kalerkantho

শনিবার। ২ মাঘ ১৪২৭। ১৬ জানুয়ারি ২০২১। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আইসিটি চর্চা

স্প্রেডশিট

মো. মিকাইল ইসলাম নিয়ন, সহকারী শিক্ষক, ঝিনুক মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, চুয়াডাঙ্গা সদর, চুয়াডাঙ্গা

৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



[অষ্টম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বইয়ের চতুর্থ অধ্যায়ে ‘স্প্রেডশিট’ সম্পর্কে আলোচনা আছে]

স্প্রেডশিট হলো এক ধরনের অ্যাপ্লিকেশন কম্পিউটার প্রগ্রাম। এটিকে কখনো কখনো ওয়ার্কবুক বলা হয়। এর আভিধানিক অর্থ হলো ছড়ানো বড় মাপের কাগজ। একটি রেজিস্টার খাতায় যেমন অনেক পৃষ্ঠা থাকে, তেমনি একটি ওয়ার্কবুকে অনেক ওয়ার্কশিট থাকে। একেকটি ওয়ার্কশিটে বহুসংখ্যক সারি (Row) ও কলাম (Column) থাকে । A, B, C... দিয়ে কলাম এবং ১, ২, ৩... দিয়ে রো নির্দেশ করা হয়। ছোট ঘরগুলোকে বলা হয় সেল (Cell)| বিভিন্ন প্রকার ব্যাবসায়িক কাজে এবং যেকোনো গবেষণায় প্রাপ্ত উপাত্তকে বোধগম্যভাবে উপস্থাপনের জন্য বিশ্লেষণ করতে হয়। স্প্রেডশিট প্রগ্রামের সাহায্যে এ ধরনের বিশ্লেষণের প্রাথমিক কাজগুলো সহজে সম্পাদন করা যায়।

স্প্রেডশিট প্রগ্রামে একটি ওয়ার্কশিটে সব ধরনের উপাত্ত প্রবেশ করানো যায়। ফলে যেকোনো ধরনের, যেকোনো সংখ্যক উপাত্ত অল্প সময়ে সম্পাদনা করা, হিসাব করা, বিশ্লেষণ করা ও প্রতিবেদন তৈরি করার কাজ স্প্রেডশিট প্রগ্রামের মাধ্যমে করা যায়। স্প্রেডশিট সফটওয়্যার ব্যবহার করে বিপুল পরিমাণ উপাত্ত নিয়ে কাজ করা যায়। স্প্রেডশিট সফটওয়্যার ব্যবহারের মাধ্যমে হিসাবের কাজ দ্রুত ও নির্ভুলভাবে করা যায়। এ সফটওয়্যারে সূত্র ব্যবহারের সুযোগ থাকায় হিসাবের কাজ স্বয়ংক্রিয়ভাবে সম্পন্ন হয়। একই সূত্র বারবার প্রয়োগ করা যায় বলে প্রক্রিয়াকরণে সময় কম লাগে। উপাত্তের চিত্ররূপ দেওয়াও এ সফটওয়্যারে খুব সহজ। স্প্রেডশিট সফটওয়্যারের মাধ্যমে ডাক যোগাযোগের ঠিকানা ও ই-মেইল ঠিকানার ব্যবস্থাপনা ও সংরক্ষণ সহজে করা যায়।

মন্তব্য