kalerkantho

শুক্রবার। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৪ ডিসেম্বর ২০২০। ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২

টেক টাশকি

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টেক টাশকি

গ্রাফিক্যাল ইউজার ইন্টারফেইস (জিইউআই) তথা ছবিসহ ইন্টারফেইস আছে এমন প্রথম কম্পিউটারটি তৈরি করেছিল অ্যাপল। কম্পিউটারটির নাম দি অ্যাপল লিসা। লিসার পুরো অর্থ হলো—লজিক্যাল ইন্টিগ্রেটেড সফটওয়্যার আর্কিটেকচার। অ্যাপলের কর্ণধার প্রয়াত স্টিভ জবসের মেয়ের নামও কিন্তু লিসা।

 

সবচেয়ে দামি ফোনটা নিশ্চয়ই হীরা-জহরতে মোড়ানো। তাই বলে ফোন নম্বর আবার দামি হয় কী করে। অবশ্য নাম্বারটা যদি হয় অনন্য, তবে সেটা দামি হতেই পারে। কাতার টেলিকম তাদের একটি ফোন নম্বর তুলেছিল নিলামে। তাতে এক ধনকুবের মোটা অঙ্কের টাকায় কিনে নেয় ৬৬৬-৬৬৬৬ নম্বরটি। এ নম্বরের মালিক হতে ওই লোককে গুনতে হয়েছিল প্রায় ২২ কোটি টাকা!

 

ফেসবুকের লোগো ও অন্যান্য রঙে দেখবে নীলের প্রাধান্য রয়েছে। এরও একটা কারণ আছে বটে। ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ কালার ব্লাইন্ড! তিনি সবুজ ও লাল রংটা দেখতে পান না। এ কারণেই ফেসবুক নীলে নীলময়।

 

ইউটিউবে যে কটি ভিডিও আছে, এর মধ্যে গান ৫ শতাংশ। কিন্তু ভিউর হিসাবে এ গানই দখল করে আছে ২০ শতাংশ।

 

ফেসবুকের ওয়েবসাইটের নিরাপত্তাব্যবস্থা বা ছোটখাটো কোনো ত্রুটি ধরিয়ে দিতে পারলে সর্বনিম্ন সম্মানী দেওয়া হয় প্রায় ৪০ হাজার টাকা।

 

ফেসবুকের আগে সোশ্যাল মিডিয়া সাইট হিসেবে মাইস্পেস ছিল বেশ জনপ্রিয়। কিন্তু ২০১৬ সালে সার্ভার থেকে ডাটা সরাতে গিয়ে দুর্ঘটনাবশত মাইস্পেসের সব ডাটা মুছে যায়। আর এতেই মুছে যায় তাতে সংরক্ষিত প্রায় পাঁচ কোটি গান। একবার ভাবো তো, ফেসবুকের সব ডাটা যদি একদিন হুট করে মুছে যায় তখন কী হবে! তাই সময়মতো গুরুত্বপূর্ণ স্মৃতিগুলোর আরেকটা ব্যাকআপ রাখা বাঞ্ছনীয়।

 

১৯৯১ সালে বিশ্বের প্রথম ওয়েবসাইটটি চালু করেন টিম বার্নাস লি। সাইটটির ঠিকানা রহভড়.পবত্হ.পয। মজার ব্যাপার, সাইটটি এখনো চালু আছে। ঢু মেরে দেখে নিতে পারো, কেমন ছিল ওয়েবসাইটের পূর্বপুরুষের চেহারা।

 

     সংকলন : ফয়সল আবদুল্লাহ

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা