kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

কঠোর ব্যবস্থা নিন

সাংবাদিক নির্যাতন বেড়েছে

৪ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কঠোর ব্যবস্থা নিন

সত্য তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ। সেই সত্য সব সময় সবার কাছে প্রীতিকর না-ও মনে হতে পারে। কেউ ক্ষুব্ধ হতে পারেন। আবার সাংবাদিকরা সত্য প্রকাশ থেকে বিরত থাকলে সাংবাদিকতা অর্থহীন হয়ে পড়বে।

বিজ্ঞাপন

দেশের মানুষও তা আশা করে না। অথচ সত্য তথ্য তুলে ধরতে গিয়েই নির্যাতন-হয়রানির শিকার হচ্ছেন সাংবাদিকরা। শুধু তা-ই নয়, সাংবাদিক হত্যার ঘটনাও ঘটেছে। মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশে চলতি বছর প্রথম ছয় মাসে তিনজন সাংবাদিক খুন হয়েছেন।

কুষ্টিয়ার স্থানীয় সাংবাদিক হাসিবুর রহমান রুবেলকে গত ৩ জুলাই তাঁর নিজ কর্মস্থল থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়। গত ৫ জুন পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলায় নিহত হন আবু জাফর প্রদীপ। গত ১৩ এপ্রিল পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলায় গুলিতে নিহত হন সাংবাদিক মহিউদ্দিন সরকার নাঈম। রহস্যজনকভাবে ঢাকায় নিহত হয়েছেন আরো দুজন। এর বাইরে বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন অন্তত ৫৩ জন। বছরের প্রথম ছয় মাসের সাংবাদিক নির্যাতনের তথ্য বিশ্লেষণ করে আসকের প্রতিবেদনে বলা হয়, রাজধানীতে ১২ ঘটনায় ২৫ জন সাংবাদিক বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। এ ছাড়া বরিশালে চারটি ঘটনায় ২৩ জন এবং নারায়ণগঞ্জে পাঁচটি ঘটনায় আরো পাঁচজন সাংবাদিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।

এদিকে সম্প্রতি আন্তর্জাতিক সংগঠন আর্টিকল নাইনটিনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত দেশে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১১৮ সাংবাদিক। আর্টিকল নাইনটিন বলেছে, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মে পর্যন্ত সারা দেশে সাংবাদিকদের ওপর ৬২টি শারীরিক হামলা হয়েছে।

সাংবাদিকদের ওপর দুর্বৃত্ত ও দুর্নীতিবাজদের ক্ষোভ থাকা স্বাভাবিক। একজন সাংবাদিক তাঁর দায়িত্ব পালনে নিষ্ঠাবান হলে সমাজের, প্রশাসনের কুকর্ম ও জনস্বার্থবিরোধী নানা অপকর্ম বের হয়ে আসে। সব ধরনের অন্যায়, অত্যাচার ও অবৈধ কর্মকাণ্ডের খবর তুলে আনাই একজন প্রকৃত সাংবাদিকের কাজ। দেশ ও সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকেই একজন সাংবাদিক প্রকৃত তথ্য তুলে ধরেন। সাংবাদিক প্রকৃত তথ্য তুলে ধরলে তাতে অনেকেরই স্বার্থের হানি ঘটতে পারে। দুর্নীতিবাজচক্র সাংবাদিকের কণ্ঠরোধের চেষ্টা করতে পারে। সত্য প্রকাশ করতে গিয়ে নিজের অজান্তে একজন সাংবাদিক অনেকের শত্রু হয়ে যেতে পারেন।

একজন সাংবাদিকের চলার ও কথা বলার অধিকার সাংবিধানিকভাবেই সুরক্ষিত। এই অধিকার কতটা সংরক্ষণ করা হচ্ছে আমাদের দেশে? সমাজের নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে সংবাদ করতে অপরাধীদের টার্গেটে পরিণত হন সাংবাদিকরা। এরপর ওই স্বার্থবাদী গোষ্ঠী সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালায়। সাংবাদিকদের সুরক্ষা দেওয়ার দায় রাষ্ট্রকে নিতে হবে।

যেসব হত্যা বা নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে, সেগুলোর সুষ্ঠু তদন্ত করে অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনা জরুরি। সৎ সাংবাদিকতা করার জন্য সারা দেশে আর একজন সাংবাদিকও হয়রানির শিকার হবেন না—এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

 

 

 



সাতদিনের সেরা