kalerkantho

সোমবার ।  ১৬ মে ২০২২ । ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩  

দেখার কেউ নেই

ভোজ্য তেলের দাম বেড়েছে

২৪ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে




দেখার কেউ নেই

কোনো কারণ ছাড়াই দেশের খোলাবাজারে ভোজ্য তেলের দাম বাড়তে শুরু করেছে। গত ২ জানুয়ারি ভোজ্য তেল পরিশোধন কারখানাগুলোর সমিতির পক্ষ থেকে সয়াবিনের দাম লিটারে অন্তত আট টাকা এবং পাম তেল লিটারে ১১ টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। তাতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্মতি না দিলেও বাজারে ভোজ্য তেলের দাম ঠিকই বেড়ে গেছে। কম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধিরা খুচরা বিক্রেতাদের কাছ থেকে বাড়তি দাম রাখছেন।

বিজ্ঞাপন

কালের কণ্ঠে গতকাল প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, বাজারে সব ধরনের ভোজ্য তেল নির্ধারিত দামের চেয়ে ৫ থেকে ১৪ টাকা বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে।

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকের পর বাণিজ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘দাম বাড়ার হলে বাড়বে, কমার হলে কমবে। তবে বিচার-বিশ্লেষণ ছাড়া কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে না। আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বর্তমান দামই থাকবে। সব কিছু বিবেচনা করে এরপর যেটা সুবিধাজনক হয়, সেটাই করা হবে। ’

কিন্তু তেলের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়নি। বাজারে ভোক্তাকে বাড়তি দামেই তেল কিনতে হচ্ছে। তেলের দাম বাড়ানোর ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা মন্ত্রণালয়কে জানানোর প্রয়োজনই বোধ করেননি। গত ১৭ অক্টোবর ভোজ্য তেলের দাম বাড়ানো হয় লিটারপ্রতি সাত টাকা পর্যন্ত। সর্বশেষ নির্ধারিত দাম অনুসারে খোলা সয়াবিন খুচরায় প্রতি লিটার সর্বোচ্চ ১৩৬ টাকা, এক লিটার বোতলজাত সর্বোচ্চ ১৬০ টাকা, পাঁচ লিটার ৭৬০ টাকা, খোলা পাম ১১৮ টাকায় বিক্রি হওয়ার কথা। এখন খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৫৫ থেকে ১৫৮ টাকা কেজি। সে হিসাবে প্রতি লিটারের দাম হয় ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা। এক লিটার বোতলজাত তেল বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৬৫ টাকায়। আমদানি ও সরবরাহ পরিস্থিতি ভালো থাকার পরও ভোজ্য তেলের বাজারে এই অস্থিরতা।

দেশের ভোজ্য তেলের বাজার সম্পূর্ণ আমদানিনির্ভর। চলতি মাসের শুরুতে তেলের দাম বাড়ানোর যে প্রস্তাব দেওয়া হয়, তার কারণ হিসেবে দেখানো হয়েছিল আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্যবৃদ্ধি। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়ে গেলে তার প্রভাব দেশের বাজারে পড়বে, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমলে দেশের বাজারেও দাম কমে এমন কোনো উদাহরণ বোধ হয় খুঁজে পাওয়া যাবে না।

ভোজ্য তেলের মূল্যবৃদ্ধিতে সাধারণ ভোক্তাদের অসুবিধায় পড়তে হয়েছে। সামনে রোজা আসছে। রোজার সময় ভোজ্য তেলের চাহিদা বাড়ে। তখন তেলের দাম কোথায় যাবে সেটাও এখন থেকে ভাবতে হচ্ছে। সবচেয়ে বড় কথা হলো, এই মূল্যবৃদ্ধির বিষয়টি দেখার কি কেউ নেই। ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ানোর প্রস্তাব নিয়ে গিয়েছিলেন। মন্ত্রী জানিয়েছেন, ফেব্রুয়ারির আগে দাম বাড়ানো যাবে না। তার পরও দাম বাড়ল কী করে?

 



সাতদিনের সেরা