kalerkantho

শনিবার । ১৬ নভেম্বর ২০১৯। ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

জানা-অজানা

লেক ভিক্টোরিয়া

[দশম শ্রেণির বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা বইয়ে লেক ভিক্টোরিয়ার কথা আছে]

১৫ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



লেক ভিক্টোরিয়া

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্বাদুপানির হ্রদ ‘লেক ভিক্টোরিয়া’ বা ‘ভিক্টোরিয়া হ্রদ’। তানজানিয়া, কেনিয়া ও উগান্ডার মধ্যবর্তী একটি সুউচ্চ মালভূমির ওপর এর অবস্থান। ১৮৫৮ সালে ব্রিটিশ আবিষ্কারক জন হানিং স্পেক আফ্রিকায় অভিযানে গিয়ে একটি হ্রদের অনুসন্ধান পান। বিশাল জলরাশি দেখে মহারানি ভিক্টোরিয়ার নামে হ্রদটির নাম দেন ‘লেক ভিক্টোরিয়া’। হ্রদটির দৈর্ঘ্য ৩৫৯ কিলোমিটার, প্রস্থ ৩৩৭ কিলোমিটার এবং সর্বাধিক গড় গভীরতা ৪১ মিটার। ছোট-বড় অনেক দ্বীপ রয়েছে এ হ্রদে। এসব দ্বীপে নানা ধরনের মানুষ বসবাস করে। নীল নদের উৎসত্তি এ হ্রদ থেকেই। ১৯ শতকের শুরু থেকেই লেক ভিক্টোরিয়া তানজানিয়া, কেনিয়া ও উগান্ডার মধ্যে একটি অন্যতম যোগাযোগের মাধ্যম। হ্রদটিকে আফ্রিকার অন্যতম মৎকা সম্পদের আধার মনে করা হয়। বর্তমানে মানবসৃষ্ট অনেক কারণে ভিক্টোরিয়া হ্রদের জীববৈচিত্র্য ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। ♦ আব্দুর রাজ্জাক

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা