kalerkantho

শুক্রবার । ৮ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৩ জুলাই ২০২১। ১২ জিলহজ ১৪৪২

পঞ্চম শ্রেণি-প্রাথমিক বিজ্ঞান

সোনিয়া আক্তার, সহকারী শিক্ষক, ধামদ, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মুন্সীগঞ্জ সদর, মুন্সীগঞ্জ

২০ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পঞ্চম শ্রেণি-প্রাথমিক বিজ্ঞান

সংক্ষিপ্ত প্র শ্ন

তৃতীয় অধ্যায়

জীবনের জন্য পানি

[পূর্ব প্রকাশের পর]

১৯। পানি জীবাণুমুক্ত করার ভালো উপায় কোনটি?

            উত্তর : পানি জীবাণুমুক্ত করার ভালো উপায় হলো— ২০ মিনিটের বেশি সময় ধরে পানি ফুটাতে হবে।

২০।      পানিদূষণ প্রতিরোধের দুটি উপায় লেখো।

            উত্তর : পানিদূষণ প্রতিরোধের দুটি উপায় হলো—

            ক) কৃষিতে কীটনাশক এবং রাসায়নিক সারের ব্যবহার কমিয়ে।

            খ) পুকুর, নদী, হ্রদ কিংবা সাগরে ময়লা-আবর্জনা না ফেলে।

২১।  কী কী উপায়ে পানি জীবাণুমুক্ত করা যায়?

            উত্তর : ছাঁকন, থিতানো, ফুটানো ও রাসায়নিক প্রক্রিয়ায় পানি জীবাণুমুক্ত করা যায়।

 

চতুর্থ অধ্যায়

বায়ু

১।        উদ্ভিদ কিভাবে খাদ্য তৈরি করে?

            উত্তর : উদ্ভিদ সূর্যের আলো ও বায়ুর কার্বন ডাই-অক্সাইডের সাহায্যে খাদ্য তৈরি করে।

 

২।        মানুষের শ্বাস গ্রহণের জন্য কী প্রয়োজন?

            উত্তর : মানুষের শ্বাস গ্রহণের জন্য বায়ুর অক্সিজেন প্রয়োজন।

৩।        দৈনন্দিন জীবনে বায়ুর দুটি ব্যবহার লেখো।

            উত্তর : দৈনন্দিন জীবনে বায়ুর দুটি ব্যবহার নিম্নরূপ—

            ক) বায়ুপ্রবাহ ব্যবহার করে নদীতে পালতোলা নৌকা চলে।

            খ) বায়ুপ্রবাহের সাহায্যে বড় চরকা বা টারবাইন ঘুরিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়।

৪।        ইউরিয়া সার তৈরিতে বায়ুর কোন উপাদানটি ব্যবহার করা হয়?

            উত্তর : ইউরিয়া সার তৈরিতে বায়ুর নাইট্রোজেন ব্যবহার করা হয়।

৫।        মাছ, মাংস, চিপস ইত্যাদি সংরক্ষণে বায়ুর কোন উপাদানটি ব্যবহার করা হয়?

            উত্তর : মাছ, মাংস, চিপস ইত্যাদি সংরক্ষণে বায়ুর নাইট্রোজেন ব্যবহার করা হয়।

৬।        বিভিন্ন কোমল পানীয়তে ঝাঁজালো ভাব ধরে রাখার জন্য কী ব্যবহার করা হয়?

            উত্তর : বিভিন্ন কোমল পানীয়তে ঝাঁজালো ভাব ধরে রাখার জন্য কার্বন ডাই-অক্সাইড ব্যবহার করা হয়।

৭।        আগুন নেভানোর জন্য অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রে কী ব্যবহার করা হয়?

            উত্তর : আগুন নেভানোর জন্য অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রে কার্বন ডাই-অক্সাইড ব্যবহার করা হয়।

৮।        বায়ু কিভাবে দূষিত হয়?

            উত্তর : বিভিন্ন ধরনের পদার্থ যেমন—রাসায়নিক পদার্থ, গ্যাস, ধূলিকণা, ধোঁয়া অথবা দুর্গন্ধ বায়ুতে মিশে বায়ু দূষিত হয়।

৯।        বায়ুদূষণের দুটি কারণ লেখো।

            উত্তর : বায়ুদূষণের দুটি কারণ হলো—

            ক) জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানোর ফলে বায়ু দূষিত হয়।

            খ) কলকারখানা ও যানবাহনের কালো ধোঁয়া থেকে বায়ু দূষিত হয়।

১০।      বায়ুদূষণের ফলে মানুষ কী কী রোগে আক্রান্ত হচ্ছে?

            উত্তর : বায়ুদূষণের ফলে মানুষ ফুসফুসের ক্যান্সার, শ্বাসজনিত রোগ, হৃদরোগসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

১১।      পৃথিবীর উষ্ণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে কেন?

            উত্তর : জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানোর ফলে বাতাসে কার্বন ডাই-অক্সাইড ও অন্যান্য ক্ষতিকর গ্যাস বায়ুতে বেড়ে যাওয়ায় পৃথিবীর উষ্ণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

১২।      কিভাবে এসিড বৃষ্টি তৈরি হয়?

            উত্তর : কলকারখানার ধোঁয়া থেকে সৃষ্ট বিভিন্ন ধরনের গ্যাস মেঘের সঙ্গে মিশে যাওয়ার ফলে এসিড বৃষ্টি তৈরি হয়।

১৩।      বায়ুদূষণ প্রতিরোধের দুটি উপায় লেখো।

            উত্তর : বায়ুদূষণ প্রতিরোধের দুটি উপায় হলো—

            ক) প্রাকৃতিক সম্পদের ব্যবহার কমিয়ে বায়ুদূষণ প্রতিরোধ করা যায়।

            খ) বেশি বেশি গাছ লাগানোর মাধ্যমে বায়ুদূষণ প্রতিরোধ করা যায়।



সাতদিনের সেরা