kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

এইচএসসি প্রস্তুতি

বাংলা দ্বিতীয় পত্র

নূরে মোস্তফা বাবু, প্রভাষক, বাংলা বিভাগ, নটর ডেম কলেজ, ঢাকা

১২ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



বাংলা দ্বিতীয় পত্র

ব্যাকরণ

বাংলা বানানের নিয়ম

প্রশ্ন-১. বাংলা বানানে -কার (  ি ) ব্যবহারের পাঁচটি নিয়ম উদাহরণসহ লেখো।

উত্তর : বাংলা বানানে ই-কার ব্যবহারের পাঁচটি নিয়ম দেওয়া হলো—

ক)     যেসব তৎসম শব্দে ই, ঈ-কার উভয়ই শুদ্ধ সেসব শব্দে শুধু ই-কার হবে। যেমন—চুল্লি, তরণি, পদবি, নাড়ি, মমি, ভঙ্গি ইত্যাদি।

খ)     সব অতৎসম শব্দে শুধু ই-কার ব্যবহৃত হবে। যেমন—পাখি, শাড়ি, কাহিনি, শহিদ ইত্যাদি।

গ)     আলি প্রত্যয়যুক্ত শব্দে শুধু ই-কার হবে। যেমন—বর্ণালি, গীতালি, সোনালি, রুপালি ইত্যাদি।

ঘ)     ভাষা ও জাতিবাচক শব্দের শেষে ই-কার হবে। যেমন—বাংলাদেশি, জাপানি, ইরানি ইত্যাদি।

ঙ)     শব্দের শেষে পদাশ্রিত নির্দেশক যুক্ত হলে ই-কার বসবে। যেমন—ছেলেটি, বইটি, কলমটি ইত্যাদি।

 

প্রশ্ন-২. বাংলা একাডেমি প্রণীত আধুনিক বাংলা বানানের নিয়ম অনুসারে অতৎসম শব্দের যেকোনো পাঁচটি বানানের সূত্র উদাহরণসহ লেখো।

উত্তর :

ক)     সব অতৎসম অর্থাৎ তদ্ভব, দেশি, বিদেশি, মিশ্র শব্দে শুধু ই ও উ এবং এদের কার চিহ্ন (,ি  ু) ব্যবহৃত হবে; এমনকি স্ত্রীবাচক ও জাতিবাচক ইত্যাদি শব্দের ক্ষেত্রে এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে। যেমন—গাড়ি, বাঙালি, নিচ, লাইব্রেরি, স্টেশনারি, কাহিনি, ফেব্রুয়ারি ইত্যাদি।

খ)     ক্ষীর, ক্ষুর ও ক্ষেত শব্দ খির, খুর ও খেত না লিখে সংস্কৃত মূল অনুসরণে ক্ষীর, ক্ষুর ও ক্ষেত-ই লেখা হবে। অতৎসম শব্দে খুদ, খুদে, খুর, খিদে ইত্যাদি লেখা হবে।

গ)     অতৎসম শব্দের ক্ষেত্রে ণত্ববিধি মানা হবে না। অর্থাৎ ‘ণ’ ব্যবহার না করে ‘ন’ ব্যবহার করতে হবে। যেমন—অঘ্রান, ইরান, ঝরনা, হর্ন, মর্নিং ইত্যাদি।

ঘ)     আলি প্রত্যয়যুক্ত শব্দে শুধু ই-কার হবে। যেমন—বর্ণালি, গীতালি, সোনালি, রুপালি ইত্যাদি।

ঙ)     অতৎসম যেমন—ইংরেজি ও ইংরেজির মাধ্যমে আসা বিদেশি ‘ং’ বর্ণ বা ধ্বনির জন্য ‘স’ এবং -sh, -sion-ssion-tion প্রভৃতি বর্ণগুচ্ছ বা ধ্বনির জন্য ‘শ’ ব্যবহৃত হবে। যেমন—Station স্টেশন, Store স্টোর, Mission মিশন, Vision ভিশন।

 

প্রশ্ন-৩. বাংলা একাডেমি প্রণীত প্রমিত বাংলা বানানের নিয়মানুসারে তৎসম শব্দের বানানের পাঁচটি নিয়ম লেখো।

উত্তর : তৎসম শব্দের বানান সম্পর্কে বাংলা একাডেমি প্রণীত প্রমিত বাংলা বানানের পাঁচটি নিয়ম হলো—

ক)     তৎসম শব্দের বানান যথাসম্ভব অপরিবর্তিত থাকবে। যেমন—মুমূর্ষু, সুষ্ঠু, মুহূর্ত ইত্যাদি।

খ)     তৎসম শব্দে রেফের পর ব্যঞ্জনবর্ণের দ্বিত্ব হবে না। যেমন—অর্জুন, কর্ম, অর্চনা, কার্য ইত্যাদি।

গ)     তৎসম শব্দের বানানে শব্দের শেষে বিসর্গ থাকবে না। যেমন—প্রথমত, কার্যত, প্রধানত ইত্যাদি।

ঘ)     যেসব তৎসম শব্দে ই, ঈ বা উ, ঊ উভয়ই শুদ্ধ সেসব শব্দে শুধু ই বা উ এবং তার কার চিহ্ন        (,ি  ু) হবে। যেমন—কিংবদন্তি, ধরণি, পদবি, সূচিপত্র ইত্যাদি।

ঙ)     সন্ধির ক্ষেত্রে ক, খ, গ, ঘ পরে থাকলে পূর্বপদের অন্তঃস্থিত ম্-এর স্থানে অনুস্বার (ং) হবে। যেমন—অহম্ + কার = অহংকার, সম্ + গীত = সংগীত ইত্যাদি।

 

প্রশ্ন-৪. ণ-ত্ব বিধান কাকে বলে? ণ-ত্ব বিধানের পাঁচটি নিয়ম লেখো।

উত্তর : যে রীতি অনুসারে বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত তৎসম বা সংস্কৃত শব্দের বানানে মূর্ধন্য ণ হয় তাকে ণত্ব বিধান বলে। অর্থাৎ তৎসম শব্দের বানানে ণ ব্যবহারের নিয়মই ণত্ব বিধান।

 

ক)     তৎসম শব্দের বানানে ঋ, র, ষ-এর পরে ‘ণ’ ব্যবহৃত হয়। যেমন—ঋণ, তৃণ, চরণ, মরণ, বর্ণ, স্বর্ণ, বর্ষণ, বিশ্লেষণ ইত্যাদি।

খ) যু্ক্ত ব্যঞ্জনবর্ণের ক্ষেত্রে ট-বর্গীয় বর্ণের আগে ‘ণ’ বসে। যেমন—বণ্টন, লুণ্ঠন, কণ্ঠ, খণ্ড, মণ্ড ইত্যাদি।

গ)     নার, পর, পার, রাম, রবীন্দ্র, চন্দ্র, উত্তর ইত্যাদি শব্দের পর ‘অয়ন’ বা ‘আয়ন’ থাকলে তার পরের ‘ন’ ধ্বনিটি ‘ণ’ হয়। যেমন—নারায়ণ, পরায়ণ, রামায়ণ, রবীন্দ্রায়ণ, চন্দ্রায়ণ, উত্তরায়ণ ইত্যাদি।

ঘ)     ত-বর্ণের সঙ্গে যুক্ত বর্ণে মূধর্ন্য-ণ হয় না। যেমন— বৃন্ত, গ্রন্থ, বৃন্দ ইত্যাদি।

ঙ)     সমাসবদ্ধ শব্দে ণ-ত্ব বিধান প্রযোজ্য নয়। যেমন—ত্রিনয়ন, সর্বনাম, দুর্নাম।

 

প্রশ্ন-৫. বিদেশি শব্দের বানানের পাঁচটি নিয়ম দৃষ্টান্তসহ আলোচনা করো।

উত্তর : প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম অনুসারে বিদেশি শব্দের বানানের পাঁচটি নিয়ম নিচে দেওয়া হলো :

 

ক)     বিদেশি শব্দের বানানে ই-কার হবে। যেমন—বেআইনি, শহিদ, কাহিনি, লাইব্রেরি, নবি ইত্যাদি।

খ)     বিদেশি শব্দের বানানে ‘ষ’ ব্যবহৃত হবে না। যেমন—ফটোস্ট্যাট, স্টেশন, স্টোর ইত্যাদি।

গ)     বিদেশি শব্দের বানানে ‘ণ’ ব্যবহৃত না হয়ে ‘ন’ ব্যবহৃত হবে। যেমন—গ্রিন, হর্ন, মর্নিং ইত্যাদি।

ঘ)     বিদেশি শব্দের বানানে ‘ঋ-কার’ ব্যবহার হবে না। যেমন—ব্রিটিশ, ব্রিজ ইত্যাদি।

ঙ)     বিদেশি শব্দে ‘ঊ’ (  ূ ) হবে না। যেমন—গ্লুকোজ, রসুল, নুর ইত্যাদি।

 

প্রশ্ন-৬. ষ-ত্ব বিধান কাকে বলে? ষ-ত্ব বিধানের ৫টি নিয়ম লেখো।

উত্তর : যে রীতি অনুসারে বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত তৎসম বা সংস্কৃত শব্দের বানানে মূর্ধন্য ‘ষ’ হয় তাকে ষ-ত্ব বিধান বলে। অর্থাৎ তৎসম শব্দের বানানে ষ ব্যবহারের নিয়মই ষ-ত্ব বিধান।

 

ক)     ট ও ঠ-এর সঙ্গে যুক্তবর্ণে ‘ষ’ হয়। যেমন—কষ্ট, নষ্ট, ওষ্ঠ, ষষ্ঠ ইত্যাদি।

খ)     ঋ ও রেফ এর পরে ‘ষ’ হয়। যেমন—ঋষভ, ঋষি, কৃষি, বর্ষা, বর্ষণ ইত্যাদি

গ)     ই-কারান্ত ও উ-কারান্ত উপসর্গের পরে কিছু কিছু ধাতুর দন্ত-স মূর্ধন্য ‘ষ’ হয়। যেমন : প্রতি + স্থান = প্রতিষ্ঠান, অনু + স্থান = অনুষ্ঠান, অধি + স্থান = অধিষ্ঠান ইত্যাদি।

ঘ)     কিছু কিছু শব্দে স্বভাবতই মূর্ধন্য ‘ষ’ হয়। যেমন—আষাঢ়, পাষাণ, দ্বেষ, মানুষ ইত্যাদি।

ঙ)     বিদেশি শব্দের বানানে ‘ষ’ ব্যবহৃত হবে না। যেমন—ফটোস্ট্যাট, স্টেশন, স্টোর ইত্যাদি।

মন্তব্য