kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আরো একটি হাতি হত্যা

যথোচিত আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে

২৫ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হত্যাকাণ্ডের শিকার হলো আরো একটি হাতি। চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় গুলি করে মারা হয়েছে বুনো এই হাতিটিকে। বলা হচ্ছে, দুর্বৃত্তরা এই কাজ করেছে। দেশে এত দুর্বৃত্ত এলো কোথা থেকে, যারা হাতি শিকারেও ওস্তাদ! এসব চোরাশিকারি অন্যান্য বুনো প্রাণীও শিকার করে। চোরাশিকারিদের দমন করা না গেলে এ দেশে বুনো প্রাণী বলতে আর কিছুই থাকবে না। এখনই যদি বুনো প্রাণীদের ব্যাপারে সতর্ক না হওয়া যায়, তাহলে প্রাণবৈচিত্র্য রক্ষার যে লক্ষ্যে সরকার এগোচ্ছে তা-ও ভেস্তে যাবে। অভয়ারণ্যের প্রাণী হত্যারও নজির আছে এই বাংলাদেশে।

গত রবিবার রাতে লোহাগাড়ার বড়হাতিয়া ইউনিয়নের চাকফিরানী এলাকায় হাতি হত্যার এ ঘটনা ঘটে। কক্সবাজারে চলতি মাসেই তিনটি হাতি হত্যার ঘটনা ঘটেছে। তারপরই লোহাগাড়ায় এই হাতিটিকে হত্যা করা হলো। এ নিয়ে এই মাসে চারটি হাতি হত্যা করা হলো। গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত ৬ নভেম্বর কক্সবাজারের চকরিয়ার খুটাখালীর কালাপাড়া বনাঞ্চলে একটি বাচ্চা হাতিকে গুলি করে হত্যা করা হয়। আট দিনের ব্যবধানে ১৪ নভেম্বর কক্সবাজারের রামুর জোয়ারিয়ানালার জুমছড়ি বনাঞ্চলে ৩০ বছর বয়সী একটি স্ত্রী হাতিকে গুলি করা হয়। সেই হাতিটি ১৬ নভেম্বর মারা যায়। আর ১৫ নভেম্বর কক্সবাজারের রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ির খরলিয়াছড়ায় গুলি করে আরেকটি হাতি হত্যা করা হয়। এসব ঘটনায় পরিবেশবাদীরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতেও হাতি বা বন্য প্রাণী হত্যার ঘটনা ঘটে। তবে সেসব দেশে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ারও নজির আছে। এ বছরের মে মাসের শেষের দিকে ভারতের কেরালা রাজ্যে অন্তঃসত্ত্বা একটি হাতিকে আনারস খাইয়ে হত্যা করা হয়। খাবারের খোঁজে গ্রামে ঢুকে পড়েছিল হাতিটি। ওই আনারসে বারুদ ভর্তি ছিল। বিস্ফোরণের যন্ত্রণা ভুলতে স্থানীয় একটি নদীতে নেমে দাঁড়িয়ে ছিল সে, মাঝনদীতে দাঁড়িয়ে থেকে একসময় মারা যায়। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। হাতির মৃত্যুর ঘটনায় মামলা হয় এবং দ্রুততম সময়ে তিনজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়।

হাতি রক্ষায় স্থানীয় বন কর্মকর্তাদের নজরদারি বাড়ানো দরকার। ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচার (আইইউসিএন) বলেছে, এ রকম চলতে থাকলে বাংলাদেশ থেকে এশীয় হাতি বিলুপ্ত হতে বেশি সময় লাগবে না। বন বিভাগের হিসাবে গত এক বছরে ১৮টি হাতি মারা হয়েছে। কক্সবাজার অঞ্চলেই অন্তত ১৩টি বুনো হাতি হত্যার ঘটনা ঘটেছে। হাতি হত্যা বা বুনো প্রাণী হত্যার ব্যাপারে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া অত্যন্ত জরুরি। জনগণকে সচেতন করারও প্রয়োজন আছে। সংশ্লিষ্টরা যথোচিত ব্যবস্থা নেবে বলে আমরা আশা করি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা