            উত্তর : সাধারণত নতুন শস্য ওঠার সময় অক্টোবর বা নভেম্বর মাসে ‘ওয়ানগালা’ উৎসবটি হয়ে থাকে।

১৫। গারোরা ‘ওয়ানগালা’ উৎসবটি কিভাবে পালন করে থাকে?

            উত্তর : উৎসবের শুরুতে গারোরা উৎপাদিত শস্য অর্ঘ্য হিসেবে নিবেদন করে এবং বিভিন্ন ধরনের বাদ্য বাজনা বাজিয়ে এই উৎসব পালন করে।

১৬।       কত সালে গারো জনগোষ্ঠী ইংরেজদের সঙ্গে যুদ্ধে পরাজিত হয়েছিল?

            উত্তর : ১৮৭২ সালে গারো জনগোষ্ঠী ইংরেজদের সঙ্গে যুদ্ধে পরাজিত হয়েছিল।

১৭।       আঠারো শতকের দুজন গারো বীর যোদ্ধার নাম কী?

            উত্তর : আঠারো শতকের দুজন গারো বীর যোদ্ধা হলেন—

            টগান নেংমিনজা ও সোনারাম সাংমা।

১৮। খাসি জনগোষ্ঠী বাংলাদেশের কোন অঞ্চলে বাস করে?

            উত্তর : খাসি জনগোষ্ঠী বাংলাদেশের সিলেট বিভাগের বিভিন্ন এলাকায় বাস করে।

১৯।       খাসিদের ভাষার নাম কী?

            উত্তর : খাসিদের ভাষার নাম মনখেমে।

২০।       খাসিদের সমাজব্যবস্থা কেমন?

            উত্তর : খাসিদের সমাজব্যবস্থা মাতৃতান্ত্রিক।

২১। খাসিদের সমাজব্যবস্থায় পারিবারিক সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হয় কে?

            উত্তর : খাসিদের সমাজব্যবস্থায় পারিবারিক সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হয় পরিবারের সবচেয়ে ছোট মেয়ে।

২২। খাসি জনগোষ্ঠী কিভাবে জীবিকা নির্বাহ করে?

            উত্তর : খাসি জনগোষ্ঠী কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে।

২৩। খাসিদের প্রধান খাবার কী?

            উত্তর : খাসিদের প্রধান খাবার ভাত, মাংস, শুঁটকি মাছ, মধু ইত্যাদি।

২৪।       খাসিরা কোন খাবারকে পবিত্র মনে করে?

            উত্তর : খাসিরা পান-সুপারিকে পবিত্র মনে করে।

২৫। খাসি মেয়েদের পোশাকের নাম কী?

            উত্তর : খাসি মেয়েরা কামিজ পিন নামক ব্লাউজ ও লুঙ্গি পরে।

২৬। খাসি ছেলেদের পোশাকের নাম কী?

            উত্তর : খাসি ছেলেরা পকেট ছাড়া শার্ট ও লুঙ্গি পরে, যার নাম ফুংগ মারুং।

২৭। খাসিদের প্রধান দেবতার নাম কী?

            উত্তর : খাসিদের প্রধান দেবতার নাম উব্লাই নাংথউ, যাকে তাঁরা পৃথিবীর সৃষ্টিকর্তা মনে করে।

২৮। খাসিরা কী কী উৎসব পালন করে?

            উত্তর : খাসিরা সব ধরনের অনুষ্ঠান পালন করে। যেমন—পূজা-পার্বণ, বিয়ে, খরা, অতিবৃষ্টি, ফসলহানি ইত্যাদি।

২৯। ম্রো জনগোষ্ঠী বাংলাদেশের কোথায় বসবাস করে?

            উত্তর : ম্রো জনগোষ্ঠী মিয়ানমার সীমান্তের কাছে বান্দরবান জেলার বিভিন্ন উপজেলায় বসবাস করে।

৩০। ম্রোদের নিজস্ব ভাষার নাম কী?

            উত্তর : ম্রোদের নিজস্ব ভাষার নাম ‘ম্রো ভাষা’।

৩১। ইউনেসকো কোন ভাষাকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করেছে?

            উত্তর : ইউনেসকো ‘ম্রো’ ভাষাকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করেছে।



সাতদিনের সেরা