kalerkantho

বুধবার । ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ১ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

জানা-অজানা

চার্লস ব্যাবেজ

[নবম-দশম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বইয়ের প্রথম অধ্যায়ে ‘চার্লস ব্যাবেজ’-এর কথা উল্লেখ আছে]

২৩ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চার্লস ব্যাবেজ

প্রযুক্তির ইতিহাসের একজন অন্যতম স্মরণীয় ব্যক্তিত্ব চার্লস ব্যাবেজ। ১৭৯২ সালের ২৬ ডিসেম্বর ইংল্যান্ডে জন্ম নেওয়া ব্যাবেজ একাধারে একজন গণিতবিদ, দার্শনিক, আবিষ্কারক ও যন্ত্রপ্রকৌশলী। কর্মজীবনের শুরুতে ১৮২৮ সালে তিনি লুকাসিয়ান প্রফেসর হিসেবে নিযুক্ত হন এবং ১৮৩৯ সাল পর্যন্ত এ পদে আসীন ছিলেন। পরবর্তী সময়ে তিনি কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিতের অধ্যাপক হন। তিনি গবেষণার কাজে ব্যস্ত থাকতে বেশি পছন্দ করতেন। ইতিহাসের প্রথম যান্ত্রিক কম্পিউটার আবিষ্কারের কৃতিত্ব দেখান বলে তাঁকে কম্পিউটারের জনক হিসেবে অভিহিত করা হয়।

বেঞ্জামিন ব্যাবেজ ও বেটসি প্লামলি টিপের চার সন্তানের মধ্যে চার্লস ব্যাবেজ অন্যতম। ১৮১৪ সালের ২৫ জুলাই তিনি জর্জিয়া হোয়াইটমোরকে বিয়ে করেন।

তিনি ডিফারেন্স ইঞ্জিন ও অ্যানালিটিক্যাল ইঞ্জিন নামের দুটি যান্ত্রিক কম্পিউটার তৈরি করেন। তাঁর তৈরি অ্যানালিটিক্যাল ইঞ্জিন যান্ত্রিকভাবে গাণিতিক অপারেশন সম্পাদন করতে পারত এবং এর বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য আজকের কম্পিউটারের ডিজাইনে এখনো গুরুত্বপূর্ণ। অর্থায়নের অভাবে ব্যাবেজ তাঁর প্রকল্পটি সম্পন্ন করতে পারেননি। তবে ১৮২২ সালে তাঁর তৈরি ও লিখে যাওয়া বর্ণনা অনুযায়ী ডিফারেন্স ইঞ্জিনের আদলেই ১৯৯১ সালে একটি ইঞ্জিন তৈরি করা হয় এবং সেটি সঠিকভাবে কাজ করে।

বর্তমানে তাঁর উদ্ভাবিত ডিজাইনের কম্পিউটারকে কেন্দ্র করেই আরো জটিল ও আধুনিক কম্পিউটার তৈরি হচ্ছে। তাঁর সেই যান্ত্রিক কম্পিউটারের ডিজাইন এখনো লন্ডন সায়েন্স মিউজিয়ামে প্রদর্শিত হয়। ১৮৭১ সালের ১৮ অক্টোবর ৭৯ বছর বয়সে তিনি মারা যান। তাঁকে লন্ডনের কেন্সাল গ্রিন কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।

                              ►  ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা