kalerkantho

শুক্রবার । ৭ মাঘ ১৪২৮। ২১ জানুয়ারি ২০২২। ১৭ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

দ্রুত সিদ্ধান্ত নিন

রাসায়নিকযুক্ত বীজধান থেকে চাল

১৫ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আজকের দিনে বাংলাদেশের বাস্তবতায় এমন খাদ্য পাওয়া কঠিন, যাতে ভেজাল বা বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্য মেশানো হয় না। কোনোটা প্রত্যক্ষভাবে, আর কোনোটা পরোক্ষভাবে মানবদেহে বিষক্রিয়া ঘটাচ্ছে। মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে কঠিন রোগব্যাধিতে। জনস্বাস্থ্য ভয়ংকর হুমকিতে।

বিজ্ঞাপন

সবার জন্য খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কার্যকর কোনো উদ্যোগ সেভাবে দৃশ্যমান নয়। আইন আছে, কিন্তু প্রয়োগ নেই।

মাঠে উৎপাদন বেড়েছে। উৎপাদনে এসেছে আধুনিকতা। নতুন নতুন ফসলের প্রতি কৃষকের আগ্রহ সৃষ্টি হচ্ছে। নতুন নতুন গবেষণা থেকে দেশের কৃষি উৎপাদনে রীতিমতো বিপ্লব এসেছে। ভবিষ্যতে আরো উন্নতির আশা করছে বাংলাদেশ।

কিন্তু খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ এই দেশে আমরা কী খাচ্ছি—এ প্রশ্নটা এখন বড় হয়ে দেখা দিয়েছে। কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে জমিতে সার ও কীটনাশকের ব্যবহার। কীটনাশক ব্যবহার করতে গিয়ে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই কৃষক মাত্রা না বুঝে মাঠে অতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহার করে থাকেন। যেমন—কীটনাশক ব্যবহার করা হয় হাইব্রিড বীজধানে। হাইব্রিড বীজ মানুষের খাওয়ার জন্য নয়। রোগ ছড়ানো রোধে আমদানিকারক ও উৎপাদনকারীদের বীজ শোধন করতে বলা হয়। ফানজিসাইডজাতীয় বিষাক্ত ছত্রাকনাশক মেশানো হয়। আর এ কারণে অবিক্রীত বীজ ধ্বংস করে দিতে হয়।

কিন্তু এ ধরনের অবিক্রীত হাইব্রিড বীজধান থেকে তৈরি চাল বিক্রির প্রক্রিয়া চলছে। কালের কণ্ঠে গতকাল প্রকাশিত এক খবরে বলা হয়েছে, কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে একটি অটো রাইস মিলে হাইব্রিড বীজধান চার দিন ধরে প্রক্রিয়াজাত করছেন একজন ব্যবসায়ী। গোলাপি রঙের ধান রোদে শুকানো হচ্ছে। পরে এ ধান ভাঙিয়ে চাল করা হবে বলে জানিয়েছেন চাতালের এক পরিচালক। সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীর দাবি, এগুলো বীজধান নয়। এ ধানের চাল গোখাদ্য হিসেবে বিক্রয় করা হবে।   

এই চাল বাজারজাত করা হলে তা জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে পারে। অবশ্য নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা নমুনা সংগ্রহ করেছেন। পরীক্ষার জন্য তা ঢাকায় পাঠানো হবে। পরীক্ষার ফল না আসা পর্যন্ত এই বীজধান থেকে যেন চাল তৈরি না হয় সেদিকে সবাইকে দৃষ্টি দিতে হবে।



সাতদিনের সেরা