kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে

কিডনি নিয়ে ব্যবসা

১৬ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলাদেশে কিডনি ও লিভারসহ মানবদেহের অতি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছে একটি চক্র। গত শুক্রবার রাতে অভিযান চালিয়ে জয়পুরহাট জেলার গোয়েন্দা পুলিশ এমনই এক চক্রের সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে। গত শনিবার তাদের বিরুদ্ধে মামলা করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। জয়পুরহাট জেলায় কিডনি বেচাকেনা চক্র দীর্ঘদিন থেকেই সক্রিয়।

বিজ্ঞাপন

অভিযোগ রয়েছে, চক্রটি জেলার অভাবী মানুষকে আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার প্রলোভন দিয়ে কিডনি বিক্রিতে প্ররোচিত করে। তাদের ফাঁদে পড়ে কালাইয়ের অভাবী মানুষ কিডনি বিক্রি করতে সম্মত হয়। তাদের ভারত ও দুবাই নিয়ে গিয়ে কিডনি গ্রহীতার কাছ থেকে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা নেয় দালালচক্র। কিন্তু কিডনিদাতাদের সামান্য টাকা দিয়ে পুরোটাই তারা নিজেরা নিয়ে নেয়। কালের কণ্ঠে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, দীর্ঘ এক যুগ ধরে কালাইয়ের অন্তত ১০০ অভাবী মানুষ গোপনে কিডনি বিক্রি করেছে।

চিকিৎসাবিজ্ঞান ক্রমেই এগোচ্ছে। সারা দুনিয়ায়ই এখন কিডনি, লিভারসহ বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে। কিন্তু তা করা হয় সুনির্দিষ্ট আইন ও নীতিমালার ভিত্তিতে। বাংলাদেশেও ১৯৮৮ সাল থেকে কিডনি প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে কেনাবেচা বা বলপ্রয়োগের আশঙ্কা থাকায় ১৯৯৯ সালেই কিডনি প্রতিস্থাপন আইন করা হয়। কিন্তু সেই আইনকেও বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দারিদ্র্যপীড়িত মানুষের কিডনি কেনাবেচার কাজটি চলে আসছে। সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে দেশে আটটি প্রতিস্থাপন কেন্দ্রের চিকিৎসকরাও জেনে হোক আর না জেনে হোক, সেই সব কিডনি প্রতিস্থাপন করছেন। অনেকে কিডনিদাতা ও গ্রহীতাকে বিদেশে নিয়েও কিডনি প্রতিস্থাপন করিয়ে আসছেন।

কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য দুই ধরনের দাতা পাওয়া যায়। একটি হচ্ছে, আগে থেকে দান করে যাওয়া ‘ক্লিনিক্যালি ডেড’ ব্যক্তির কিডনি এবং স্বেচ্ছায় দান করা জীবিত ব্যক্তির কিডনি। ১৯৯৯ সালের কিডনি প্রতিস্থাপন আইন অনুযায়ী কেবল নিকটাত্মীয়রাই কিডনি দান করতে পারেন। কেনাবেচার তো প্রশ্নই নেই। এর পরও এই ব্যবসা কিভাবে চলছে, তা আমাদের বোধগম্য নয়। চিকিৎসকদের মতে, সম্পূর্ণ সুস্থ একজন মানুষের একটি কিডনি বা লিভারের অংশবিশেষ দান করলে এবং পরবর্তীকালে নিয়ম-কানুন মেনে চললে তেমন সমস্যা হয় না। কিন্তু কিডনি ব্যবসার নামে যেভাবে কিডনি নেওয়া হচ্ছে, তা এক ধরনের হত্যারই শামিল।

মানবদেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ কেনাবেচার এই অমানবিক ও নিষ্ঠুরতম প্রক্রিয়া কঠোরভাবে দমন করতে হবে। এর সঙ্গে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনতে হবে। এই চক্রের সাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করলেও প্রধান দুই হোতাকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। কিডনি বিক্রি ঠেকাতে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলার পাশাপাশি সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে সব মহলকে সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে।

 



সাতদিনের সেরা