kalerkantho

বুধবার । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৯ মে ২০২১। ৬ শাওয়াল ১৪৪

অ নু ধা ব ন মূ ল ক প্র শ্ন

অষ্টম শ্রেণি : বাংলা

আতাউর রহমান সায়েম , সহকারী শিক্ষক আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মতিঝিল, ঢাকা

২১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গদ্য

আমাদের লোকশিল্প

কামরুল হাসান

১।   গ্রামীণ কোন শিল্পটিকে জীবনগাথা বলা হয়?—ব্যাখ্যা করো।

     উত্তর : গ্রামীণ নকশিকাঁথার শিল্পকে জীবনগাথা বলা হয়।

     আমাদের লোকশিল্পের অন্যতম দৃষ্টান্ত নকশিকাঁথা। সাধারণত গ্রামবাংলার মেয়েরা এই কাঁথা সেলাই করে থাকে। বিশেষ করে বর্ষার মৌসুমে যখন সারা দিন বৃষ্টি হয় তখন মেয়েরা বসত এই কাঁথা সেলাই করতে। এক-একটি কাঁথা সেলাই করতে প্রায় ছয় মাস লেগে যেত। নকশিকাঁথা সেলাই করার সময় মেয়েরা তাদের নিজের জীবনের সুখ-দুঃখের কথা একে অন্যের সঙ্গে বিনিময় করত। আন্তরিকতার ও জীবনঘনিষ্ঠতার কারণেই বলা হয়—কাঁথার সেলাই বা সুচের ফোঁড়ের মধ্যে লুকিয়ে থাকে তাদের জীবনগাথা।

 

২।   শীতলক্ষ্যা নদীর তীরবর্তী এলাকা জামদানিশিল্পের জন্য উপযোগী হওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করো।

     উত্তর : শীতলক্ষ্যা নদীর পানির জলীয় বাষ্প জামদানি বোনার জন্য অপরিহার্য। তাই জামদানিশিল্প এই নদীর তীরে গড়ে উঠেছে।

     শতাব্দীকাল ধরে তাঁতশিল্প তথা জামদানিশিল্প শীতলক্ষ্যা নদীর তীরবর্তী এলাকায় বিস্তার লাভ করেছে। কারণ বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, এই নদীর পানির বাষ্প থেকে যে আর্দ্রতা সৃষ্টি হয় তা জামদানি বোনার জন্য অপরিহার্য। ভৌগোলিক অবস্থান, আবহাওয়া ও পরিস্থিতির জন্য শীতলক্ষ্যা নদীর তীরবর্তী এলাকায় জামদানিশিল্প গড়ে উঠেছে।

 

৩।   খাদ্যশস্যের পরই এ দেশের মানুষের কাছে কুটিরশিল্প নিবিড়ভাবে যুক্ত কেন?

     উত্তর : খাদ্যশস্যের পর এ দেশের মানুষ কুটিরশিল্পের ঐতিহ্যের জন্য নিবিড়ভাবে যুক্ত রয়েছে।

     কুটিরে বসে হাতে তৈরি নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীকেই কুটিরশিল্প বলা হয়। মাটির তৈরি কলস, হাঁড়ি, পাতিল, সানকি, ফুলদানি, বাঁশ ও বেতের তৈরি মোড়া, চালুনি, পাল্লা, খলই, শীতলপাটি, নকশিকাঁথা ইত্যাদি কুটিরশিল্পের অন্তর্গত। এই জিনিসগুলো বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের কুটিরে তৈরি হয়। এই শিল্পগুলো বাংলার মানুষের জীবনের সঙ্গে নিবিড়ভাবে যুক্ত।

 

৪।   ঢাকাই মসলিন কাপড়ের বিশেষত্ব ব্যাখ্যা করো।

     উত্তর : ঢাকাই মসলিন মিহি কাপড়ের জন্য এককালে দুনিয়াজুড়ে প্রবল আলোড়ন তুলেছিল।

     ঢাকার অদূরে ডেমরা এলাকার তাঁতিরা তৈরি করত এক আশ্চর্য ধরনের কাপড়। এই কাপড় তৎকালীন মোগল বাদশাহদের বিলাসের বস্তু ছিল। এই কাপড়ের বিশেষত্ব হলো—এটা খুব মিহি যে ছোট্ট একটি আংটির ভেতরে অনায়াসে প্রবেশ করিয়ে দেওয়া যেত কয়েক শ গজ কাপড়।



সাতদিনের সেরা