kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

আবার কারখানায় আগুন

দায়ীদের কঠোর শাস্তি দিতে হবে

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকার কেরানীগঞ্জের প্লাস্টিক কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে মৃতের সংখ্যা ১৩-তে দাঁড়িয়েছে। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিত্সাধীন অবস্থায় বুধবার রাতে ও গতকাল বৃহস্পতিবার ১২ জনের মৃত্যু হয়। বুধবারেই কারখানা থেকে একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছিল। আরো ২১ জন বার্ন ইউনিটে চিকিত্সাধীন রয়েছে। তাদের অবস্থা ভালো নয়।

বুধবার বিকেলে কেরানীগঞ্জের চুনকুঠিয়া এলাকার ‘প্রাইম পেট অ্যান্ড প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড’-এর কারখানায় আগুন লাগে। স্থানীয় এমপি জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বুধবার রাতে একতলা টিনশেড কারখানাটি পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের বলেন, এটির অনুমোদন ছিল না। আগুন লাগার কারণ ও ক্ষতির পরিমাণ জানার জন্য ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ একটি কমিটি গঠন করেছে। তারা বলেছে, ওই ঘটনার দোষ মালিকের ওপর বর্তায়। কারখানায় জরুরি নির্গমন দরজা ছিল না। একটি মাত্র দরজা দিয়ে ঢোকা ও বের হওয়ার কাজ চলত। শ্রমিকদের জন্য নির্দেশনামূলক কোনো বোর্ডও ছিল না। কর্তৃপক্ষের গাফিলতির কারণে ক্ষতির পরিমাণ বেশি হয়েছে। গত ২৫ এপ্রিলেও এটিতে আগুন লেগে ছিল। কারখানার উত্পাদনকাজে দাহ্য রাসায়নিকের ব্যবহার হতো। এসবের কারণে আগুনের ভয়াবহতা বাড়ে। আগুন লেগেছিল গ্যাসরুম থেকে। ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ও র‌্যাব এবং স্থানীয় লোকজন দগ্ধ ব্যক্তিদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

বাংলাদেশে আগুন লাগার ঘটনা, বিশেষ করে শহর-গঞ্জে, প্রায়ই ঘটে; ঢাকা বিভাগে বেশি ঘটে। ইদানীং বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদির ব্যবহার বাড়ায় গ্রামেও আগুন লাগার ঘটনা বেড়েছে। শীতের সময় আগুনের ঘটনা বেশি ঘটে। গত ১০ বছরে এক লাখ ৬৮ হাজার ১৮টি অগ্নিকাণ্ডে এক হাজার ৪৯০ জন প্রাণ হারিয়েছে, আহত হয়েছে ছয় হাজার ৯৪১ জন। বছরে গড়ে ১৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। পরিস্থিতি এমন হলেও অগ্নিদুর্ঘটনা মোকাবেলার জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ও অর্থ বরাদ্দ নেই। এ বাবদ সরকারের বার্ষিক মাথাপিছু ব্যয় মাত্র ৩০ টাকা। উন্নত দেশ যেমন—নরওয়ে মাথাপিছু ১৭২ ডলার, জাপান ১৩৪ ডলার, ফ্রান্স ১০৪ ডলার, জার্মানি ১০৭ ডলার ও যুক্তরাজ্য ৫৮ ডলার ব্যয় করে। বাংলাদেশ ব্যয় করে মাত্র ৩৬ সেন্ট (৩০ টাকা)। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের অধীন বাহিনীগুলোর মধ্যে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের বরাদ্দ সবচেয়ে কম।

আমরা চাই, কারখানাটির অগ্নিসুরক্ষা ব্যবস্থায় গাফিলতির জন্য সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা