kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

নবম-দশম শ্রেণি

বাংলা দ্বিতীয় পত্র

লুত্ফা বেগম, সিনিয়র শিক্ষক, বিএএফ শাহীন কলেজ, কুর্মিটোলা, ঢাকা

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলা দ্বিতীয় পত্র

প্রতিবেদন

মনে করো তুমি জাওয়াদ, ‘ক’ উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির একজন শিক্ষার্থী। তোমার বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠান সম্পর্কে বিবরণ দিয়ে প্রধান শিক্ষক বরাবর একটি প্রতিবেদন প্রণয়ন করো।

১৬ আগস্ট, ২০১৯

বরাবর,

প্রধান শিক্ষক

‘ক’ উচ্চ বিদ্যালয়

ঢাকা-১২০৬

সূত্র নং : ৪৪/জা.শো.দি/১৯

বিষয় : জাতীয় শোকদিবস সম্পর্কিত প্রতিবেদন।

জনাব,

আপনার দ্বারা আদিষ্ট হয়ে সূত্র নম্বর ৪৪/জা.শো.দি/১৯ অনুসারে গত ১৫ আগস্ট, বৃহস্পতিবার, ২০১৯ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস পালন সম্পর্কিত প্রতিবেদন পেশ করছি।

আগস্ট শোকের মাস : আমরা শোকার্ত

যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যময় পরিবেশের মধ্য দিয়ে গত ১৫ আগস্ট, বৃহস্পতিবার, ২০১৯ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস ‘ক’ উচ্চ বিদ্যালয়ের সুবিশাল প্রাঙ্গণে পালিত হয়। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের ব্যবস্থাপনায় ওই দিন শোকদিবসের বিভিন্ন কর্মসূচি প্রণয়ন করা হয়।

♦ সকাল ৭.৫৫ ঘটিকায় সমাবেশ প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণের মধ্য দিয়ে এ দিবস পালনের সূচনা হয়। এ সময় শিক্ষক-শিক্ষার্থী সবাইকে কালো ব্যাজ ধারণ করতে দেখা যায়।

♦ সকাল ৮ ঘটিকায় দশম শ্রেণির ছাত্র আবদুল্লাহ ইব্রাহিম পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত ও তর্জমা করে। এরপর শুরু হয় আলোচনাসভা। এ আলোচনাসভায় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলা বিভাগের শিক্ষক আহমদ আজিজ ও নবম শ্রেণির ছাত্রী নওরিন। আলোচনার বিষয় ছিল যথাক্রমে ‘বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবন’ এবং ‘বঙ্গবন্ধুর শৈশব ও কৈশোর’। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মহোদয় তাঁর সমাপনী বক্তব্যে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন, আদর্শ, জীবনদর্শন ও মহৎকর্মের দৃষ্টান্ত বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন লেখা ও ভাষণ থেকে উদ্ধৃত করেন, যা উপস্থিত শিক্ষক-শিক্ষার্থীর জ্ঞানের পরিধিকে আরো বিস্তৃত করে। এ পর্বে একটি হামদ্ পরিবেশন করে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র তানভীর আলম। এরপর নির্মলেন্দু গুণের। ‘আগস্ট শোকের মাস’, কাঁদো’—কবিতা আবৃত্তি ও সমবেত কণ্ঠে সংগীত ‘যদি রাত পোহালে শোনা যেত, বঙ্গবন্ধু মরে নাই’ গানটির পরিবেশনা উপস্থিত দর্শক-শ্রোতাকে গভীর আবেগে তাড়িত করে। এ পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের উদ্দেশে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন ধর্মশিক্ষক কাজী আলমগীর।

♦ দ্বিতীয় পর্ব শুরু হয় সকাল ৯ ঘটিকায়। এ পর্বে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার বিষয় ছিল ‘বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি’ ও রচনার বিষয় ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধু।’

♦ তৃতীয় পর্বে বঙ্গবন্ু্লর জীবন ও কর্মের ওপর বিভিন্ন প্রামাণ্য ভিডিওচিত্র প্রদর্শন করা হয়, যা অনুষ্ঠানে ভিন্নমাত্রা যোগ করে।

♦ সবশেষে প্রধান শিক্ষক মহোদয় রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট, মূল্যবান বই ও বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইটির একটি করে কপি প্রদান করে ৪৪তম জাতীয় শোকদিবসের সমাপনী ঘোষণা করেন।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা