kalerkantho

শনিবার । ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৪ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

ফাইভজিতে প্রবেশের প্রস্তুতি

চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলা করতে হবে

১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



তথ্য-প্রযুক্তিতে ভর করে এগিয়ে চলেছে বিশ্ব। সারা বিশ্বকে হাতের মুঠোয় নিয়ে এসে তথ্য-প্রযুক্তি জীবনযাত্রা সহজ করে দিয়েছে। গেল শতকের নব্বইয়ের দশকে যখন বাংলাদেশে মোবাইল ফোন আসে, তখন সবার জন্য এটা ছিল এক বিস্ময়। এখন জীবনের সঙ্গে জড়িয়ে গেছে মোবাইল ফোন। মোবাইল ফোন আর তথ্য-প্রযুক্তি একসঙ্গে মিলেমিশে যোগাযোগ ব্যবস্থাকেই শুধু সহজ করেনি, ব্যবসা-বাণিজ্যেও তথ্য-প্রযুক্তি আজ অপরিহার্য হয়ে উঠেছে। প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ প্রজন্মের পর পরিবর্তিত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এবার পঞ্চম প্রজন্মের নেটওয়ার্কে প্রবেশের প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ। গত বৃহস্পতিবার শুরু হওয়া তিন দিনের ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলায় তার প্রস্তুতিই তুলে ধরা হয়েছে। নতুন প্রযুক্তি জীবনকে কতটা সহজ করে দেবে, তারও ধারণা মিলছে ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলায়।

ফাইভজি হচ্ছে প্রজন্মের ওয়্যারলেস সিস্টেম বা উন্নত প্রযুক্তির ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক। বিশ্বে কোথাও কোথাও ফাইভজি ছোট আকারে চালু হলেও বাংলাদেশ এখনো রয়ে গেছে ফোরজির জগতে। আবার দেশের সব অঞ্চলে ফোরজি সেবা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়নি। বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তিন দিনের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, সারা বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশও ফাইভজি চালুর জন্য প্রস্তুত। তথ্য-প্রযুক্তি খুব তাড়াতাড়ি পোশাক খাতের রপ্তানিকেও ছাড়িয়ে যাবে জানিয়ে তিনি বলেছেন, সব কিছুর সুফল পাবে বাংলাদেশের জনগণ।

ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলায় আগতদের ফাইভজি স্পিড ও লো-ল্যাটেন্সি অভিজ্ঞতা অর্জন হচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলার বাড়তি আকর্ষণ হচ্ছে বিশেষ একটি রোবট, যাকে হাতের ইশারায় পরিচালনা করে ফুটবল খেলা যাচ্ছে। ফাইভজি প্রযুক্তিতে কত দ্রুত ‘হিউম্যান টু মেশিন’ কিংবা ‘মেশিন টু মেশিন’ কমিউনিকেশন সম্ভব, তা তুলে ধরার উদ্দেশ্যে এই আয়োজন। এখানে গেমের ছলে ভিআর দেখানো হচ্ছে। আয়োজকদের বক্তব্য হচ্ছে, এটি যদি শিক্ষার ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হয়, তাহলে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। আমেরিকায় বসে চিকিৎসক ঢাকায় রোগী দেখা, পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে পারবেন। একটি গার্মেন্ট ফ্যাক্টরির বয়লার রিয়াল টাইম মনিটর করা যাবে। সব মিলিয়ে জীবনের আরো গতিশীল করতেই আসছে ফাইভজি।

আমাদের দেশে যখন ফোরজি চালু করা হয়, তখন অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হয়েছি। ফাইভজির জন্যও চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে। সে কারণেই প্রস্তুতি নিয়েই এগোতে হবে আমাদের।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা