kalerkantho

রবিবার । ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৭ রবিউস সানি                    

নমুনা প্রশ্নের উত্তর

পরীক্ষায় ভালো নম্বর পেতে হলে হাতের লেখা পরিষ্কার হতে হবে। প্যারা করে লিখবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো প্রশ্নপত্র ভালোভাবে পড়বে এবং কোনো প্রশ্ন ছেড়ে আসবে না

১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



নমুনা প্রশ্নের উত্তর

বাস্তুসংস্থানে উদ্ভিদ থেকে প্রাণীতে শক্তি প্রবাহের ধারাবাহিক প্রক্রিয়াকে খাদ্যশৃঙ্খল বলে

১ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক)        ভূমিক্ষয়ের দুটি কারণ হলো বনভূমি ধ্বংস ও বন্যা।

খ)        দুটি কৃষি প্রযুক্তির নাম হলো—

            i) ট্রাক্টর ও ii) সেচ পাম্প।

গ)        হাঁচি-কাশির সময়ে টিস্যু, রুমাল বা হাত দিয়ে মুখ ঢাকব।

ঘ)        মহাকাশের গ্রহ, নক্ষত্র ও গ্যালাক্সি নিয়ে গবেষণা করতে বিজ্ঞানীরা দূরবীক্ষণ যন্ত্র ব্যবহার করেন।

ঙ)        আবহাওয়া হলো কোনো স্থানের আকাশ ও বায়ুমণ্ডলের সাময়িক অবস্থা।

            জলবায়ু হলো কোনো স্থানের বহু বছরের আবহাওয়ার সামগ্রিক অবস্থা।

চ)         ইগল, ঘাস, সাপ ও ব্যাঙ দিয়ে খাদ্যশৃঙ্খলের সঠিক ক্রমটি নিম্নে দেওয়া হলো—

            ঘাস→ব্যাঙ→সাপ→ইগল

ছ)        দিনে স্থলভাগের বায়ু গরম হয়ে হালকা হয়ে ওপরে উঠে যায়, ফলে ওই স্থান ফাঁকা হয়ে নিম্নচাপের সৃষ্টি হয়।

জ)       কার্বাইডজাতীয় ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ মিশ্রিত খাদ্য গ্রহণের ফলে কিডনি ও লিভার অকার্যকর হতে পারে।

ঝ)        দুটি পানিবাহিত রোগের নাম হলো—

             i. কলেরা ও ii. ডায়রিয়া

ঞ)       দুটি সার্চ ইঞ্জিনের নাম হলো—

            i. গুগল (google) ও ii. ইয়াহু (yahoo)

ট)         গ্রহ ও নক্ষত্রের মধ্যে দুটি পার্থক্য নিচে দেওয়া হলো—

ঠ)        এসিড বৃষ্টির দুটি কারণ হলো—

            i. ক্ষতিকর গ্যাস বায়ুতে বেড়ে যাওয়া।

            ii. কলকারখানার ধোঁয়া থেকে সৃষ্ট গ্যাস।

ড)        তথ্য বিনিময়ের দুটি উপকার হলো—

            i. আমাদের নিরাপদ থাকতে সাহায্য করে।

            ii. বিপদ থেকে রক্ষা পেতে সাহায্য করে।

ঢ)         পানি বিশুদ্ধকরণ প্রক্রিয়া ব্যবহার করে পুকুরের পানি থেকে নিরাপদ পানি পাওয়া যাবে।

            ণ) ফুলের টব পরিষ্কার রেখে আমরা ডেঙ্গু রোগ থেকে রক্ষা পেতে পারি।

 

২ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

            ক) কার্বন ডাই-অক্সাইড, খ) শব্দ, গ) পরাগায়ণ, ঘ) সূর্য, ঙ) বায়ুর, চ) ক্যামেরা, ছ) সুষম, জ) ৩, ঝ) সহজ, ঞ) সাময়িক, ট) ৩৬৫, ঠ) সমস্যার, ড) অনবায়নযোগ্য, ঢ) ঘনত্ব।

 

৩ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

            ক + ২; খ + ৬; গ + ৭; ঘ + ১ ; ঙ + ৪

 

৪ নম্বর প্রশ্নের উত্তর

ক)        মানুষসহ অন্যান্য সব জীব বেঁচে থাকার জন্য বিভিন্ন জড়বস্তুর ওপর নির্ভরশীল। সব জীবের বেঁচে থাকার জন্য বায়ু, পানি ও খাদ্য প্রয়োজন। মানুষের শ্বাস গ্রহণের জন্য বায়ু, পান করার জন্য পানি এবং প্রয়োজনীয় পুষ্টির জন্য খাবার প্রয়োজন। ফসল ফলানো ও বাসস্থান তৈরির জন্য মানুষের মাটি প্রয়োজন। এ ছাড়া জীবনযাপনের জন্য বাসস্থান, আসবাবপত্র, পোশাক, যন্ত্রপাতি ইত্যাদি প্রয়োজন। অনেক পোকামাকড়, কেঁচো ইত্যাদি মাটিতে বসবাস করে। আবার মাছ, চিংড়ি পানিতে বাস করে। এভাবেই বেঁচে থাকার জন্য জীব জড়ের ওপর নির্ভরশীল।

খ)        বেঁচে থাকার জন্য পরিবেশকে নানাভাবে ব্যবহার করা হয়। ফলে পরিবেশে বিভিন্ন পরিবর্তন ঘটে। এই পরিবেশ যখন জীবের জন্য ক্ষতিকর, তখন তাকে পরিবেশদূষণ বলে।

            পরিবেশ সংরক্ষণের পাঁচটি উপায় নিচে লেখা হলো—

            i. বিদ্যুৎ বা জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার কমিয়ে।

            ii. পরিবেশবান্ধব যানবাহন ব্যবহার করা, হাঁটা বা সাইকেল ব্যবহার করা।

            iii. মাটি, পুকুর বা নদীতে ময়লা-আবর্জনা না ফেলে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলা।

            iv. বেশি বেশি গাছ লাগানো।

            v. জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা।

গ)        মানুষের জন্য ক্ষতিকর নয় এমন পানিই নিরাপদ পানি।

            পানির অপর নাম জীবন। পানি ছাড়া জীব বাঁচতে পারে না। জীবের জন্য পানি অত্যন্ত প্রয়োজন। কারণ—

            i. সালোকসংশ্লেষণের মাধ্যমে খাদ্য তৈরি করতে উদ্ভিদের পানি প্রয়োজন।

            ii. পানি জীবদেহে বিভিন্ন ধরনের পুষ্টি উপাদান পরিবহনে সাহায্য করে।

            iii. পানি খাদ্য পরিপাকে সাহায্য করে।

            iv. জীবদেহে তাপমাত্রা স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে।

ঘ)        ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। যে ব্যক্তি ধূমপান করে তার নানা অসুখ হয়। যেমন—এলার্জি, কাশি, হাঁপানি, উচ্চ রক্তচাপ, ব্রংকাইটিস, ফুসফুসের ক্যান্সার ইত্যাদি। বিড়ি, সিগারেটের ধোঁয়া বায়ুকে দূষিত করে। পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়, ফলে মানুষের ক্ষতি হয়। এসব কারণে ধূমপান ক্ষতিকর।

            বায়ুদূষণ রোধের তিনটি উপায় নিম্নরূপ—

            i. কালো ধোঁয়া উৎপাদন করে এমন যানবাহন ব্যবহার বন্ধ করা।

            ii. ইটের ভাটা লোকালয় থেকে দূরে স্থাপন করা।

            iii. গাছ লাগানো এবং বনভূমি সংরক্ষণ করা।

ঙ)        তাপ সঞ্চালনের তিনটি পদ্ধতি হলো—

            i. পরিবহন ii. পরিচলন ও iii. বিকিরণ

            পরিবহন ও পরিচলনের মধ্যে পার্থক্য নিচে দেওয়া হলো—

চ)         খাদ্য সংরক্ষণের তিনটি উপায় হলো—

            i. বৈজ্ঞানিক উপায়ে খাদ্য সংরক্ষণ করা যায়।

            ii. রোদে শুকিয়ে খাদ্য সংরক্ষণ করা যায়।

            iii. ফ্রিজে বা হিমাগারে রেখে খাদ্য সংরক্ষণ করা যায়।

            যেসব খাবার স্বাস্থ্যসম্মত নয় অর্থাৎ জাংকফুড জাতীয় খাবার, যেমন—বার্গার, পিজা, পটেটো চিপস, ফ্রাইড চিকেন, কোমল পানীয় ইত্যাদি পরিহার করা উচিত। এ ছাড়া কৃত্রিম রং মেশানো মিষ্টি, জেলি, চকোলেট, আইসক্রিম, কেক, কার্বাইড দিয়ে পাকানো ফল ইত্যাদি পরিহার করা উচিত।

            ছ) বিভিন্ন জীবাণু যেমন—ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস, ছত্রাক ইত্যাদি শরীরে প্রবেশের ফলে সৃষ্ট রোগই হলো সংক্রামক রোগ।

            দুটি সংক্রামক রোগের নাম হলো—

            i. সোয়াইন ফ্লু ও

            ii. ইবোলা

            সংক্রামক রোগ প্রতিকারে তিনটি করণীয় হলো—

            i. রোগাক্রান্ত হলে পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে হবে।

            ii. পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে।

            iii. প্রচুর পরিমাণে নিরাপদ পানি পান করতে হবে।

জ)       পৃথিবীর নিজস্ব কক্ষপথে ঘূর্ণন এবং সূর্যের দিকে এর হেলে থাকা অক্ষের কারণে ঋতু পরিবর্তন হয়।

            গ্রীষ্মকালে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার চারটি কারণ নিম্নরূপ—

            i. পৃথিবীর যে গোলার্ধে গ্রীষ্মকাল তা সূর্যের দিকে হেলে থাকে।

            ii. সূর্য খাড়াভাবে কিরণ দেয়।

            iii. দিনের সময়কাল দীর্ঘ হয়।

            iv. সূর্য অপেক্ষাকৃত পৃথিবীর কাছাকাছি অবস্থান করে।

ঝ)        প্রযুক্তি হলো মানুষের জীবনের বাস্তব সমস্যা সমাধানের জন্য বিজ্ঞানের ব্যাবহারিক প্রয়োগ। প্রযুক্তি মানুষের জীবনের মানোন্নয়নে বিভিন্ন পণ্য, যন্ত্রপাতি ও পদ্ধতির উদ্ভাবন করে।

            প্রযুক্তি আমাদের জীবনকে কিভাবে প্রভাবিত করে তা পাঁচটি বাক্যে নিচে লেখা হলো—

            i. আমরা সকালে ঘুম থেকে উঠে শৌচাগার ব্যবহার করি।

            ii. পেস্ট দিয়ে দাঁত মাজি।

            iii. ঘড়ি দেখে স্কুলে যাই।

            iv. জ্বর হলে থার্মোমিটার ব্যবহার করি।

            v. চিকিৎসার জন্য ওষুধ সেবন করি।

ঞ)       ইন্টারনেট হলো পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের কম্পিউটারগুলোকে সংযুক্তকারী বিশাল নেটওয়ার্ক।

            তথ্য আদান-প্রদানের দুটি গুরুত্ব নিচে দেওয়া হলো—

            i. আমাদের নিরাপদ থাকতে সাহায্য করে।

            ii. ভালোভাবে বাঁচতে এবং বিপদ থেকে রক্ষা পেতে সাহায্য করে।

            শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্য-প্রযুক্তির তিনটি ব্যবহার নিম্নরূপ—

            i. অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তি ফরম পূরণ করা যায়।

            ii. অনলাইনের মাধ্যমে পরীক্ষার ফলাফল পাওয়া যায়।

            iii. ইন্টারনেট থেকে পাঠসংশ্লিষ্ট তথ্য, ছবি ইত্যাদি পাওয়া যায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা