kalerkantho

বুধবার । ৩১ আষাঢ় ১৪২৭। ১৫ জুলাই ২০২০। ২৩ জিলকদ ১৪৪১

বিজ্ঞান চর্চা । কোষ

মো. মিকাইল ইসলাম নিয়ন, সহকারী শিক্ষক, ঝিনুক মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, চুয়াডাঙ্গা সদর, চুয়াডাঙ্গা

৪ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিজ্ঞান চর্চা । কোষ

[ষষ্ঠ শ্রেণির বিজ্ঞান বইয়ের তৃতীয় অধ্যায়ে কোষ সম্পর্কে আলোচনা আছে]

 

জীবদেহের গঠন ও কাজের একককে কোষ বলে। কোটি কোটি কোষ দ্বারা আমাদের শরীর গঠিত। একটি দেয়াল বানাতে কতগুলো ইট লাগে? অসংখ্য ইট জুড়ে দিয়ে একটি দেয়াল তৈরি হয়। এভাবে ধীরে ধীরে একটি মস্ত পাকা বাড়ি তৈরি হয়ে যায়। বাড়িটি তৈরির কাজ শেষ হলে প্রতিটি ইট আলাদা করে দেখা যায় না। গাঁথার আগে সবাই বলত ইট আর এখন বলছে একটি পাকা বাড়ি। তোমার, আমার সবার শরীরই এরূপ কতগুলো ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র আকারের বক্স দিয়ে তৈরি। বাইরে থেকে তা বোঝা যায় না। এসব বক্সকে এখন আমরা কোষ বলে জানি। অ্যামিবা বা ক্লোরেলা মাত্র একটি কোষ দ্বারা গঠিত জীব। ইংরেজ বিজ্ঞানী রবার্ট হুক ১৬৬৫ খ্রিস্টাব্দে বোতলের ছিপি পরীক্ষা করে মৌচাকের ন্যায় কতগুলো বক্স পরপর সাজানো দেখতে পান। এগুলোকে তিনি কোষ নাম দেন। এগুলো ছিল মৃত কোষ। জীবন্ত কোষে প্রোটোপ্লাজম থাকে।

নিউক্লিয়াসের উপস্থিতি বা অনুপস্থিতির ভিত্তিতে কোষকে প্রধানত দুই ভাগে ভাগ করা হয়। যথা—আদি কোষ ও প্রকৃত কোষ। আদি কোষের নিউক্লিয়াস কোনো আবরণী দ্বারা আবদ্ধ নয়। যেমন—ব্যাকটেরিয়া। প্রকৃত কোষের নিউক্লিয়াসে আবরণ থাকে। প্রকৃত কোষকে তাদের কাজের ভিত্তিতে দুই ভাগে ভাগ করা হয়, যথা—দেহকোষ ও জননকোষ। দেহকোষ দেহের গঠন ও বৃদ্ধিতে অংশগ্রহণ করে। জননকোষের কাজ হলো জীবের প্রজননে অংশ নেওয়া। সাধারণত কোষ এতই ক্ষুদ্র যে খালি চোখে দেখা যায় না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা