kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কী করে

এবার দেবে গেল রাস্তা

২৮ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কয়েক দিন আগে কালের কণ্ঠে প্রকাশিত এক খবরের শিরোনাম ছিল ‘শেষ হওয়ার আগেই দেবে গেল সাড়ে তিন কোটি টাকার সেতু’। ঘটনাটি টাঙ্গাইলের। টাঙ্গাইল-বেড়াডোমা-ওমরপুর সড়কের বেড়ডোমা এলাকার লৌহজং নদীর ওপর সাড়ে তিন কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটি দেবে যায়। আর গতকাল কালের কণ্ঠে প্রকাশিত একটি খবরের শিরোনাম ‘কাজ শেষ হওয়ার আগেই দেবে গেল মহাসড়ক’।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনা নওগাঁর। খবরে বলা হয়েছে, ১৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন নওগাঁ-নাটোর আঞ্চলিক মহাসড়কের কাজ শেষ না হতেই এর একটি অংশ দেবে গেছে। সড়কের আত্রাই উপজেলার সাহাগোলা রেলস্টেশনের উত্তরে প্রায় ২০০ ফুট এলাকা দেবে যায়। সড়ক বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও কী কারণে এ ঘটনা ঘটেছে, তা নির্ধারণ করতে পারেনি। তারা বলছে, যেহেতু এটা চলমান কাজ সেহেতু ঠিকাদারকেই এর মেরামতের দায়ভার বহন করতে হবে। এ জন্য সরকারের কোনো বাড়তি বরাদ্দ এখানে দেওয়া হবে না। তবে স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে সড়ক বিভাগ জেনেছে,  স্থানটিতে গভীর ডোবা এবং কাদামাটি ছিল। বিষয়টি ঢাকার বিশেষজ্ঞ টিমকে তারা জানিয়েছে। অন্যদিকে স্থানীয়দের ভাষ্য, ‘শুরু থেকেই সড়ক নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম ছিল। ’

এ ধরনের ঘটনা তো এটাই প্রথম নয়। এমন খবর আগেও গণমাধ্যমে এসেছে। ভবন নির্মাণসহ সরকারের অনেক কাজেই মান রক্ষার বিষয়টি উপেক্ষিত হওয়ার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। এর আগে চুয়াডাঙ্গা, গাইবান্ধা, রাজশাহীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে রডের বদলে বাঁশ দিয়ে সরকারি ভবন নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া যায়। সেগুলো যদি যথাযথভাবে তদন্ত হতো এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হতো, তাহলে আজ হয়তো টাঙ্গাইলে সেতু বা নওগাঁর রাস্তা দেবে যেত না। ঠিকাদাররা যেমন মানসম্মত উপায়ে নির্মাণকাজ করতেন, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারাও ঠিকমতো কাজ তদারক করতেন।

নওগাঁয় রাস্তা দেবে যাওয়ার পর সড়ক বিভাগ বলছে, স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে তারা জেনেছে ওই স্থানটি আগে নাকি অনেক গভীর খাদের মতো ছিল এবং সেখানে কাদামাটি ছিল। কাজ শুরুর আগে তারা কী করেছে? সেখানে কোনো ধরনের পরীক্ষা করেনি? বিষয়টি ঢাকার বিশেষজ্ঞ টিমকে তারা এখন জানাবে কেন? মাটি পরীক্ষা করে আগেই তো জানানো দরকার ছিল? সঠিক সময়ে সঠিক কাজটি করলে তো আর আজকের এই দিনটি দেখতে হতো না।

 



সাতদিনের সেরা