kalerkantho

শুক্রবার। ২৬ আষাঢ় ১৪২৭। ১০ জুলাই ২০২০। ১৮ জিলকদ ১৪৪১

বিনিয়োগ আকর্ষণে উদ্যোগ

বিদ্যমান নীতিমালার সংস্কার দরকার

২৭ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে চীন থেকে বিনিয়োগ প্রত্যাহার করছে অনেক দেশ ও প্রতিষ্ঠান। আবার বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ানোর সুযোগ কাজে লাগাতে অনেক দেশ তাদের বিনিয়োগনীতিতে পরিবর্তন আনছে। বাংলাদেশও পরিবর্তন ঘটাচ্ছে—উদ্ভূত বিনিয়োগ সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে উদ্যোগ নিয়েছে। বিনিয়োগকারীরা যাতে সহজে তাদের লভ্যাংশ নিজ দেশে নিয়ে যেতে পারে, প্রথম ধাপে সে বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। সে লক্ষ্যে ফরেন কারেন্সি অ্যাকাউন্টের প্রক্রিয়াদি সহজ করা হচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংক যেসব সার্কুলারের মাধ্যমে বিদেশি বিনিয়োগের বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রণ বা মনিটর করে সেগুলোও সহজ করা হচ্ছে। বিনিয়োগ বাড়াতে প্রবাসী বাংলাদেশিদেরও নানা সুবিধা দেওয়া হবে। এসব বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ বাংলাদেশ ব্যাংককে এরই মধ্যে জরুরি চিঠি পাঠিয়েছে।

বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে বৈদেশিক মুদ্রানীতি আইন-১৯৪৭ যুগোপযোগী করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনা রয়েছে। বিনিয়োগ নীতিমালা ও সুবিধাবলি আরো সহজ করা হলে তা দেশের জন্য ভালো হবে, বিদেশি বিনিয়োগ বাড়বে বলে মনে করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। অর্থনীতি বিশ্লেষকদের মতে, বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা জরুরি। সে লক্ষ্যে পদক্ষেপ না নিলে পাকিস্তান, ইরান, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া, মিসর প্রভৃতি দেশ ছেড়ে বিদেশিরা কেন বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে আসবে? বিদেশি বিনিয়োগকারীরা মুনাফা নিজ দেশে নিতে চাইলে সে প্রক্রিয়াকেও সহজ করতে হবে। করপোরেট করহার কমাতে হবে। নীতিমালা যুগোপযোগী না করলে বিদেশি বিনিয়োগ আসবে না। আর এসবের জন্য দক্ষ জনশক্তিও লাগবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ব অর্থনীতিতে পরিবর্তন ঘটছে। নতুন অর্থনৈতিক মেরুকরণ, বিনিয়োগ বহুমুখীকরণ শুরু হয়েছে। চীন থেকে অনেক বিদেশি শিল্পপ্রতিষ্ঠান তাদের বিনিয়োগ সরিয়ে নিয়েছে এবং নিচ্ছে। এর ফলে অন্যান্য দেশের জন্য সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে; বাংলাদেশের জন্যও। এরই মধ্যে ভারত, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের লক্ষ্যে আইন, বিধি-বিধান, করব্যবস্থা ও ব্যাংকিং পদ্ধতি সহজ করেছে। নীতিগত সহায়তা দেওয়ার প্রস্তুতিও তারা নিয়েছে। বাংলাদেশও বিদেশি বিনিয়োগের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে চায়। সেটা করতে চাইলে নীতিমালা, পদ্ধতি ও বিধি-বিধানে পরিবর্তন আনা দরকার। বিদেশিরা যাতে তাদের লভ্যাংশ সহজে নিজ দেশে বা অন্য স্থানে নিতে পারে সে বিষয়ে জোর দেওয়া দরকার। এ জন্য ফরেন কারেন্সি অ্যাকাউন্টের সব প্রক্রিয়া আরো সহজ ও দ্রুত করতে হবে।

বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্য প্রবাসী বাংলাদেশিদেরও গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশের শিল্প, কৃষি ও সেবা খাতে বিনিয়োগ করতে আকৃষ্ট করার জন্য সময়োপযোগী পরিকল্পনা দরকার। বিনিয়োগের সব বাধা দূর করতে হবে। বিনিয়োগেই অর্থনীতির বিকাশ।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা