kalerkantho

সোমবার । ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৭ মে ২০২১। ০৪ শাওয়াল ১৪৪

অভিনন্দন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

ঝুলে থাকা ইস্যুগুলোর মীমাংসা হোক

৪ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে




অভিনন্দন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস তৃতীয়বারের মতো বিজয়ী হয়েছে। নন্দীগ্রামে নিজের আসনে মমতা হোঁচট খেলেও ২১৪ আসনে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে তাঁর দল। বলতে গেলে কেন্দ্রের ক্ষমতাসীন দলের বিরুদ্ধে একাই লড়াই করেছেন তিনি। অভিনন্দন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ৭৪ আসন নিয়ে বিজেপি এবার বিরোধী দলে। গত বিধানসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে মাত্র তিন আসন পেয়েছিল বিজেপি। পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনকে নিজেদের জন্য মর্যাদার লড়াই হিসেবে নিয়েছিল বিজেপি। ভোটের প্রচারে ১২ বার পশ্চিমবঙ্গে এসে ১৮টি জনসভা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জনসভা করেছেন ৬২টি। কেন্দ্রীয় অন্য নেতারাও ছুটে বেড়িয়েছেন পশ্চিমবঙ্গ। কেন্দ্রের শাসকদলের বিরুদ্ধে আঞ্চলিক দলগুলোকে জোটবদ্ধ করতে সক্রিয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবার বিজেপিবিরোধী জোটের নেতৃত্বে চলে আসেন কি না সেটাও এখন দেখার বিষয়।

বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ আছে। সীমান্ত লাগোয়া ভারতের পাঁচটি রাজ্যের সঙ্গে ভালো যোগাযোগ ও সুসম্পর্ক আছে বাংলাদেশের। এ ছাড়া ওই রাজ্যগুলোর মধ্যে তিনটিতে বাংলাদেশের কূটনৈতিক মিশনও আছে। আন্ত সীমান্ত অনেক ইস্যুতে ওই রাজ্যগুলোর সহযোগিতা গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশের অনেক মানুষের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের মানুষের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ। একই ভাষা ও সংস্কৃতির বন্ধনে বাংলাদেশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের সম্পর্ক। স্বাভাবিকভাবেই পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনের দিকে বাংলাদেশের পর্যবেক্ষকমহলের দৃষ্টি ছিল। পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনের বিষয়ে আগ্রহের আরেকটি বিষয় তিস্তার পানিচুক্তি। ভারতের নরেন্দ্র মোদির সরকার পশ্চিমবঙ্গের সম্মতি সাপেক্ষে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি সই করতে অঙ্গীকারবদ্ধ। ভারতের বিভিন্ন পর্যায় থেকে ইঙ্গিত ছিল, পশ্চিমবঙ্গ ও আসামে নির্বাচনের পর তারা দ্রুত তিস্তাসহ অন্যান্য নদ-নদীর পানিবণ্টন ইস্যু সুরাহা করতে চায়। পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে সম্পৃক্ত নদ-নদীগুলোর পানি ইস্যুর সুরাহা করতে হলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নতুন সরকারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। তিনি তাঁর আগের অবস্থান বদলান কি না সে বিষয়েও সবার দৃষ্টি থাকবে। অন্যদিকে বিজেপি তার নির্বাচনী ইশতেহারে বলেছিল, ক্ষমতায় এলে রাজ্যের মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকে তারা আসামের মতো পশ্চিমবঙ্গে নাগরিকপঞ্জি করার সিদ্ধান্ত নেবে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই বিজয়ে নতুন করে প্রশ্ন উঠতে পারে তিস্তার পানিচুক্তি নিয়ে। সত্যিকার অর্থেই ভালো নেই তিস্তাপারের মানুষ। মরুকরণের দিকে যাচ্ছে একটি বড় অঞ্চল। অনেকের মতে, মমতার কারণে আটকে আছে তিস্তাচুক্তি। তিস্তা ইস্যু নিয়ে মমতার অবস্থান আছে। অন্যদিকে বিশ্লেষকদের অনেক মনে করেন, ভারত সরকারের উচিত পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি সিকিমকেও তিস্তা নিয়ে আলোচনায় যুক্ত করা।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুসম্পর্ক রয়েছে। আমরা আশা করতে পারি, নিকট-প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল ও সরকার ঝুলে থাকা ইস্যু মীমাংসায় অগ্রণী ভূমিকা নেবে।