kalerkantho

রবিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৮। ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৮ সফর ১৪৪৩

অ্যাজমা

[সপ্তম শ্রেণির বিজ্ঞান বইয়ের চতুর্থ অধ্যায়ে অ্যাজমার উল্লেখ আছে]

৫ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অ্যাজমা

অ্যাজমা হচ্ছে ক্রনিক ও জীবনসংশয়ী মারাত্মক একটি ফুসফুসের রোগ, যা আমাদের দেশে হাঁপানি রোগ হিসেবে পরিচিত। চিকিৎসাবিজ্ঞানের ইতিহাসে ঊনবিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে এই রোগ সম্পর্কে প্রথম ধারণা পাওয়া যায়। অ্যাজমা শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ Asthma থেকে, যার অর্থ হাঁপানো বা হাঁ করে শ্বাস নেওয়া। হাঁপানি বলতে আমরা বুঝি শ্বাসপথে বায়ু চলাচলে বাধা সৃষ্টির জন্য শ্বাসকষ্ট।

অ্যাজমা রোগে সাধারণত কাশির সঙ্গে বুকে গড়গড় শব্দ ও শ্বাসকষ্ট অনুভূত হয়ে থাকে। পাক-ভারত উপমহাদেশে এটি অতি প্রাচীন রোগ। ২০১৯ সালে পৃথিবীজুড়ে ২৬.২ কোটি লোক অ্যাজমায় আক্রান্ত ছিল। এর মধ্যে মৃত্যু হয় চার লাখ ৬১ হাজার। বাংলাদেশে রাজধানী ঢাকায় জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউটের তথ্য মতে, প্রতিষ্ঠানটির হাসপাতালে যত রোগী চিকিৎসা নিতে আসে তার ৩০ শতাংশ অ্যাজমায় আক্তান্ত এবং প্রতিবছর সংখ্যাটি বাড়ছে। ‘বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশন’ প্রতি ১০ বছর অন্তর শ্বাসতন্ত্রের অসুখ সম্পর্কিত জরিপ পরিচালনা করে থাকে। তাতে দেখা গেছে, ১৯৯৯ সালে দেশে ৭০ লাখ অ্যাজমা রোগী ছিল। তার ১০ বছর পর রোগীর সংখ্যা আরো ২০ লাখ বেড়েছে। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে ২০২০ সালের জরিপটি পরিচালনা করা সম্ভব হয়নি; কিন্তু শহরাঞ্চলে অ্যাজমা রোগী অনেক বেশি দেখা যাচ্ছে বলে বিশেষজ্ঞরা বলছেন।

অ্যাজমা রোগের লক্ষণ হচ্ছে—শ্বাসকষ্ট, সঙ্গে শুকনো কাশি; শ্বাস-প্রশ্বাসের সময় বাঁশির মতো সাঁ সাঁ শব্দ; হঠাৎ দম বন্ধ ভাব অনুভব করা; ধুলাবালি বিশেষভাবে ঘরের ধুলা, ঠাণ্ডা কিংবা গরমের কারণে শুকনো কাশি, শ্বাসকষ্ট; ঋতু পরিবর্তনের সময় শ্বাসকষ্ট প্রভৃতি।

অ্যাজমা পরিপূর্ণ নিরাময় সম্ভব নয়; কিন্তু নির্দিষ্ট ওষুধ ও চিকিৎসার মাধ্যমে অ্যাজমা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। যেসব কারণে অ্যাজমা বেড়ে যায়, সেসব বিষয় এড়িয়ে যেতে হবে। অ্যাজমা উপশমের প্রথম ওষুধ হলো ইনহেলার। এটা দুই রকমের হয়—স্বল্পমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি। শ্বাসকষ্টের তাৎক্ষণিক উপশমের জন্য কয়েক রকম ওষুধ ইনহেলারের মাধ্যমে ব্যবহার করা হয়। যেমন—সালবিউটামল, সালমেটেরোল ও ফোরমোটেরোল। এ ছাড়া বাজারে অ্যাজমা রোগ প্রতিরোধের বিভিন্ন ধরনের খাওয়ার ওষুধ পাওয়া যায়। বিশ্বজুড়ে অ্যাজমা সম্পর্কে সচেতনতা গড়ে তুলতে ‘গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ ফর অ্যাজমা’র উদ্যোগে প্রতিবছর মে মাসের প্রথম মঙ্গলবার বিশ্ব অ্যাজমা দিবস পালন করা হয়।      

 ►  ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল



সাতদিনের সেরা