kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩ আগস্ট ২০২১। ২৩ জিলহজ ১৪৪২

বালি

[পঞ্চম শ্রেণির প্রাথমিক বিজ্ঞান বইয়ের একাদশ অধ্যায়ে বালির উল্লেখ আছে]

১৯ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বালি

বালি, বালু বা স্যান্ড হচ্ছে কংক্রিটের একটি উপাদান। এ ছাড়া প্লাস্ট ও ইটের গাঁথুনির কাজেও বালির প্রয়োজন হয়। এটি একটি দানাদার উপাদান, যা সূক্ষ্মভাবে বিভক্ত শিলা ও খনিজ কণার সমন্বয়ে গঠিত। এর দানা নুড়ির চেয়ে ছোট, তবে পলির চেয়ে মোটা। মাটিকে সাধারণত এর কণার আকারের প্রাধান্যের ওপর ভিত্তি করে নুড়ি, বালি, পলি বা কাদা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্যের কেমব্রিজে অবস্থিত ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির দেওয়া সংজ্ঞা অনুসারে, ০.০৬ মিমি থেকে ২ মিমি আকারের কণাগুলোকে বালি বলা হয়ে থাকে এবং ২ মিমির চেয়ে বড় কণাগুলোকে নুড়ি বলা হয়।

বালির গঠন স্থানীয় নুড়ি পাথরের উৎস ও বিভিন্ন অবস্থার ওপর নির্ভর করে বিভিন্ন রকম হয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে বালির সবচেয়ে সাধারণ উপাদান হলো সিলিকা (সিলিকন ডাই-অক্সাইড)। সিলিকা সাধারণত বালিতে কোয়ার্টজ আকারে থাকে। বালির দ্বিতীয় সাধারণ উপাদান হলো ক্যালসিয়াম কার্বোনেট।

বালি হচ্ছে সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপাদান। পৃথিবীজুড়ে কংক্রিট তৈরির জন্য উপযুক্ত বালির উচ্চ চাহিদা রয়েছে। প্রতিবছর ৫০ বিলিয়ন টন সৈকত বালি ও জীবাশ্ম বালি নির্মাণকাজে ব্যবহারের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে। নির্মাণকাজে বালির মূল কাজ হচ্ছে পাথর বা খোয়া ও সিমেন্টের মধ্যে শক্ত বন্ডিং করার সময় ফাঁকা স্থান পূরণ করা। মূলত কংক্রিটের গ্যাপ বা ফিলআপ করাই এর কাজ।

বাজারে সাধারণত চার ধরনের বালি আমরা বিল্ডিং কনস্ট্রাকশনে ব্যবহার করে থাকি। যেমন—ভিটি বালি (ফিলিংয়ের জন্য), লোকাল বালি (কংক্রিট ঢালাইয়ের জন্য), সিলেট বালি বা লাল বালি (কংক্রিট ঢালাইয়ের জন্য) ও চিকন বালি বা প্লাস্টারের বালি (দেয়ালে প্লাস্টারের জন্য)। বালি কংক্রিটে কী পরিমাণে ব্যবহৃত হবে, সেটা নির্ভর করে কী ধরনের বালি ব্যবহৃত হচ্ছে তার ওপর।

ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল



সাতদিনের সেরা