kalerkantho

এ কী নির্মমতা

বখাটেদের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিন

৩ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিয়ের আসরে এবার বখাটের ছুরিকাঘাতে প্রাণ গেল কনের বাবার। মাও ছুরিকাহত হয়ে হাসপাতালে। বৃহস্পতিবারের এ ঘটনাটিই প্রমাণ করছে বখাটেদের অত্যাচারের মাত্রা কী হারে বেড়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে রাজধানী ঢাকার মগবাজারে। ঘাতক ওই বখাটে তরুণকে আটক করেছে পুলিশ। তরুণের দাবি, মেয়েটির সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পুলিশ বলছে, মেয়েকে হত্যার উদ্দেশ্যে গিয়ে বাধা পেয়ে বখাটে তরুণ মেয়ের বাবাকে হত্যা করেছে। এলাকাবাসী বলছে, ওই তরুণ দীর্ঘদিন ধরে মেয়েটিকে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। এ নিয়ে একাধিকবার সালিস-বৈঠকও হয়েছে। কিন্তু তার পরও উত্ত্যক্ত করা থেকে বিরত হয়নি বখাটে তরুণ রকি। পরিস্থিতি চরম পর্যায়ে পৌঁছলে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলাও করেছিলেন মেয়েটির বাবা। পুলিশ সেই মামলায় তাকে গ্রেপ্তারও করেছিল। এ ছাড়া মাদক আইনে গ্রেপ্তার হয়ে কারাভোগ করেছে এই তরুণ।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় এ ধরনের বখাটে তরুণদের অত্যাচার সীমা ছাড়িয়েছে। বিভিন্ন এলাকায় তৈরি হয়েছে গ্যাং গ্রুপ। এলাকার মাদক  কারবার থেকে শুরু করে ইভ টিজিংসহ নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িত হয়ে পড়ছে এসব তরুণ। তাদের অনেককে একাধিকবার গ্রেপ্তার করা হলেও আইনের নানা ফাঁকফোকর গলে এরা ঠিকই বেরিয়ে আসে। নতুন করে সংগঠিত হয়ে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। মগবাজারের এই বখাটেকে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলায় গ্রেপ্তার করার পরও সে বেরিয়ে এসেছে। বেরিয়ে এসেছে মাদক মামলায় গ্রেপ্তারের পরও। নতুন করে জড়িয়েছে অপরাধে। কাজেই এখন থেকে এসব অপরাধীর ক্ষেত্রে আইনের কঠোর প্রয়োগ জরুরি হয়ে পড়েছে। একবার গ্রেপ্তার হলে বিচার শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোনোভাবেই যেন কোনো বখাটে বেরিয়ে আসতে না পারে, আইনের ধারাটি সংশোধন করে হলেও এমন ব্যবস্থা নেওয়া যায় কি না তা ভেবে দেখা দরকার।

শুধু মেয়েরা নয়, বখাটেপনার শিকার হয়ে প্রাণ দিতে হয়েছে অনেক শিক্ষক, বাবা-ভাই ও মাকে। অনেক বখাটেকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। কিন্তু বখাটেপনা বন্ধ করা যায়নি। সমাজকে এ রোগ থেকে মুক্ত করা যায়নি। আমরা চাই, বখাটে উত্খাতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কঠোর চিরুনি অভিযান শুরু করুক। রাজধানী শুধু নয়, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালনা করা হোক। তা না হলে সমাজ কলুষমুক্ত হবে না। নিরাপদ হবে না। সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্ব যাদের, তাদেরও বিষয়টি নিয়ে গভীরভাবে ভাবতে হবে।

 

মন্তব্য