kalerkantho

শুক্রবার। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৪ ডিসেম্বর ২০২০। ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২

বাজার আবার ঊর্ধ্বমুখী

সরকারকে হস্তক্ষেপ করতে হবে

৮ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাজার পরিস্থিতি ভালো নয়। দরদাম সাধারণের আয়ত্তে নেই। চালের দাম বাড়তি। ৫০ টাকা কেজির নিচে চাল নেই। ভারত হঠাৎ রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ায় পেঁয়াজের দর চড়েছিল। সেটা আর বাড়ছে না বটে, তবে যে দরে উঠেছিল সেখান থেকে আর নামেনি। আর এখন ভোজ্য তেলের দাম ঊর্ধ্বমুখী। এক মাসের মধ্যে বাজারে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ১০ টাকা বেড়েছে। খোলা সয়াবিন ও পাম তেলের দামও বেড়েছে।

বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সয়াবিন তেল খুচরায় প্রতি লিটার সর্বোচ্চ ১১৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। সপ্তাহখানেক আগেও দাম ছিল প্রতি লিটার ১১০ টাকা। মঙ্গলবার রূপচাঁদা ও তীর ব্র্যান্ডের পাঁচ লিটারের বোতল বিক্রি হয়েছে ৫৩০ টাকায়। সপ্তাহখানেক আগে দাম ছিল ৫০০ টাকা। ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) পরিসংখ্যান অনুযায়ী এক মাসে খোলা সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে প্রায় ৯ শতাংশ। মঙ্গলবার প্রতি লিটার বিক্রি হয়েছে ৯০ থেকে ৯৪ টাকায়। এক সপ্তাহ আগেও তা ছিল ৮২ থেকে ৯৩ টাকা। এক মাস আগে ছিল ৮২ থেকে ৮৭ টাকা লিটার। এক মাস আগেও পাম অয়েল ছিল ৭৫ থেকে ৮০ টাকা লিটার। এখন ৮৮ থেকে ৯০ টাকা। এক মাসের মধ্যে দুই দফায় প্রতি লিটারে দাম বেড়েছে ১০ টাকা। তীর ব্র্যান্ডের সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে প্রতি লিটার ১১৫ টাকা। রূপচাঁদা সয়াবিনের পাঁচ লিটারের বোতল ৩০ টাকা বেড়ে ৫৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ভোজ্য তেলের প্রায় শতভাগ আমদানি করতে হয়। তবে মিল ও বাজারে ভোজ্য তেলের ঘাটতি নেই। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্য তেলের মূল্য নির্ধারণে বড় ভূমিকা পালন করে পাম অয়েল। এর দাম বাড়লে অন্যগুলোর দামেও তার প্রভাব পড়ে। করোনাভাইরাসের কারণে মে মাস পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বাজারে সব ধরনের তেলের দাম ছিল সহনীয়। জুন থেকে আমদানি বাড়া শুরু করলে পাম অয়েল ও সয়াবিনের দাম বেড়ে যায়। কেউ বলছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রভাব  যেমন পড়েছে ভোগ্যপণ্যের বিশ্ববাজারে, তেমনি ভোজ্য তেলের দামেও পড়েছে। এই যুক্তি গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।

বাজারে পণ্য সরবরাহের বিষয়ে জরুরি ভিত্তিতে বিকল্প ভাবতে হবে। টিসিবিকে পূর্ণমাত্রায় সক্রিয় করার বিকল্প নেই। বাজারে যে মনোপলি চক্র গড়ে উঠেছে তা ভাঙতে হবে। এখানেই সরকারের ভূমিকা পালনের বিষয়। দরের কিছু উত্থান-পতন হতেই পারে, তার গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা থাকতে হবে। বাংলাদেশে একবার দর উঠলে আর নামে না। এ রীতি ভাঙতে হবে।

মন্তব্য