kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

বাস্তবায়িত হয়নি প্রতিশ্রুতি

ব্যাংকঋণে সুদের হার এক অঙ্কে আনুন

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঋণের সুদহার সিঙ্গল ডিজিটে নামিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ব্যাংকের মালিকরা গত বছর সরকারের কাছ থেকে একের পর এক অনেক সুবিধা আদায় করেছেন—এমন খবর সংবাদমাধ্যমে বরাবরই এসেছে। কালের কণ্ঠে গতকাল প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, গত দেড় বছরে এক অঙ্কের সুদহার বাস্তবায়নের কথা বলে ব্যাংকগুলো যে সুযোগ-সুবিধা নিয়েছে টাকার পরিমাণের হিসাবে এই টাকা দিয়ে আরেকটি পদ্মা সেতু প্রকল্প কিংবা মেট্রো রেলের মতো আরেকটি জনগুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প অথবা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের মতো দুটি প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্ভব। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, সুদের হার এক অঙ্কে নামিয়ে আনার জন্য বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকসের (বিএবি) দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গত দেড় বছরে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক দফায় দফায় ৯টি সুবিধা দিয়েছে। কিন্তু সরকারি ব্যাংক এবং কয়েকটি বেসরকারি ব্যাংক ছাড়া বাকিগুলো ঋণে সুদহার এক অঙ্কে নামায়নি। সুদহার এক অঙ্কে না এলেও ৯টি সুবিধার চারটিতেই ব্যাংকগুলো ২৫ হাজার ৪৫৯ কোটি টাকা পেয়েছে। এ ছাড়া বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে সরকারি তহবিল জমার হার বৃদ্ধি, পরিচালক পদে অধিষ্ঠিত থাকার মেয়াদ ও একক পরিবারের সদস্যসংখ্যা বৃদ্ধি, ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্টে ১০ বছর মেয়াদে পুনঃ তফসিল এবং ঋণ শ্রেণীকরণ নীতিমালা শিথিলকরণ সুবিধা দেওয়া হয়েছে। তবে কাজের কাজ কিছুই হয়নি। কিন্তু দেড় বছরেও বাস্তবায়ন হয়নি এক অঙ্কের সুদহার।

গত বছর জুন মাসে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদে ঋণ বিতরণের ঘোষণা দিয়ে একই বছরের ১ জুলাই থেকে এটি কার্যকর হওয়ার কথা জানানো হয়েছিল। কিন্তু ওই বছর ১ জুলাই থেকে সরকারি চার ব্যাংকসহ কয়েকটি ব্যাংক এই ৯ শতাংশ সুদহার কার্যকর করে। গত বছরের নভেম্বর থেকে ঋণের সুদ আবার বাড়তে শুরু করে এবং এখনো তা অব্যাহত রয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো ব্যাংকই সেই অঙ্গীকার পূরণ করেনি। অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সুদের হার কমার বদলে উল্টো বেড়েই চলেছে। এতে নতুন শিল্প স্থাপন ও চলমান শিল্প সম্প্রসারণে অনেকেই আগ্রহ হারাচ্ছেন। ব্যবসায়ীরা মনে করেন, বিনিয়োগে অন্যতম বাধা হিসেবে কাজ করে উচ্চ সুদহার।

বিনিয়োগ বাড়ানোর স্বার্থেই ঋণের সুদহার এক অঙ্কে নামিয়ে আনা জরুরি। আমরা আশা করব, ব্যাংকগুলো তাদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি পূরণে আন্তরিক হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা