kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ কার্তিক ১৪২৭। ২৭ অক্টোবর ২০২০। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

পঞ্চম শ্রেণি ► বাংলা

মো. নুরুল ইসলাম, সহকারী শিক্ষক, বিলচান্দক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাবনা

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



পঞ্চম শ্রেণি ► বাংলা

ন মু না  প্র শ্ন

(নিচের অনুচ্ছেদটি পড়ে ১ ও ২ নম্বর প্রশ্নের উত্তর লেখো)

মাটির তৈরি শিল্পকর্মকে আমরা বলি মাটির শিল্প বা মৃৎশিল্প। এ শিল্পের প্রধান উপকরণ হলো মাটি। তবে সব মাটি দিয়ে এ কাজ হয় না। দরকার পরিষ্কার এঁটেল মাটি। এ ধরনের মাটি বেশ আঠালো। দো-আঁশ মাটি তেমন আঠালো নয়। আর বেলে মাটি তো ঝরঝরে—তাই এগুলো দিয়ে মাটির শিল্প হয় না। এঁটেল মাটি হলেই যে তা দিয়ে শিল্পের কাজ করা যাবে, তা-ও নয়। এ জন্য অনেক যত্ন আর শ্রম দরকার। দরকার হাতের নৈপুণ্য ও কারিগরি জ্ঞান। কুমারদের কাছে এসব খুব সহজ। কারণ তাঁরা বংশপরম্পরায় এ কাজ করে আসছেন। আবার এ কাজের জন্য প্রয়োজন কিছু ছোটখাটো যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম। সব কিছুর আগে যেটা দরকার, তা হলো একটা কাঠের চাকা। এই চাকায় নরম মাটির তাল লাগিয়ে নেন কুমাররা। তারপর চাকাটি জোরে ঘোরান। আর হাত দিয়ে মাটির তাল ধরেন। এভাবে নানা আকারের মাটির পাত্র ও নানা জিনিস তৈরি করেন কুমাররা।

১।        নিচের যেকোনো পাঁচটি শব্দের অর্থ লেখো :         ৫

            মৃৎশিল্প, উপকরণ, বংশ, প্রয়োজন, যত্ন, নৈপুণ্য, যন্ত্রপাতি।

২।        নিচের প্রশ্নগুলোর সংক্ষেপে উত্তর দাও :    ২+৪+৪=১০

 

(ক)      মৃৎশিল্প তৈরির দুটি উপকরণের নাম লেখো।

(খ)       কুমাররা কী কী তৈরি করেন তা চারটি বাক্যে লেখো।

(গ)       কুমাররা কিভাবে মৃৎশিল্প তৈরি করেন?

 

(নিচের প্রদত্ত অনুচ্ছেদটি পড়ে ৩ ও ৪ নম্বর প্রশ্নের উত্তর দাও)

পানির অপর নাম জীবন। পানি ছাড়া জীবন বাঁচতে পারে না। কিন্তু সেই পানি নানাভাবে দূষিত হচ্ছে। জীবনের ওপর খারাপ প্রভাব সৃষ্টিকারী যেকোনো উপাদান দ্বারা পানি যদি ব্যবহার অনুপযোগী হয়, তবে তাকে পানিদূষণ বলে। বাংলাদেশের বিভিন্ন নদীর তীরে অজস্র কলকারখানা নানাভাবে গড়ে উঠেছে। শিল্পোৎপাদনে নিয়োজিত বিভিন্ন ধরনের কলকারখানার নানা রকম রাসায়নিক বর্জ্য নিয়মিত নদীতে ফেলা হচ্ছে। পানিতে বাসা-বাড়ির আবর্জনা, কল-কারখানার বর্জ্য, কৃষিকাজে ব্যবহৃত রাসায়নিক সার ইত্যাদি মিশলে পানি দূষিত হয়। দূষিত পানি পান করলে পেটের পীড়া, আমাশয়, টাইফয়েড, কলেরা, জন্ডিস ইত্যাদি রোগ হয়। পানিদূষণ আধুনিক সভ্যতার এক অভিশাপ।

৩।        নিচে কয়েকটি শব্দ ও শব্দার্থ দেওয়া হলো। উপযুক্ত শব্দটি দিয়ে নিচের বাক্যগুলোর  শূন্যস্থান পূরণ করো।               ১x৫=৫

(ক) বর্ষাকালে পদ্মা নদীতে- ইলিশ ধরা পড়ে।

(খ) পানিদূষণের অভিশাপ থেকে আমাদের- পেতে হবে।

(গ) আজ ঝড় হওয়ার- আছে।

(ঘ) কলকারখানার কালো ধোয়া বায়ু- করে।

(ঙ) নদীগর্ভে- বর্জ্য পানি দূষিত করে।

৪। নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :                                                        ৩x৫= ১৫

(ক) নদীর পানি দূষিত হচ্ছে কেন তা পাঁচটি বাক্যে লেখো।

(খ) দূষিত পানি মানুষের কী কী ক্ষতি করে পাঁচটি বাক্যে লেখো।

(গ) পানির পাঁচটি ব্যবহার লেখো।

৫।        নিচের শব্দগুলোর ক্রিয়াপদের চলতি রূপ লেখো :                     ৫

            আঁকিব, ঢালিতেছে, দিয়া, করিছেন, ভাবিলেন, নাহি, যাইব

 

নমুনা প্রশ্নের উত্তর

১। মৃৎশিল্প - মাটির তৈরি শিল্পকর্ম, মাটির শিল্প।

উপকরণ - উপাদান, সরঞ্জাম।

বংশ - গোষ্ঠী, গোত্র।

প্রয়োজন - দরকার, আবশ্যক।

যত্ন - সেবা, আদর।

নৈপুণ্য - পারদর্শী, পটু।

যন্ত্রপাতি — ছোট-বড় নানা ধরনের যন্ত্র, হাতিয়ার।

২। (ক)  মৃৎশিল্প তৈরির দুটি উপকরণের নাম হলো—

১. পরিষ্কার এঁটেল মাটি

২. কাঠের চাকা।

(খ)  কুমাররা নানা রকম জিনিস তৈরি করেন। যেমন—

১. মাটি দিয়ে তারা টেপা পুতুল তৈরি করেন।

২. বিভিন্ন রকম হাঁড়ি, পাতিল, কলসি তৈরি করেন। ৩. নানা রকম খেলনা যেমন—হাতি, ঘোড়া, মাছ, তরমুজ, বাঙি তৈরি করেন। ৪. সুন্দর সুন্দর টেরাকোটা তৈরি করেন। 

(গ) মৃৎশিল্প তৈরি করতে কুমাররা প্রথমেই পরিষ্কার এঁটেল মাটি নেন। সেই মাটি পানি দিয়ে সুন্দর করে মেখে নেওয়া হয়। তারপর একটি কাঠের চাকায় মাটির তাল লাগিয়ে নেন। এরপর চাকাটি জোরে ঘোরান। আর হাত দিয়ে মাটির তাল ধরেন। এভাবে নানা আকারের মৃৎশিল্প তৈরি করেন কুমাররা।

৩। (ক) বর্ষাকালে পদ্মা নদীতে অজস্র ইলিশ ধরা পড়ে।

(খ) পানিদূষণের অভিশাপ থেকে আমাদের মুক্তি পেতে হবে।

(গ) আজ ঝড় হওয়ার আশঙ্কা আছে।

(ঘ) কলকারখানার কালো ধোয়া বায়ু দূষিত করে।

(ঙ) নদীগর্ভে নিক্ষিপ্ত বর্জ্য পানি দূষিত করে।

৪। (ক) বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। দেশের নদীগুলো নানা কারণে দূষিত হচ্ছে। নদী দূষিত হওয়ার পাঁচটি কারণ নিচে উল্লেখ করা হলো—

১. কলকারখানার বর্জ্য নদীতে মিশে নদীর পানি দূষিত হচ্ছে।

২. লোকজন নদীতে ময়লা-আবর্জনা ফেলায় নদীর পানি দূষিত হচ্ছে।

৩. কৃষিকাজে ব্যবহৃত কীটনাশক বৃষ্টির মাধ্যমে নদীর পানিতে মিশে দূষিত হচ্ছে।

৪. গবাদি পশু নদীতে গোসল করানোর ফলেও নদীর পানি দূষিত হচ্ছে।

৫. নদীতে ফেরি, স্টিমার, লঞ্চ চলাচলের কারণেও নদীর পানি দূষিত হচ্ছে।

(খ) পানির অপর নাম জীবন। সেই পানি দূষিত হলে মানুষের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। দূষিত পানি মানুষের কী কী ক্ষতি করে তা পাঁচটি বাক্যে লেখা হলো—

১. দূষিত পানি পান করে মানুষ কলেরা বা ডায়রিয়ার মতো রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

২. দূষিত পানিতে গোসল করে মানুষ বিভিন্ন চর্মরোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

৩. জলজ প্রাণী মারা যাচ্ছে।

৪. জলজ খাদ্যশৃঙ্খলে ব্যাঘাত ঘটছে।

৫. দূষিত পানিতে পরিবেশ নষ্ট হয়ে মানুষ নানা রকম সমস্যায় ভুগছে।

(গ) পানির পাঁচটি ব্যবহার উল্লেখ করা হলো—

১. কৃষিকাজে পানি ব্যবহার করা হয়।

২. রান্নার কাজে পানি ব্যবহার করা হয়।

৩. কাপড় পরিষ্কার করতে পানি ব্যবহার করা হয়।

৪. গোসল করতেও পানি ব্যবহার করা হয়।

৫. প্রতিদিন গৃহস্থালির নানা কাজে পানি ব্যবহার করা হয়।

৫। আঁকিব - আঁকব।

ঢালিতেছে - ঢালছে।

দিয়া - দিয়ে।

করিছেন - করছেন।

ভাবিলেন - ভাবলেন।

নাহি - নাই।

যাইব - যাব।

মন্তব্য