kalerkantho

শনিবার  । ১৯ অক্টোবর ২০১৯। ৩ কাতির্ক ১৪২৬। ১৯ সফর ১৪৪১         

ডাক বিভাগে ডিজিটাল সেবা

প্রত্যন্ত এলাকায় পৌঁছে দিতে হবে

১৬ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সরকারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে আর্থিক লেনদেন ব্যবস্থায় ১০০ বছরেরও বেশি সময়ের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ডাক বিভাগ ‘নগদ’ নামে নতুন একটি ডিজিটাল আর্থিক সেবা চালু করতে যাচ্ছে। ‘বাংলাদেশ পোস্টাল অ্যাক্ট অ্যামেন্ডমেন্ট ২০১০-এর ৩-এর ২এফ ধারার আইন অনুযায়ী সেবাটি পরিচালিত হবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ—এই লক্ষ্য সামনে রেখে ২০১০ সালে ডাক বিভাগ পোস্টাল ক্যাশ কার্ড সেবা চালু করে, যেটা ছিল ডাক বিভাগের প্রথম ডিজিটাল আর্থিক সেবা।

বাংলাদেশ ডাক বিভাগ দেশের একটি পুরনো প্রতিষ্ঠান। দেশজুড়ে রয়েছে ৯ হাজার ৮৬৬টি পোস্ট অফিস এবং অসংখ্য দক্ষ কর্মী। যেকোনো সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠানে প্রথম প্রয়োজন হয় একটি অবকাঠামোর। বাংলাদেশ ডাক বিভাগের তা আছে। দক্ষ যে কর্মী বাহিনী রয়েছে তাদের আধুনিক প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়ে প্রশিক্ষিত করে তুলতে পারলে তাদের দিয়েই দেশে বড় বিপ্লব ঘটিয়ে ফেলা সম্ভব। লক্ষ করলে দেখা যাবে, দেশের ডাক যোগাযোগের সব ধরনের সেবা শুরু হয়েছিল ডাক বিভাগের মাধ্যমে। শুরু থেকেই ডাক বিভাগ যেসব কাজ করে আসছে, সেগুলো হচ্ছে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ডাক দ্রব্যাদি গ্রহণ, পরিবহন ও বিলি, ভ্যালু পে-এবল বা ভিপি সার্ভিস, বীমা সার্ভিস, পার্সেল সার্ভিস, বুক পোস্ট, মানি অর্ডার সার্ভিস, এক্সপ্রেস সার্ভিস, ই-পোস্ট ইত্যাদি। ডাক বিভাগই প্রথম জিইপি চালু করে। গ্যারান্টেড এক্সপ্রেস পোস্ট সংক্ষেপে জিইপি নামে পরিচিত। দ্রুত ও নিরাপদে চিঠি পাঠানোর জন্য জিইপি ব্যবস্থা বেশ জনপ্রিয় হয়েছিল। একইভাবে সুলভে পার্সেল করার সুযোগ ছিল ডাক বিভাগে। ডাক বিভাগের সেবাগুলো নিয়েই দেশে এখন অসংখ্য বেসরকারি কুরিয়ার সার্ভিস লাভজনকভাবে ব্যবসা পরিচালনা করছে। শুধু পার্সেল সার্ভিস পরিচালনা করে অনেক প্রতিষ্ঠান। আজকের দিনে মানি অর্ডারের জায়গা নিয়ে নিয়েছে বিকাশ-রকেটের মতো অনেক সেবা। অথচ সবার আগে সব ধরনের সেবা নিয়ে গ্রাহকদের কাছে যাওয়ার সুযোগ ছিল ডাক বিভাগের। দেরিতে হলেও ডাক বিভাগ নতুন করে সেবাসামগ্রী নিয়ে গ্রাহকদের কাছে যেতে চাইছে। এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাতে হবে।

ডাক বিভাগের আধুনিকায়ন এখন সময়ের দাবি। আধুনিক প্রযুক্তির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিয়ে ডাক বিভাগকে আবারও জনপ্রিয় একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা সম্ভব। এর জন্য প্রয়োজন শুধু আন্তরিকতার। আমরা আশা করব, বাংলাদেশ ডাক বিভাগ প্রত্যন্ত এলাকা পর্যন্ত সব ধরনের আধুনিক সেবা পৌঁছে দেবে। সে সামর্থ্য প্রতিষ্ঠানটির আছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা