kalerkantho

বুধবার । ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ১ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

জানা-অজানা

আইপিএস

[নবম-দশম শ্রেণির বিজ্ঞান বইয়ের সপ্তম অধ্যায়ে ‘আইপিএস’-এর কথা উল্লেখ আছে]

২৪ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আইপিএস

Instant Power Supply-কে আইপিএস (IPS) বলে। এটি এমন একটি ইলেকট্রনিক যন্ত্র, যার মাধ্যমে ব্যাটারিতে সঞ্চিত ডিসি শক্তিকে এসি প্রবাহে রূপান্তর করে বাতি, ফ্যান ইত্যাদি বিদ্যুত্চালিত যন্ত্র চালানো যায়।

লোডশেডিংয়ের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে আইপিএসের বিকল্প নেই। যখন বিদ্যুৎ সরবরাহ থাকে, তখন চার্জারের মাধ্যমে আইপিএসের ব্যাটারি চার্জ করে বিদ্যুৎ শক্তি ডিসি আকারে সঞ্চয় করা হয়। লোডশেডিং হলে অর্থাৎ বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হলে আইপিএস স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যাটারির সঞ্চিত ডিসি শক্তিকে এসি শক্তিতে রূপান্তর করে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে।

সাধারণত বাতি ও ফ্যান চালানোর জন্য আইপিএস ব্যবহার করা হয়। উন্নতমানের আইপিএস দিয়ে ফ্রিজ, কম্পিউটার, টিভি, ভিডিও প্লেয়ারসহ প্রায় সব ধরনের ইলেকট্রিক যন্ত্রই চালানো যায়। তবে ইউপিএসের মতো এটি তাত্ক্ষণিক বিদ্যুৎ দেয় না। এর সুইচিং টাইম এক সেকেন্ড বা তারচেয়ে বেশি, যার ফলে ব্যবহারকারীর কম্পিউটার বা ইলেকট্রনিক ডিভাইস রিসেট বা ফের আরম্ভ হয়। এই কারণে কম্পিউটার বা ইলেকট্রনিক ডিভাইসের সঙ্গে আইপিএস সরাসরি সংযুক্ত করা হয় না।

চার্জ দেওয়ার ব্যবস্থা থাকায় আইপিএস ব্যবহারে কোনো ফুয়েল বা লুব্রিকেন্টেরও প্রয়োজন হয় না। সরাসরি বিদ্যুৎ লাইনের সঙ্গে সংযুক্ত থাকে বলে আইপিএস ইলেকট্রিশিয়ান দিয়ে প্রথমে সংযোগ করাতে হয়। আইপিএসের সক্ষমতার ওপর নির্ভর করেই ইলেকট্রিক পণ্য ব্যবহার করা উত্তম। অতিরিক্ত ভোল্টেজ ওঠানামা করলে আইপিএসে সমস্যা সৃষ্টি হয়। ব্যাটারি ও তারের সংযোগের জায়গায় কার্বন জমলে তা দ্রুত পরিষ্কার করতে হয়। বাংলাদেশে বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও দামের আইপিএস পাওয়া যায়। ক্রেতারা বাজেট ও চাহিদা অনুসারে এটি কিনে থাকেন। বর্তমানে আইপিএস বাসাবাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং বিভিন্ন করপোরেট প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা বা তারও অধিক সময় বিদ্যুৎ ব্যাকআপ পাওয়া যায়।                   

             ►  ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল                                                                         

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা