kalerkantho

সোমবার । ১৪ অক্টোবর ২০১৯। ২৯ আশ্বিন ১৪২৬। ১৪ সফর ১৪৪১       

বাড়ছে ছিনতাইয়ের ঘটনা

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখুন

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বড় ধরনের কোনো অঘটন ছাড়াই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয়ে গেছে। নতুন সরকার দায়িত্ব নিয়েছে। সরকারের নেওয়া কিছু উদ্যোগ জনমনে স্বস্তি এনে দিলেও সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে তৃপ্ত হওয়ার কোনো সুযোগ কি আছে? অন্তত রাজধানীতে যে হারে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে, তাতে আতঙ্কিত হতে হয়। নাগরিকের জন্য নগরীর রাস্তাঘাট যদি নিরাপদ না হয়, নিরাপত্তা যদি নিশ্চিত করা না যায়, তাহলে জনমনে কিছু অস্বস্তি তো থাকবেই। সাম্প্রতিক সময়ে ছিনতাইয়ের ঘটনা রাজধানীবাসীর জন্য চরম অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ছিনতাইকারীদের কাছে দিন ও রাতের কোনো তফাত নেই। রাজধানীর খিলক্ষেত রেললাইন দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় ছিনতাইকারীরা এক রডমিস্ত্রির সারা দিনের উপার্জন শুধু ছিনিয়েই নেয়নি, ছুরিকাঘাতে তাঁকে আহত করেছে। আবার মগবাজার উড়াল সেতুর নিচে দিনের বেলায় প্রকাশ্যে গুলি করে এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে চার লাখ টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে ছিনতাইকারীরা। পল্টনে পুলিশ বক্সের পাশেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী ছিনতাইয়ের শিকার হয়েছেন। আর ট্রেনের ছাদে অহরহই ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা।

কালের কণ্ঠে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, গত দুই মাসে রাজধানীতে অন্তত ৪০টি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। এর কোনো কোনোটির ক্ষেত্রে মামলা ও জিডি হয়েছে। অনেকেই মামলা করেননি। তদন্তে বেশির ভাগ ঘটনায় অপরাধী শনাক্ত হয়নি, কেউ ধরা পড়েনি। যদিও দুর্বৃত্তদের গ্রেপ্তার করে অপরাধ কমিয়ে আনার লক্ষ্যে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় থানা পুলিশের পাশাপাশি ফাঁড়ি ও চেকপোস্ট সক্রিয় রয়েছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে ছিনতাই রোধে নেওয়া হয়েছে নানা পদক্ষেপ। কিন্তু এত কিছুর পরও ছিনতাই কমছে না, বরং বাড়ছে। যদিও পুলিশের দেওয়া তথ্য বলছে, একসময় রাজধানীর ৪৪৪টি স্থানে ছিনতাইকারীরা ঘোরাঘুরি করত। এখন অনেক কমে এসেছে। এখন কমে এলেও অন্তত দুই শতাধিক পয়েন্টে প্রায়ই ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। পুলিশের ভাষ্য, যেসব এলাকায় ছিনতাই বেশি হয়, ওই সব এলাকায় পুলিশের টহল বাড়ানো হয়েছে।

সামাজিক নানা ধরনের অপরাধ, বিশেষ করে ছিনতাইয়ের ঘটনা যত বাড়বে, অপরাধ দমনে পুলিশের ভূমিকা নিয়েও সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ পুঞ্জীভূত হতে থাকবে। মানুষের মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হবে, এটাই স্বাভাবিক। ক্ষেত্র বিশেষে অপরাধ দমনে পুলিশের অবস্থান নিয়েও জনমনে প্রশ্ন দেখা দেবে। রাজধানীর ছিনতাইয়ের স্পটগুলো চিহ্নিত করেছে বলে পুলিশ অনেক আগেই জানিয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই ধরে নেওয়া যায়, ছিনতাই প্রতিরোধে পুলিশ যথাযোগ্য ব্যবস্থা নিতে পারে। অপরাধ দমনে আমাদের পুলিশের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার কোনো সুযোগ নেই। তাই আমরা আশা করব, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়নে, বিশেষ করে ছিনতাই প্রতিরোধে পুলিশ সব ধরনের ব্যবস্থা নেবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা