kalerkantho

রবিবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৯ নভেম্বর ২০২০। ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

অষ্টম শ্রেণি ► বিজ্ঞান

মো. মিকাইল ইসলাম নিয়ন, সহকারী শিক্ষক, ঝিনুক মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, চুয়াডাঙ্গা সদর চুয়াডাঙ্গা

১ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জ্ঞা ন মূ ল ক  প্র শ্ন

তৃতীয় অধ্যায়

ব্যাপন অভিস্রবণ ও প্রস্বেদন

[পূর্ব প্রকাশের পর]

৫।        সালোকসংশ্লেষণ কাকে বলে?

            উত্তর : সবুজ উদ্ভিদ যে প্রক্রিয়ায় সূর্যালোকের উপস্থিতিতে ক্লোরোফিলের সহায়তায় কার্বন ডাই-অক্সাইড ও পানি থেকে শর্করাজাতীয় খাদ্য প্রস্তুত করে এবং উপজাত হিসেবে অক্সিজেন উৎপন্ন করে, সেই তাকে সালোকসংশ্লেষণ বলে।

৬।       দ্রাবক কাকে বলে?

            উত্তর : দ্রব যাতে দ্রবীভূত হয় তাকে দ্রাবক বলে।

৭।        দ্রবণ কাকে বলে?

            উত্তর : দ্রব ও দ্রাবকের মিশ্রণকে দ্রবণ বলে।

৮।        অভিস্রবণ কাকে বলে?

            উত্তর : একই দ্রব ও দ্রাবক বিশিষ্ট দুটি ভিন্ন ঘনত্বের দ্রবণ একটি অর্ধভেদ্য পর্দা দ্বারা পৃথক থাকলে যে ভৌত প্রক্রিয়ায় দ্রাবক কম ঘনত্বের দ্রবণ থেকে অধিক ঘনত্বের দ্রবণের দিকে ব্যাপিত হয় তাকে অভিস্রবণ বলে।

৯।        প্রস্বেদনকে কেন Necessary evil বলা হয়?

            উত্তর : উদ্ভিদজীবনে প্রস্বেদন একটি অনিবার্য প্রক্রিয়া। এর ফলে উদ্ভিদদেহ থেকে প্রচুর পরিমাণে পানি বাষ্পাকারে বেরিয়ে যায়। এতে উদ্ভিদের মৃত্যুও হতে পারে। তাই আপাতদৃষ্টিতে উদ্ভিদের জীবনে প্রস্বেদনকে ক্ষতিকর প্রক্রিয়া বলেই মনে হয়। এ জন্য প্রস্বেদনকে উদ্ভিদের জন্য ‘Necessary evil’ বলা হয়।

১০।      ব্যাপন চাপ বলতে কী বোঝায়?

            উত্তর : ব্যাপনকারী পদার্থের অণু-পরমাণুর গতিশক্তির প্রভাবে একপ্রকার চাপের সৃষ্টি হয়। এর প্রভাবে অণুগুলো অধিক ঘনত্বযুক্ত স্থান থেকে কম ঘনত্বযুক্ত স্থানে ছড়িয়ে পড়ে। এই প্রকার চাপকে ব্যাপন চাপ বলে।

১১।      পলিথিন কোন ধরনের পর্দা? ব্যাখ্যা করো।

            উত্তর : পলিথিন অভেদ্য পর্দা। আমরা জানি, যেসব পর্দা দিয়ে দ্রাবক ও দ্রব উভয় প্রকার পদার্থের অণু চলাচল করতে পারে না তাকে অভেদ্য পর্দা বলা হয়। পলিথিন দিয়ে দ্রাবক ও দ্রব উভয় প্রকার পদার্থের অণু চলাচল করতে পারে না। তাই পলিথিন অভেদ্য পর্দা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা