kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৪ জুন ২০২০। ১১ শাওয়াল ১৪৪১

ত্রাণ নিয়ে জালিয়াতি থেমে নেই

অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

২২ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর ঘোষিত দীর্ঘ সাধারণ ছুটিতে অনেক মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে সরকারের পক্ষ থেকে নিয়মিত ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। এর পাশাপাশি ঈদের আগে নগদ সহায়তা দেওয়ারও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। অঘোষিত লকডাউনের শুরু থেকেই বরাদ্দকৃত ত্রাণ নিয়ে নানা ধরনের অনিয়মের খবর আসতে থাকে গণমাধ্যমে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গেছে, স্থানীয় রাজনৈতিক প্রভাবশালী বা জনপ্রতিনিধিরাই এসব অনিয়মের সঙ্গে জড়িত।

সংখ্যায় খুব বেশি না হলেও সরকারের একটি মহৎ উদ্যোগের সাফল্য ম্লান করে দিয়েছে এসব ঘটনা। এসব অনিয়মের অভিযোগে বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছে। প্রকাশিত একটি খবরে বলা হচ্ছে, করোনাভাইরাস সংকটের মধ্যে সরকারি ত্রাণ আত্মসাতের অভিযোগে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এবং ছয় সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে সরকার। এ নিয়ে ত্রাণ বিতরণে অনিয়মসহ সরকারি চাল আত্মসাৎ এবং অন্যান্য অনিয়মের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের ২১ জন চেয়ারম্যান, ৪২ জন সদস্য, একজন জেলা পরিষদ সদস্য এবং দুজন পৌর কাউন্সিলরসহ মোট ৬৬ জনপ্রতিনিধিকে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো। কিন্তু অনিয়ম বন্ধ হয়নি।

কিছু অনিয়মের ঘটনা নতুন করে সামনে এসেছে। কালের কণ্ঠে প্রকাশিত আরেকটি খবরে বলা হচ্ছে, ত্রাণ তালিকায় ব্যাপক জালিয়াতির তথ্য পাওয়া গেছে। একই বাড়ির ঠিকানায় লিপিবদ্ধ করা হয়েছে একাধিক নাম। প্রতি পরিবারে একজনকে তালিকাভুক্ত করার নির্দেশ থাকলেও তালিকায় দেখা যায় একই পরিবারের একাধিক নাম। ওএমএস ও মানবিক সহায়তা পারিবারিক কার্ডপ্রাপ্তদের তালিকাভুক্ত করার ক্ষেত্রে নিম্নমধ্যবিত্ত ও অসচ্ছলদের অন্তর্ভুক্ত করার কথা থাকলেও অনুসন্ধানে দেখা যায়, অসচ্ছলদের পরিবর্তে বিত্তবান, ব্যবসায়ী ও বাড়িওয়ালাদের নাম তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে বেশি। ওদিকে কর্মহীন অসচ্ছল মানুষদের জন্য দুই হাজার ৫০০ টাকা বরাদ্দ, বয়স্ক, প্রতিবন্ধী, বিধবাসহ অন্য সরকারি ভাতা প্রদানে তৈরি তালিকায় নাম তালিকাভুক্তির জন্য মধ্যস্বত্বভোগীদের ধরিয়ে দিলে পুরস্কার হিসেবে নগদ টাকা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন মাগুরার মহম্মদপুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। অন্যদিকে কাজিপুর উপজেলায় মৎস্য অধিদপ্তরের মাধ্যমে জেলেদের নামে বরাদ্দ ত্রাণের চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী জেলেরা।

সরকার অসহায় কর্মহীনদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছে। কিন্তু এই ত্রাণ নিয়ে যারা অনিয়মে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে প্রত্যাশা করি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা