kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ মাঘ ১৪২৭। ২৮ জানুয়ারি ২০২১। ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ইতিবাচক পুলিশ বাহিনী

জনগণের সত্যিকারের বন্ধু হোক

২৯ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জননিরাপত্তার প্রধান দায়িত্ব পুলিশের। বিপদে-আপদে জনসাধারণ পুলিশের সাহায্য নেবে—এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু মানুষের মধ্যে পুলিশ সম্পর্কে একধরনের ভীতি রয়েছে। আবার এটাও সত্য যে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় পুলিশ বাহিনীর ভূমিকাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। যেকোনো দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সে দেশের নাগরিকদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম পুলিশ সপ্তাহে ১৯৭৫ সালের ১৫ জানুয়ারি রাজারবাগ পুলিশ লাইনে দেওয়া ভাষণে বঙ্গবন্ধু পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে বলেছিলেন, ‘আপনারা স্বাধীন দেশের পুলিশ। আপনারা বিদেশি শোষকদের পুলিশ নন—জনগণের পুলিশ। আপনাদের কর্তব্য জনগণের সেবা করা, জনগণকে ভালোবাসা, দুর্দিনে জনগণকে সাহায্য করা। আপনাদের বাহিনী এমন যে এর লোক বাংলাদেশের গ্রাম পর্যন্ত ছড়িয়ে রয়েছে। আপনাদের নিকট বাংলাদেশের মানুষ এখন একটি জিনিস চায়। তারা যেন শান্তিতে ঘুমাতে পারে। তারা আশা করে, চোর, বদমাইশ, গুণ্ডা, দুর্নীতিবাজ যেন তাদের ওপর অত্যাচার করতে না পারে। আপনাদের কর্তব্য অনেক।’ ওই বক্তৃতায় তিনি আরো উল্লেখ করেন, ‘...আপনাদের মানুষ যেন ভয় না করে। আপনাদের যেন মানুষ ভালোবাসে। আপনারা জানেন, অনেক দেশে পুলিশকে মানুষ শ্রদ্ধা করে। আপনারা শ্রদ্ধা অর্জন করতে শিখুন।’ বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও বিভিন্ন সময়ে পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘সব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় পুলিশকে জনগণের সেবক হতে হবে। পুলিশের প্রত্যেক সদস্যকে অসহায় ও বিপন্ন মানুষের পাশে বিশ্বস্ত বন্ধুর মতো দাঁড়াতে হবে।’

পুলিশের বিরুদ্ধে আটক বাণিজ্য থেকে শুরু করে চোরাচালান, মাদকপাচার, মাদক বাণিজ্য, চুরি, ছিনতাই, অপহরণ ইত্যাদি অনৈতিক কর্মকাণ্ডের অভিযোগ, সেই বাহিনী বদলে যাচ্ছে। বিদ্যমান আইনের মধ্যে থেকেই সংস্কারের অংশ হিসেবে পুলিশ বাহিনীকে দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত করার পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। রাজধানীর থানাগুলোতে কোনো বাদী মামলা করতে গিয়ে হয়রানির শিকার হচ্ছেন কি না, ঘুষ দিতে হচ্ছে কি না, সেটা নজরে রাখতে ঢাকা মহানগর পুলিশ সদর দপ্তরে আলাদা সেল খোলা হয়েছে। সেল থেকে মামলা ও জিডির বাদীকে ফোন করে জানতে চাওয়া হয় থানা পুলিশের হয়রানির শিকার হয়েছেন কি না বা কোনো পুলিশ ঘুষ চাচ্ছে কি না, থানায় গিয়ে অভিযোগ দিতে কোনো সমস্যায় পড়েছেন কি না, পুলিশ অভিযোগ অবহেলা করছে কি না ইত্যাদি।

ইতিবাচক ভূমিকায় বদলে যাবে পুলিশ বাহিনী, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা